kalerkantho


চার সিটিতে নির্বাচনের আগেই শেখ হাসিনার জনসভা

‘মানুষ ভোট দিয়েছে বলেই চার বছর পূর্ণ করা গেল’

আব্দুল্লাহ আল মামুন ও তৈমুর ফারুক তুষার   

৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



চার সিটিতে নির্বাচনের আগেই  শেখ হাসিনার জনসভা

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যদের নিজ এলাকায় ‘আমিই সব’—এমন মনোভাব বা কর্মকাণ্ড পরিত্যাগ করার বার্তা দিয়েছেন দলটির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আগামী নির্বাচনে এমপি প্রার্থী হতে চান, এমন নেতাদের কাজে বর্তমান এমপিদের বাধা না দিতেও নির্দেশনা দিয়েছেন।

শেখ হাসিনা গতকাল শনিবার রাতে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় এমন নির্দেশনা দেন বলে আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র কালের কণ্ঠকে জানিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এ সভা হয়।

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক নেতা আরো জানান, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট—এ চার সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সেখানে আওয়ামী লীগের জনসভায় অংশ নেবেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। কুমিল্লা ও রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে পরাজয়ের অভিজ্ঞতা আমলে নিয়ে আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে আর কোনো সিটিতে পরাজয় দেখতে চায় না ক্ষমতাসীন দলটি। তারা আগামী দিনে বড় সিটি করপোরেশনগুলোর নির্বাচনকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছে। এ কারণে সভায় বিভাগীয় চার নগরে আওয়ামী লীগ সভাপতির জনসভায় অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় উপস্থিত একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে জানান, বৈঠকে জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখেও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ব্যাপক প্রচারে নামার নির্দেশনা দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ব্যাপক প্রচার চালাতে হবে। একই সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসসহ ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড বারবার মানুষকে মনে করিয়ে দিতে হবে। আপনাদের সবাইকে খালেদা জিয়ার নাশকতা ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে মুখ খুলতে হবে।’

দলীয় নেতাকর্মীদের সংশোধন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, মানুষের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করতে হবে। কাউকে খাটো করা যাবে না। ঘরে ঘরে গিয়ে মানুষের মন জয় করতে হবে।

দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘মনোনয়ন দেবে মনোনয়ন বোর্ড। আমাদের জরিপকাজ অব্যাহত আছে। কার অবস্থা কেমন আমার জানা আছে। মনোনয়নপ্রত্যাশীরা নিজের প্রচার না করে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের প্রচার চালান।’

দলীয় সংসদ সদস্যদের সতর্ক করে শেখ হাসিনা বলেন, “আপনি আছেন বলে এলাকায় অন্য কেউ প্রার্থী হতে পারবে না এটা হতে পারে না। এলাকায় সব কিছু নিজে করবেন, ‘আমিই সব’—এমন মনোভাব ছাড়তে হবে। যাঁরা প্রার্থী হতে চান সবাইকে কাজ করার সুযোগ দিন। সবাই প্রচার চালাবেন। সবাই নৌকার প্রচার চালাবেন। কেউ ঝামেলা করবেন না। এতে ভোট নষ্ট হয়।”

শেখ হাসিনা প্রতি শুক্র ও শনিবার এমপিদের নিজ এলাকায় অবস্থান করে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণের নির্দেশনা দেন। তিনি নতুন করে দলে আসা নেতাকর্মীদের বিষয়ে সতর্ক থাকতেও আওয়ামী লীগের নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান।

সূত্রগুলো জানায়, বৈঠকে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম সামনে চার সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একটি করে জনসভায় অংশ নেওয়ার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, ‘তফসিল ঘোষণা হয়ে গেলে আর আমরা জনসভায় অংশ নিতে পারব না।’

তখন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য খায়রুজ্জামান লিটন রাজশাহীতে এবং বদরউদ্দিন আহমদ কামরান সিলেটে জনসভায় শেখ হাসিনাকে অংশ নেওয়ার অনুরোধ জানান।

পরে শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে দুই দিনের মধ্যেই একটি সফরসূচি তৈরির নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রী জানান, সিলেটে জনসভার মধ্য দিয়ে তিনি চার সিটিতে জনসভার কর্মসূচি শুরু করবেন। এরপর অন্য সিটিগুলোতে যাবেন।

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি দুই মাস আগেই রাজশাহীতে লিটন এবং সিলেটে কামরানকে প্রস্তুতি নিতে বলে দিয়েছি। এখন খোঁজ নেব তারা কত দূর কী করল।’

তবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে একজন নেতা কথা তুললেও শেখ হাসিনা এ নিয়ে আলোচনা করেননি।

সভায় আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য টিপু মুন্সি বলেন, রংপুর সিটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ভালো না হওয়ায় বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজয় হয়েছে।

এ সময়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘রংপুরে আমাদের যিনি প্রার্থী হয়েছিলেন তাঁর আকুতি ছিল শেষবারের মতো একবার সুযোগ পাওয়ার। সে জন্যই তাঁকে মনোনয়ন দিয়েছি। তবে এত ভোটের ব্যবধানে পরাজয়টা ভালো হয় নাই।’

সূত্রগুলো জানায়, আগামী জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর একজন করে সদস্যের নেতৃত্বে সারা দেশে সাংগঠনিক সফরের লক্ষ্যে ১০টি টিম গঠনের নির্দেশনা দিয়েছেন শেখ হাসিনা। আগামীকালের মধ্যেই এসব টিম ঘোষণা করার জন্য দলের সাধারণ সম্পাদককে নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

সূত্রগুলো আরো জানায়, সামনে সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচন আওয়ামী লীগের কোন ব্যানারে প্যানেল হবে তা জানতে চান দলটির আইনবিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিম। এ সময়ে শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের ব্যানারে প্যানেল না দিয়ে সমন্বয় পরিষদের ব্যানারে প্যানেল দেওয়ার নির্দেশনা দেন। শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুল মতিন খসরু ও আইনবিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিমকে যোগ্য প্রার্থী খোঁজারও নির্দেশনা দেন।

সভায় আগামী ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস, ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচি চূড়ান্ত করা হয়।

‘মানুষ ভোট দিয়েছে বলেই চার বছর পূর্ণ করা গেল’ : এর আগে সূচনা বক্তব্যে শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘৫ জানুয়ারির নির্বাচন ভোটারবিহীন ছিল না। দেশের মানুষ ভোট দিয়েছে বলেই চার বছর পূর্ণ করতে পারলাম। এরশাদ ও খালেদা জিয়া ভোট চুরি করে ক্ষমতায় এসেছিল বলেই তারা টিকে থাকতে পারেনি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী জিয়া-এরশাদ। এ ব্যাপারে কিন্তু হাইকোর্টে রায় রয়েছে। যারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসেছে তারা কিভাবে গণতন্ত্রের কথা বলে। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে বলাটা তাদের মজ্জাগত দোষ। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে আমরা দেশ স্বাধীন করেছি, সেটাও তাদের কাছে অপরাধ। কারণ অনেকের অন্তরে এখনো পেয়ারে পাকিস্তান রয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘খালেদা জিয়া টুইট করেছে আওয়ামী লীগ বুলেটে আর বিএনপি ব্যালটে বিশ্বাসী। এ কথা কতটুকু সত্য তা এ দেশের মানুষ জানে। আমিই প্রথম বলেছিলাম, আমরা বুলেটে বিশ্বাস করি না আমরা ব্যালটে বিশ্বাসী। যারা বন্দুকের নল দেখিয়ে রাষ্ট্রপতিকে অসুস্থ করে নিজে রাষ্ট্রপতি হয়ে টেলিভিশনে বলে আজ থেকে আমি রাষ্ট্রপতি—তারা আবার গণতন্ত্রের কথা বলে!’



মন্তব্য