kalerkantho


রোহিঙ্গা ইস্যু

ভিয়েতনামের সহযোগিতা চায় ঢাকা

তিন এমওইউ সই

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৬ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



ভিয়েতনামের সহযোগিতা চায় ঢাকা

ছবি : কালের কণ্ঠ

রোহিঙ্গা সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানে ভিয়েতনামের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল সোমবার দুপুরে তাঁর কার্যালয়ে ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট চান দাই কোয়াংয়ের সঙ্গে বৈঠকে এ সহযোগিতা চান। বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের এবং ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট তাঁর দেশের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন। বৈঠক শেষে বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, যন্ত্র প্রকৌশল খাতে সহযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক বিনিময় বিষয়ে তিনটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই করেছে।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা এ অঞ্চলের দেশগুলোর শান্তি ও স্থিতিকে হুমকির মুখে ঠেলে দেওয়া রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেছি এবং রোহিঙ্গা সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানে আমি ভিয়েতনামের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছি।’

ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট চান দাই কোয়াং রোহিঙ্গা সমস্যার একটি সম্ভাব্য দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের প্রতি তাঁর সহযোগিতার বিষয়ে সমর্থন প্রকাশ করেছেন বলে জানান শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার সব বিষয়ে তাঁরা আলোচনা করেছেন এবং পারস্পরিক সহযোগিতার নতুন নতুন ক্ষেত্র চিহ্নিত করতে সক্ষম হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুই দেশের রাজনৈতিক সম্পর্ককে আরো পাকাপোক্ত করার পাশাপাশি ব্যবসা, বিনিয়োগ এবং কারিগরি সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর তাঁরা জোর দিয়েছেন। দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতাকে এগিয়ে নিতে এ বছর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর্যায়ে আলোচনার দ্বিতীয় পর্ব এবং ব্যবসাসংক্রান্ত যৌথ কমিটির দ্বিতীয় বৈঠক অনুষ্ঠানের ব্যাপারে উভয় পক্ষ একমত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় তাঁর সরকারের আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের রাজনৈতিক, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক অংশীদারি সৃষ্টির আগ্রহ প্রকাশ করে ‘মেকং-গঙ্গা’ সহযোগিতা ফোরামে যোগদানে আগ্রহের কথা জানান। তিনি এ ক্ষেত্রে ভিয়েতনামের সহযোগিতা কামনা করেন।

ভিয়েতনামকে বাংলাদেশের নিকট প্রতিবেশী হিসেবে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ও ভিয়েতনাম একই রকম শান্তি ও প্রগতির প্রত্যাশী। উভয় দেশের জনগণও একই ধরনের রীতিনীতি, ঐতিহ্য এবং মূল্যবোধের অংশীদার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ভিয়েতনামের মহান নেতা হো চি মিন তাঁদের দেশের জনগণের স্বাধীনতার জন্যই নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন।

এদিকে ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট চান দাই কোয়াং বলেন, উভয় দেশ ভৌগোলিক অবস্থান, প্রকৃতি, তরুণ জনগোষ্ঠী এবং বিশাল বাজার সুবিধা কাজে লাগাতে সম্মত হয়েছে। তিনি বলেন, দুই দেশ তাদের ঐতিহ্যবাহী বন্ধুত্ব বজায় রাখার কথা বলেছে। এ ছাড়া উভয় পক্ষ অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক ও বিনিয়োগ সহযোগিতা জোরদারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সফর বিষয়ে গতকাল বিকেলে প্রকাশিত এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, উভয় পক্ষ সন্ত্রাস ও আন্তর্দেশীয় অপরাধ মোকাবেলায় সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে সম্মত হয়েছে। এ ছাড়া দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য, পর্যটন ও মানুষে মানুষে যোগাযোগ বাড়াতে সরাসরি ফ্লাইট চালুর লক্ষ্যে চুক্তি সইয়ের ওপর উভয় পক্ষ জোর দিয়েছে।

ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট তিন দিনের সফরে গত রবিবার বিকেলে ঢাকায় আসেন। সফরসূচি অনুযায়ী ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট গতকাল সকালে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে গিয়ে স্বাধীনতার জন্য আত্মত্যাগকারী বীর শহীদদের প্রতি আনুষ্ঠানিকভাবে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর তিনি ঢাকায় ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে গিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান। পরে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যান। সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে স্বাগত জানান। বৈঠক শেষে দুপুরে ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট সোনারগাঁও হোটেলে ফেরেন।

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন গতকাল বিকেলে সোনারগাঁও হোটেলে ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এরপর ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট জাতীয় সংসদ কমপ্লেক্স পরিদর্শনে যান এবং সেখানে তিনি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বৈঠক করেন।

এদিকে, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মর্যাদা সহকারে নিরাপদ, টেকসই ও স্বেচ্ছা প্রত্যাবাসন নিশ্চিতকরণে ভিয়েতনাম সরকারের কার্যকর ভূমিকা কামনা করেছেন।

গতকাল সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে নৈশভোজের প্রাক্কালে ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট চান দাই কোয়াংয়ের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে তিনি এ কথা বলেন। বঙ্গভবনের একজন মুখপাত্র রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের বরাত দিয়ে বলেন, তিনি বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মর্যাদা সহকারে নিরাপদ, টেকসই ও স্বেচ্ছা প্রত্যাবাসন নিশ্চিতকরণে ভিয়েতনাম সরকারের কার্যকর ভূমিকা কামনা করেছেন।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ আয়োজিত এ নৈশভোজে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, পদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি বর্তমান সরকারের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেরও প্রশংসা করেন।

নৈশভোজে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, পররাষ্ট্র সচিব, সংশ্লিষ্ট সচিব এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূতও উপস্থিত ছিলেন।

প্রেসিডেন্ট চান দাই কোয়াং আজ মঙ্গলবার ভিয়েতনাম-বাংলাদেশ বিজনেস ফোরামের বৈঠক এবং ‘ভিয়েতনাম কালচারাল ডে ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। এরপর বিকেলে তিনি ঢাকা ছাড়বেন।



মন্তব্য