kalerkantho


আফগানিস্তান ম্যাচের আগে ‘অস্থির’ বাংলাদেশ

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আফগানিস্তান ম্যাচের আগে ‘অস্থির’ বাংলাদেশ

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের জন্য বাংলাদেশ দলের অনুশীলন। ছবি : সৌজন্য

ভারতীয় এক টিভি চ্যানেলের আবদার মেটাতে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে নিয়ে এলেন ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ। দুবাইয়ের স্পোর্টস সিটির আইসিসি একাডেমি মাঠের পাশে এক গাছতলায় বসে বাংলাদেশ অধিনায়ক সাক্ষাৎকার দিতেও শুরু করলেন। দিতে দিতেই পেলেন এমন এক প্রশ্ন, যেটির জবাব প্রশ্নকর্তাকেও ভড়কে দিল।

প্রশ্ন : বিরাট কোহলির না থাকাটা নিশ্চয়ই আপনাদের জন্য সুবিধার হবে।

মাশরাফির জবাব : আমাদেরও তো তামিম ইকবাল নেই। এটাও আপনাদের জন্য সুবিধা হওয়ার কথা।

ভারতের সঙ্গে মাঠের লড়াইয়ের আগে অন্তত কথার লড়াইয়ে সমানে-সমান থাকতে চাইলেন মাশরাফি। মাঠে গড়ালেও নিঃসন্দেহে লড়াইটা পাল্লা দিয়েই করতে চাইবে বাংলাদেশ। কিন্তু এর আগে একটি অসম লড়াইও আছে, যে লড়াইয়ে পেরে ওঠার বিন্দুমাত্র সম্ভাবনা না থাকায় আপাতত ক্ষোভ ঝেড়েই হালকা হওয়ার চেষ্টা।

হালকা হতে চাইলেন মাশরাফিও। হুট করে টুর্নামেন্টের মাঝপথে সূচি বদলে যাওয়া নিয়ে রাগ-ক্ষোভ উগরেও দিলেন। আর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা এমনই জোরদার যে অনেক সময় বোঝারই উপায় থাকল না আজ আবুধাবিতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ গ্রুপ ম্যাচ খেলতে নামতে হবে বাংলাদেশকে।

অবশ্য এ ম্যাচের মূল্যও তেমন আর নেই। ভারতকে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষ আর বাংলাদেশকে ‘বি’ গ্রুপের দ্বিতীয় বাছাই বানিয়ে নতুনভাবে খেলার সূচি হয়ে যাওয়ায় আজ আফগানদের হারালেও গ্রুপসেরা হওয়ার আনন্দে ঝলমলিয়ে ওঠার সুযোগ নেই মাশরাফিদের; যদিও পুরনো সূচি অনুযায়ী খেললেই বরং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রচণ্ড গরম আর ভ্রমণের ঝক্কি বেশি যেত ক্রিকেটারদের ওপর দিয়ে। তখন আফগানিস্তান ম্যাচসহ চার দিনের মধ্যে তিনটি ম্যাচ খেলতে হতো আবুধাবিতে গিয়ে। যাওয়া-আসায় প্রতিদিন দেড় ঘণ্টা করে তিন ঘণ্টার ভ্রমণক্লান্তির ব্যাপারও ছিল।

আগের সূচি অনুযায়ী গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচসহ ছয় দিনের মধ্যে খেলতে হতো চার ম্যাচ। কিন্তু এখন নতুন সূচি অনুযায়ী চারটি ম্যাচ খেলতে হবে সাত দিনের মধ্যে। আফগানদের বিপক্ষে ম্যাচের পরদিনই আবার আবুধাবিতে ছুটতেও হবে না। ২১ সেপ্টেম্বর ভারতের সঙ্গে খেলা যে দুবাইতে। এক অর্থে সুবিধাজনকই। তবে নিজেদের ধকলের চেয়ে এখানে নৈতিকতাই বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে বাংলাদেশ শিবিরের কাছে। তাই খেলার ফলে নয়, ক্ষমতার জোরে সুপার ফোরে ভারতের সব খেলা দুবাইতে রাখা এবং বাংলাদেশের গ্রুপসেরা হওয়ার সম্ভাবনাও কাগজে-কলমে শেষ করে দেওয়া নিয়েই বেশি সোচ্চার ছিল কালকের বাংলাদেশ।

এতে আফগানরাও হারিয়ে গেল। তবে একেবারে নয়। কিছুটা থাকলেও ২১ সেপ্টেম্বরের ভারত ম্যাচের জন্য প্রাণশক্তি জমিয়ে রাখার চিন্তাই গুরুত্ব পেল বেশি। দুয়ে মিলে সূচি বদলের ব্যাপারটি দলকে অস্থির করে তুলেছে বলেও জানালেন মাশরাফি, ‘২১ তারিখের ম্যাচের জন্য নিজেদের যতটা ধরে রাখা যায়, যতটা ফিট থাকা যায়, এটা নিয়েও ভাবা জরুরি। এখন সত্যি বলতে কি, আফগানিস্তান ম্যাচ নিয়ে ভাবনা যতটুকু ছিল, সেটি তো আর নেই। এখন ২১ তারিখের ম্যাচের পরিকল্পনাই বেশি করতে হচ্ছে। আবার একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করব না, সেটিও হয় না। সব মিলিয়ে অস্থির অবস্থায় আছি আমরা।’

সেই অস্থিরতা কাটিয়ে আফগানিস্তানের বিপক্ষে জেতার চিন্তা যেমন আছে, তেমনি আছে ভারতের মুখোমুখি হওয়ার আগে দলের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারদের সতেজ রাখার চিন্তাও; যে জন্য আজ আফগানদের বিপক্ষে দলে অদলবদলও হচ্ছে অনেক। তামিম ইকবাল চোট পেয়ে মাঠের বাইরে ছিটকে পড়ায় একটি পরিবর্তন অবধারিতই ছিল। একই সঙ্গে অবধারিত ছিল লিটন কুমার দাশের সঙ্গে নাজমুল হোসেনের ওপেন করতে যাওয়ার ব্যাপারটিও। তবে এর বাইরেও আরো দুটি পরিবর্তন নিয়ে আজ নামছে বাংলাদেশ।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৪৪ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলা মুশফিকুর রহিম সেদিন ফিল্ডিংয়েই নামতে পারেননি আর। কাল মাশরাফি জানালেন, সেদিন হোটেলে ফিরে নাকি এমনকি দাঁড়াতেও পারছিলেন না এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। সেই থেকেই এই মহাগুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়কে বিশ্রাম দেওয়ার চিন্তা ছিল। সেটির বাস্তবায়নও হচ্ছে আজ। দল সূত্রের খবর মুশফিককে বিশ্রাম দিয়ে আজ নামানো হচ্ছে মমিনুল হককে। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পুনর্জন্মে তিনি নামবেন মুশফিকের পজিশন, ৪ নম্বরেই। বিশ্রামে রাখা হচ্ছে পেসার মুস্তাফিজুর রহমানকেও। তাঁর জায়গায় আজ ওয়ানডে অভিষেক হচ্ছে বাঁহাতি পেসার আবু হায়দারের। 

মাঠের বাইরের লড়াইয়ে না পারলেও সুযোগ আছে মাঠের লড়াইয়ে প্রতিপক্ষকে ভড়কে দেওয়ার। সে জন্যই মুশফিক-মুস্তাফিজদের বিশ্রাম দিয়ে ২১ সেপ্টেম্বরের ভারত ম্যাচে তাঁদের কাছ থেকে সর্বস্ব পাওয়ার আশা।



মন্তব্য