kalerkantho


আইসিটি অ্যাক্ট চূড়ান্ত করায় উদ্বিগ্ন সম্পাদক পরিষদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আইসিটি অ্যাক্ট চূড়ান্ত করায় উদ্বিগ্ন সম্পাদক পরিষদ

সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সম্প্রচার ও আইসিটি আইনের চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সম্পাদক পরিষদ। পরিষদ বলেছে, সাংবাদিক ও গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতিবাদ, বিরোধিতা আমলে না নিয়ে চূড়ান্ত করা হয়েছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। গতকাল রবিবার রাজধানীর ফার্মগেটে ডেইলি স্টার সেন্টারে পরিষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে বিবৃতিতে এ আইনের কয়েকটি ধারায় পরিবর্তনের দাবি জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, আইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২ ও ৪৩ ধারা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা মারাত্মক ক্ষুণ্ন করেছে। এসব বিষয়ে আইনমন্ত্রী ও আইসিটি মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হয়েছে সম্পাদক পরিষদের। বৈঠকে দুই মন্ত্রী সাংঘর্ষিক ধারাগুলো না রাখার বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন। বিষয়টি নিয়ে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সঙ্গেও সম্পাদক পরিষদ, বিএফইউজে, অ্যাটকো দুবার বৈঠক করেছে। বৈঠকে চূড়ান্ত প্রতিবেদনে সাংবাদিকতার স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন করে এমন কোনো ধারা না রাখার কথা জানানো হয়। কিন্তু বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলোর কোনো প্রতিফলন চূড়ান্ত প্রতিবেদনে দেখা যায়নি।

খসড়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রত্যাখ্যান করে সম্পাদক পরিষদ চার দফা আপত্তি জানিয়েছে। আপত্তিগুলো হচ্ছে—এ আইন সংবিধানের ৩৯(২)-এর ‘এ’ ও ‘বি’ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী মত প্রকাশের ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা নিশ্চিত করার পরিপন্থী। মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনার সঙ্গে চিন্তার স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতার পরিপন্থী। গণতন্ত্রের চর্চার সঙ্গেও এ আইন সাংঘর্ষিক, বাংলাদেশ যার জন্য সব সময় লড়াই করেছে। সাংবাদিকতার মৌলিক দর্শন এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতার পরিপন্থী এ আইন, যার জন্য সাংবাদিকরা নিরন্তর সংগ্রাম করছেন।

বিবৃতিদাতারা হলেন নিউজ টুডের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন আহমেদ, মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, নিউ এজ সম্পাদক নুরুল কবির, ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, কলের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহীউদ্দিন, ইনকিলাব সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দিন, দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক, করতোয়া সম্পাদক মোজাম্মেল হক, ইনডিপেনডেন্ট সম্পাদক এম শামসুর রহমান, সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খন্দকার মুনীরুজ্জামান, যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম, বণিক বার্তা সম্পাদক দেওয়ান হানিফ মাহমুদ, ঢাকা ট্রিবিউন সম্পাদক জাফর সোবহান, সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি ও ফিন্যানশিয়াল এক্সপ্রেসের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক শাহীদুজ্জামান খান।



মন্তব্য