kalerkantho


মিরপুরের শততম ম্যাচে নেই বাংলাদেশ!

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মিরপুরের শততম ম্যাচে নেই বাংলাদেশ!

মেরেকেটে পাঁচ-ছয় হাজার দর্শক হয়তো হয়েছিল। ১৫ মাস পর ঘরের মাটিতে প্রথম ওয়ানডে হওয়া সত্ত্বেও। সেখানে স্বাগতিক বাংলাদেশ থাকার পরও। প্রচণ্ড শীত এবং প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে হওয়ায় দর্শকদের সেভাবে টানতে পারেনি ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচটি।

তাহলে আজকের শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ে দ্বৈরথে কী হবে? শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের গ্যালারির শূন্যতার হাহাকারের আগাম ছবিটা এঁকে দিতে কারোরই সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

দৃশ্যটার খানিক বদল হতে পারত এই ম্যাচেও বাংলাদেশ থাকলে। এই স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে যে কাল! এই মাইলফলকের ম্যাচের সাক্ষী হওয়ার জন্য দর্শকদের আগ্রহ থাকত কিছুটা। গ্যালারিও ভরত কিছুটা। কিন্তু বাংলাদেশের ক্রিকেট কর্তারা এসব নিয়ে ভাবেননি বোধ করি। সে কারণেই বাংলাদেশের ‘হোম অব ক্রিকেট’-এর শততম ওয়ানডে নেই স্বাগতিক দল।

এসব নিয়ে ভাবতে অবশ্য বয়েই গেছে শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ের। নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত তারা। নতুন কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহের অধীনে পথচলার শুরুটা মসৃণ করতে চায় লঙ্কানরা। ওদিকে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণের পর ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় জিম্বাবুয়ের। কাল সংবাদ সম্মেলনে সেটিই বলেছেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, ‘টুর্নামেন্টে আমাদের শুরুটা ভালো হয়নি। কালকের প্রতিপক্ষ ভিন্ন। জয়ে ফেরার চেষ্টা করব আমরা।’

শ্রীলঙ্কার থাকবে অভিন্ন চেষ্টা। ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে আজ না হয় প্রথম ম্যাচ খেলতে নামছে তারা, কিন্তু ক্যানভাস বড় করলে হারের বৃত্তে রয়েছে। সর্বশেষ ১৫ ওয়ানডে ম্যাচের মধ্যে জিতেছে কেবল একটিতে। নতুন কোচ হাতুরাসিংহের অধীনে নতুন শুরুর চ্যালেঞ্জ তাই শ্রীলঙ্কার। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ন্যূনতম প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলতে পারেনি। তবে এ নিয়ে খুব বেশি ভাবছেন না লঙ্কান অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ, ‘আমাদের কাল (আজ) মাঠে খেলে খুব ভালোভাবে শুরু করতে হবে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আয়েশী হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। জিম্বাবুয়ে ভয়ংকর দল হয়ে উঠতে পারে। বাংলাদেশের কাছে হারলেও ওদের আমরা হালকাভাবে নিচ্ছি না।’ হালকাভাবে নেবে কেন? ঘরের মাঠে সর্বশেষ সিরিজে শ্রীলঙ্কা তো ২-৩ ব্যবধানে হেরেছিল জিম্বাবুয়ের কাছে। এ কারণে চ্যালেঞ্জটা জানা আছে ম্যাথুজের, ‘শ্রীলঙ্কায় জিম্বাবুয়ে ভালো খেলেছে। ওরা ভালো দল। ওদের সব ক্রিকেটার জাতীয় দলে খেলার জন্য ফিরেছে। এ কারণে ওরা আরো বেশি শক্তিশালী এখন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং হবে।’

ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্ট বলে বাকি দুটি দল নিয়েই হিসাব-নিকাশের ব্যাপার রয়েছে। লঙ্কান ক্যাম্প অবশ্য মনোযোগ দিচ্ছে আজকের ম্যাচে। অধিনায়কের কথায় তারই প্রতিধ্বনি, ‘বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে দুটি দলই ভালো। ত্রিদেশীয় সিরিজের সব দল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকার মতো। কারো বিপক্ষে আমাদের আয়েশী হওয়া চলবে না। আমরা একটি একটি ম্যাচ করে চিন্তা করছি। আগে কালকের ম্যাচটি খেলি, পরে সামনেরগুলোর কথা ভাবব।’

সেই ম্যাচটি অল্প কিছু দর্শকের স্টেডিয়ামে খেলার প্রস্তুতিও নিয়ে রাখতে পারে শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ে। হলোই বা এটি স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে ম্যাচ!



মন্তব্য