kalerkantho


ডিএনসিসি উপনির্বাচন

মেয়র পদে এক প্রার্থী দিতে চায় বাম দলগুলো

লায়েকুজ্জামান   

৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মেয়র পদে এক প্রার্থী দিতে চায় বাম দলগুলো

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে উপনির্বাচনে এক প্রার্থী দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বাম দলগুলো। এ নিয়ে আলোচনাও শুরু হয়েছে বলে জানালেন সংশ্লিষ্ট কয়েকটি দলের নেতারা। তবে শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হবে কি না সে নিয়েও সন্দিহান তাঁদের কেউ কেউ।

২০১৫ সালে ডিএনসিসির প্রথম নির্বাচনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) থেকে আবদুল্লাহ আল ক্কাফি এবং গণসংহতি আন্দোলন থেকে জোনায়েদ সাকি মেয়র পদে প্রার্থী ছিলেন। ৮টি বাম দল নিয়ে গঠিত গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা সে সময় সমর্থন দিয়েছিল জোনায়েদ সাকিকে। অন্যদিকে সিপিবি-বাসদ সমর্থন দেয় আবদুল্লাহ আল ক্কাফিকে। 

সিপিবি-বাসদ ও গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা সম্প্রতি ৫ দফা কর্মসূচির ভিত্তিতে এক জোটে এসেছে। ওই জোটের নেতারা মনে করেন, বর্তমান নির্বাচন পদ্ধতির আমূল পরিবর্তন দরকার। নির্বাচনে যাওয়াটা তাঁদের কাছে সে পরিবর্তনের লক্ষ্যে আন্দোলনের অংশ।

সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের দলীয় প্রার্থী আবদুল্লাহ আল ক্কাফি, তবে আমরা বাম দলগুলোর জোট এক প্রার্থী দিয়ে একসঙ্গে নির্বাচন করতে চাই। সে জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’ 

গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার সমন্বয়ক বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, ‘নির্বাচন হলে আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা যোগ দেব। আমরা মনে করি, গণমানুষের কাছে আস্থাশীল নির্বাচন করতে হলে বর্তমান নির্বাচন পদ্ধতির আমূল বদল দরকার। নির্বাচনে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে আমরা সে দাবির আন্দোলন গড়ে তুলব। আমরা এরই মধ্যে পাঁচ দফায় একমত হয়ে বামদলগুলোর ঐক্য গড়ে তুলেছি। সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও আমরা এক প্রার্থী দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। আমাদের একক প্রার্থী করার উদ্যোগ থাকবে আগামী জাতীয় নির্বাচনেও।’

সাইফুল হক মনে করেন, রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের পরাজয় এবং সার্বিকভাবে তাদের ভোট কমে যাওয়ায় শেষ পর্যন্ত সরকার ডিএনসিসি নির্বাচন এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে পারে। কারণ সামনে জাতীয় নির্বাচন, ঠিক এ সময়ে আর কোনো পরাজয়ের ঝুঁকি সরকার নাও নিতে পারে। এ ছাড়া কাউন্সিলর পদে নির্বাচন নিয়ে আইনি জটিলতাও আছে। তাদের মেয়াদ কত দিন হবে তা নিয়ে ঝামেলা আছে।

ডিএনসিসির গত নির্বাচনে মেয়র পদে গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার প্রার্থী ও গণসংহতি আন্দোলনের নেতা জোনায়েদ সাকী বলেন, ‘আমাদের নির্বাচনে অংশ নেওয়াটা হচ্ছে বলা যায় আন্দোলনের অংশ। বাম দলগুলো থেকে এক প্রার্থী করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমাকে প্রার্থী করা হলে নির্বাচন করায় আপত্তি নেই।’ 

সিপিবি-বাসদের আগের প্রার্থী ও সিপিবির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুল্লাহ আল ক্কাফি রতন বলেন, ‘এরই মধ্যে আমার দল সিপিবি আমাকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। তবে আমরা গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জোট গড়েছি। তাদের সঙ্গে আলোচনা করে বাম দলগুলো থেকে একজনকে প্রার্থী করার চিন্তা চলছে।’ সিপিবির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, ‘আমরা বাম দলগুলো থেকে এক প্রার্থীই করতে চাই। আমাদের ঐক্যবদ্ধ শক্তি নিয়েই আমরা ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচনে অংশ নেব।’



মন্তব্য