kalerkantho


বৃহত্তর ঐক্যের ঘোষণা এ মাসেই!

বি চৌধুরী-ড. কামালের নেতৃত্বেও রাজি বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বি চৌধুরী-ড. কামালের নেতৃত্বেও রাজি বিএনপি

চলতি মাসেই সরকারবিরোধী দলগুলোর বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের ঘোষণা আসতে পারে। এ বিষয়ে গতকাল রাতে এক বৈঠকে নিজেদের মধ্যে মতবিনিময় করেছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বৃহত্তর ঐক্যের প্রধান কে হবেন তা নিয়ে আলোচনায় বিএনপি নেতারা মত দিয়েছেন, যুক্তফ্রন্টে থাকা তিনটি দল, গণফোরামসহ অন্য দলগুলো সিদ্ধান্ত নিয়ে গ্রহণযোগ্য কাউকে মনোনীত করলে তাতে বিএনপির আপত্তি থাকবে না। বিকল্প ধারা সভাপতি ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বা গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের মধ্যে কেউ হলে তা নিয়ে চূড়ান্ত আলোচনা হতে পারে।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দলটির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ আলোচনা হয়। বৈঠকে থাকা দলটির এক নেতা কালের কণ্ঠকে জানান, বিএনপি অনেক দিন থেকেই বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য নিয়ে কাজ করছে। এটি এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে। চলতি মাসে যেকোনো দিন এ বিষয়ে ঘোষণা আসবে। এ জন্য যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তাও লিখিত আকারে তৈরি করা হয়েছে। এটি নিয়েও আজকের (গতকালের) বৈঠকে আলোচনা হয়েছে।

দলে কট্টরপন্থী হিসেবে পরিচিত ওই নেতা আরো বলেন, বৃহত্তর এই ঐক্যের প্রধান কে হবেন তা এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। তবে যুক্তফ্রন্টে থাকা তিনটি দল, গণফোরামসহ অন্য দলগুলো সিদ্ধান্ত নিয়ে গ্রহণযোগ্য কাউকে মনোনীত করলে বিএনপির তাতে আপত্তি থাকবে না বলেও মনে করেন স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। এ ক্ষেত্রে বিকল্প ধারা সভাপতি ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বা গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের মধ্যে কেউ হলে তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

বৈঠক সূত্রগুলো আরো বলছে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য সফর শেষে দেশে ফেরার পর ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে একান্তে বৈঠক করেছেন। ওই বৈঠকে বিএনপি সরকারের কাছে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য যে প্রস্তাবগুলো তুলে ধরবে তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ড. কামাল ওই প্রস্তাবগুলো ইতিবাচক বলে মন্তব্য করেন।

গত রাতের প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা দলের চেয়ারপারসনের মামলা, তাঁর সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে কী ধরনের নতুন কর্মসূচি দেওয়া যায় তা নিয়ে আলোচনা করেন। মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে বৈঠকে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, রফিকুল ইসলাম মিয়া, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



মন্তব্য