kalerkantho


সিনেমায় ও বাস্তবে

ঈদে মুক্তি পাবে অনেক সিনেমা। সেসব সিনেমা দেখে মজে যাবেন না। কারণ সিনেমার জগৎ আর বাস্তবতার মধ্যে অনেক পার্থক্য। বিশ্বাস না হলে চলুন আপনাকে বিশ্বাস করাই। লিখেছেন ইমরান, এঁকেছেন মাসুম

২০ জুন, ২০১৭ ০০:০০



সিনেমায় ও বাস্তবে

বাস্তবে : কলেজের করিডরে নায়কের সঙ্গে সংঘর্ষ। অতঃপর প্রিন্সিপালের কাছে নায়িকার নালিশ।

সবশেষে প্রিন্সিপাল কর্তৃক নায়ককে মৌখিকভাবে শাসানো।


সিনেমায় : নায়কের মা হাসপাতালে। অপারেশন করতে হবে। ৩০ লাখ টাকা লাগবে। নায়ক ঠেলাগাড়ি ঠেলে, ইট ভেঙে তিন দিনের মধ্যে টাকা জোগাড় করে। অপারেশন সাকসেসফুল হয়।


বাস্তবে : নায়কের মা হাসপাতালে। ডাক্তার দিয়েছে অসংখ্য টেস্ট। টেস্টের বিল দিতে গিয়ে নায়কের তহবিল শেষ। এর মধ্যে মা যায় মরে। বিল না মেটালে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লাশ দেবে না বলে ঘোষণা করে।


সিনেমায় : নায়ক সারা দিন টো টো করে বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে বেড়ায়। মেয়েদের উত্ত্যক্ত করে। তবে পরীক্ষার রেজাল্ট বেরোলে দেখা যায় নায়ক ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট।


বাস্তবে : নায়ক সারা দিন টো টো করে ঘুরে বেড়ায়। রাতে টুকটাক পড়ে। পরীক্ষার আগে ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র পায়। পরীক্ষার হলে গিয়ে দেখে প্রশ্ন কমন পড়েনি। রেজাল্ট বেরোলে দেখা যায় সে ফেল।


সিনেমায় : নায়ক গরিব বলে নায়িকার বাবা জিজ্ঞেস করে, ‘কত টাকা হলে তুই আমার মেয়ের জীবন থেকে সরে যাবি?’ নায়ক হুংকার দিয়ে বলে, ‘টাকা দিয়ে আমাকে কেনা যাবে না চৌধুরী সাহেব। ’


বাস্তবে : নায়ক গরিব বলে নায়িকার বাবা জিজ্ঞেস করে, ‘কত টাকা হলে তুই আমার মেয়ের জীবন থেকে সরে যাবি?’ নায়ক বলে, ‘১০ লাখ হলে সরব স্যার। টাকাটা কখন দেবেন?’


সিনেমায় : নায়িকাকে একা পেয়ে ভিলেনের দলের আক্রমণ। হঠাৎ আকাশ থেকে নায়কের আগমন। ভিলেনের দলকে কড়া ধোলাই দিয়ে হাসপাতালে প্রেরণ।


বাস্তবে : নায়িকাকে ভিলেনের আক্রমণ। তাকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসে নায়ক। এ সময় আসে পুলিশ। রাস্তায় মারামারির অপরাধে নায়ক গ্রেপ্তার।


সিনেমায় : নায়িকার বাবা ছোটকালে নায়কের মা-বাবাকে মেরে ফেলেছিল। নায়ক তার প্রতিশোধ নেয়। নায়িকার বাবাকে গুলি করে মোরব্বা বানিয়ে ছাড়ে।


বাস্তবে : নায়িকার বাবা ছোটকালে নায়কের মা-বাবাকে মেরে ফেলেছিল। সেই প্রতিশোধ নিতে গিয়ে নায়ক পিস্তল কেনে। ধরা পড়ে পুলিশের কাছে। অতঃপর অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে ১৪ বছর জেল।


মন্তব্য