kalerkantho


এমপিওভুক্তির যোগ্য ১৫৩৭ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

আবেদনকারী ছিল ৬১৪১

শরীফুল আলম সুমন    

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



এমপিওভুক্তির যোগ্য ১৫৩৭ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

এমপিওভুক্তির জন্য ছয় হাজার ১৪১ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আবেদন করেছিল। এর মধ্যে এক হাজার ৫৩৭ প্রতিষ্ঠান নতুন নীতিমালার আওতায় এমপিও পাওয়ার যোগ্য বলে চিহ্নিত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদ গতকাল বুধবার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা একটি প্রাথমিক তালিকা তৈরি করেছি। সবাই বসে তা দেখার সময় কিছু পরিবর্তনও আসতে পারে। তবে তালিকার চূড়ান্ত অনুমোদন দেবেন শিক্ষামন্ত্রী।’ তিনি জানান, এমপিওভুক্তির জন্য ১০০ নম্বর রাখা হয়েছিল। একাডেমিক স্বীকৃতি, শিক্ষার্থীর সংখ্যা, পরীক্ষার্থী ও উত্তীর্ণের সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে নম্বর দিয়ে উত্তীর্ণদের বাছাই করা হয়েছে।

জানা যায়, এক হাজার ৯৬৭ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় আবেদন করেছিল, তাদের মধ্যে যোগ্য ৫৭৯ স্কুল। দুই হাজার ৭৩৯টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আবেদনের মধ্যে ৭৬৪টি প্রতিষ্ঠানকে যোগ্য বিবেচনা করা হচ্ছে। উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে এমপিওভুক্তির যোগ্য ১২১টি কলেজ। এর মধ্যে স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং কলেজ দুই স্তরের প্রতিষ্ঠানই রয়েছে। ৫৫৪টি ডিগ্রি কলেজ এমপিওভুক্তির আবেদন করেছিল, এর মধ্যে যোগ্য ৪৩ কলেজ।

জানা যায়, এমপিও নীতিমালা ২০১৮ অনুযায়ী, ১০০ নম্বরের শর্তের মধ্যে একাডেমিক স্বীকৃতির তারিখের জন্য রাখা হয়েছে ২৫ নম্বর। প্রতি দুই বছরের জন্য ৫ নম্বর এবং ১০ বা এর চেয়ে বেশি বছর হলে পাবে ২৫ নম্বর। শিক্ষার্থীর সংখ্যার জন্য ২৫ নম্বর। আর শিক্ষার্থীর কাম্য সংখ্যা থাকলে ওই প্রতিষ্ঠান পাবে ১৫ নম্বর এবং এর পরবর্তী ১০ শতাংশ বৃদ্ধির জন্য পাবে ৫ নম্বর। পরীক্ষার্থী এবং উত্তীর্ণের সংখ্যায়ও শিক্ষার্থী সংখ্যার মতোই একইভাবে নম্বর বণ্টন করা হয়েছে।

কাম্যযোগ্যতা পূরণ করতে নীতিমালা অনুযায়ী, সহশিক্ষা ও বালক প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শহরে ২০০ ও মফস্বলে ১৫০ জন শিক্ষার্থী থাকতে হবে। মাধ্যমিকে শহরে ৩০০ ও মফস্বলে ২০০ শিক্ষার্থী থাকতে হবে। স্কুল অ্যান্ড কলেজে শহরে ৪৫০ ও মফস্বলে ৩২০ জন শিক্ষার্থী থাকতে হবে। উচ্চ মাধ্যমিক কলেজে শহরে ২০০ ও মফস্বলে ১৫০ জন শিক্ষার্থী থাকতে হবে। স্নাতক পাস কলেজে শহরে ২৫০ ও মফস্বলে ২০০ শিক্ষার্থী থাকতে হবে। আর প্রত্যেকটি শ্রেণির পরীক্ষায় শহরে ৬০ জন ও মফস্বলে ৪০ জন শিক্ষার্থীর অংশ নিতে হবে। এর মধ্যে ৭০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে উত্তীর্ণ হতে হবে।

তবে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তালিকা চূড়ান্ত করা হলেও বর্তমান সরকারের মেয়াদে নির্বাচনের ঠিক আগে এমপিওভুক্তির সম্ভাবনা কম। এর কারণ হচ্ছে বাদ পড়া প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাতে পারে। নাম প্রকাশ না করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা দেড় হাজার প্রতিষ্ঠানের তালিকা তৈরি করেছি। তবে এত প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নেই। এই তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। তাঁরা মনে করলে একবারেও এমপিও দিতে পারেন, আবার পর্যায়ক্রমেও দিতে পারেন।’

এমপিওভুক্তির জন্য কত টাকার প্রয়োজন হবে তার হিসাবও করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তর। তবে তা করা হয়েছে সব আবেদনকারী ধরে। ছয় হাজার ১৪১টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করলে সরকারের বছরে অতিরিক্ত প্রয়োজন হবে দুই হাজার ৯৭৫ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার টাকা। এর মধ্যে নিম্ন মাধ্যমিক ১৯৬৭ প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রয়োজন হবে প্রায় ৬৮৪ কোটি টাকা। ২৭৩৯ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জন্য বছরে লাগবে প্রায় এক হাজার ২৩৭ কোটি টাকা। আর এক হাজার ৪৩৫টি উচ্চ মাধ্যমিক ও ডিগ্রি কলেজ এমপিওভুক্তির জন্য বছরে প্রয়োজন হবে প্রায় এক হাজার ৫৩ কোটি টাকা।

এমপিওভুক্তির বাছাই কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘জনসংখ্যার ভিত্তিতে সব উপজেলা থেকে যাতে সমসংখ্যক প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয় সে ব্যাপারটি বিবেচনা করা হবে। তাতে এখন এক হাজার ৫৩৭টি প্রতিষ্ঠান যোগ্য হলেও সেখান থেকে সংখ্যা কিছুটা কমতে পারে।’

মাউশি অধিদপ্তরের এডুকেশন ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (ইএমআইএস) সেলের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী দেশে এখন এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ২৮ হাজার। সবচেয়ে বেশি রয়েছে রাজশাহী বিভাগে, এরপর রংপুর ও খুলনা বিভাগের অবস্থান। এখন পর্যন্ত বরিশাল বিভাগে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে দুই হাজার ৭০১টি, চট্টগ্রামে দুই হাজার ১৫টি, কুমিল্লায় এক হাজার ৯৮৪টি, ঢাকায় তিন হাজার ২৭টি, খুলনায় তিন হাজার ৫৭৯টি, ময়মনসিংহে তিন হাজার ৫৭টি, রাজশাহীতে চার হাজার ১০৮টি, রংপুরে তিন হাজার ৯৯৭টি এবং সিলেট বিভাগে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে মাত্র এক হাজার ৮৯টি। যেসব এলাকায় কম প্রতিষ্ঠান রয়েছে সেসব এলাকা নতুন এমপিওভুক্তি লাভে অগ্রাধিকার পাবে বলেও জানা গেছে।



মন্তব্য