kalerkantho


বিদেশযাত্রা আজ!

প্রধান বিচারপতির ছুটি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির মেয়াদ বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



প্রধান বিচারপতির ছুটি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির মেয়াদ বাড়ল

ফাইল ছবি

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার ছুটির মেয়াদ বেড়েছে। আগামী ১০ নভেম্বর পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

এ কারণে এ সময় পর্যন্ত বা প্রধান বিচারপতি দেশে ফিরে দায়িত্ব না নেওয়া পর্যন্ত বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন মন্ত্রণালয়।

এদিকে প্রধান বিচারপতি আজ শুক্রবার বিদেশ যাওয়ার ইচ্ছা ব্যক্ত করেছেন বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট এবং ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশনের (আইএফসি) মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা আগামী বছর ৩১ জানুয়ারি অবসরে যাবেন। এর আগেই অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে ছুটি নিয়ে তিনি বিদেশ যাচ্ছেন। রাষ্ট্রপতি তাঁকে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দিয়েছেন। এর আগে ২ অক্টোবর এক মাসের ছুটি নিয়ে তা রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন প্রধান বিচারপতি। ৩ অক্টোবর থেকে এ ছুটি শুরু হয়েছে।

এ হিসাবে ১ নভেম্বর এ ছুটি শেষ হওয়ার কথা। সে অনুযায়ী গত ২ অক্টোবর প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল আইন মন্ত্রণালয়। কিন্তু প্রধান বিচারপতির বিদেশে যাওয়ার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রেজিস্ট্রার মো. জাকির হোসেন গত ১০ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি বরাবর যে চিঠি দিয়েছেন তাতে বলা হয়, প্রধান বিচারপতি ১৩ অক্টোবর বা তার নিকটবর্তী সময়ে বিদেশে যেতে যান এবং আগামী ১০ নভেম্বর পর্যন্ত বিদেশে অবস্থান করতে চান। ওই চিঠির মাধ্যমে প্রধান বিচারপতির ছুটির মেয়াদ বাড়িয়ে নেওয়া হয়। এ অবস্থায় বুধবার রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ প্রধান বিচারপতির চিঠিসংবলিত নথিতে সই করেন। এরপর গতকাল আইন মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে।

আইনসচিব আবু সালে শেখ মো. জহিরুল হকের সই করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘প্রধান বিচারপতির অসুস্থতাজনিত ছুটি ভোগকালীন অর্থাৎ ৩ অক্টোবর থেকে ১ নভেম্বর পর্যন্ত মোট ৩০ দিন বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতির কার্যভার পালনের দায়িত্ব প্রদানসংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের ধারাবাহিকতায় মহামান্য রাষ্ট্রপতি সংবিধানের ৯৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বর্ধিত ছুটিকালীন বিদেশে অবস্থানকালীন অর্থাৎ ২ নভেম্বর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত অথবা স্বীয় কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত আপিল বিভাগে কর্মে প্রবীণ বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞাকে প্রধান বিচারপতির কার্যভার পালনের দায়িত্ব দিয়েছেন। ’

প্রজ্ঞাপন জারির পর প্রধান বিচারপতির বিদেশ যাওয়া এখন সময়ের ব্যাপার। এরই মধ্যে তাঁর অস্ট্রেলিয়া যাওয়া ও থাকার সব ব্যবস্থাই সম্পন্ন হয়েছে। বিদেশে অবস্থানকালীন প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়া ছাড়া আরো তিনটি দেশ সফর করবেন। ওই তিনটি দেশ হলো কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য।

আইনমন্ত্রী বললেন, প্রধান বিচারপতির ছুটি নিয়ে বিতর্ক নেই

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গতকাল সাংবাদিকদের জানান, প্রধান বিচারপতি এক মাসের ছুটিতে আছেন। তিনি অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, আমেরিকা ও লন্ডন সফরে যাচ্ছেন। আগামী ১০ নভেম্বর পর্যন্ত বিদেশে অবস্থানের কথা জানিয়ে রাষ্ট্রপতিকে চিঠি দিয়েছেন। তিনি ব্যক্তিগত কারণে শুক্রবার বিদেশ যাওয়ার ব্যাপারে ইচ্ছা ব্যক্ত করেছেন। প্রধান বিচারপতি ব্যক্তিগত কারণে ছুটিতে গেছেন, ব্যক্তিগত প্রয়োজনে তিনি এখন বিদেশ সফর করবেন। এর মধ্যে কোনো বিতর্ক নেই। প্রধান বিচারপতির ছুটিকে ঘিরে আলোচনা-সমালোচনা প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যারা এটা করছে তাদের ইতিহাস বিবেচনা করেন। তাদের জন্ম হয়েছে সামরিক শাসনের মাধ্যমে। ’ তিনি বলেন, ‘তাদের নেত্রীর বিরুদ্ধে আদালতে সমন জারি করা হলে তাদের আইনজীবীরা আদালতে গিয়ে বিচারককে গালাগাল করেন। তিনি (খালেদা জিয়া) আদালতে যান না। আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখান। আসলে আদালতের প্রতি তাদের কোনো শ্রদ্ধাবোধ নেই। ’ মন্ত্রী বলেন, ‘তাদের হাতে আন্দোলনের আর কোনো ইস্যু নেই। এখন তারা খড়কুটো আঁকড়ে ধরে আন্দোলনের চেষ্টা করছে। কিন্তু আমরা বলব, আদালতের বিষয় নিয়ে যেন তারা কোনো রাজনীতি না করে। এতে কোনো ফল হবে না। ’

ইসকোন মন্দিরে প্রধান বিচারপতি

গতকাল ভোর ৬টার দিকে প্রধান বিচারপতি সস্ত্রীক হিন্দু সম্প্রদায়ের আন্তর্জাতিক সংগঠন ইসকোনের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত রাজধানীর স্বামীবাগে অবস্থিত মন্দিরে যান। সেখানে পূজা দেন তাঁরা। সেখানে এক ঘণ্টারও বেশি সময় ছিলেন তাঁরা। এরপর বাসায় ফেরেন প্রধান বিচারপতি।

বাসায় চিকিৎসক

এদিকে গতকাল দুপুর ২টায় প্রধান বিচারপতির বাসায় যান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সজল কৃষ্ণ ব্যানার্জি। প্রায় এক ঘণ্টা ছিলেন তিনি সেখানে।

এ ছাড়া রাতে প্রধান বিচারপতির ভাই এন কে সিনহা অবস্থান শেষে গতকাল সকাল পৌনে ১১টার দিকে বেরিয়ে যান। আর সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ রিডার মাহবুব হোসেন গতকালও প্রধান বিচারপতির বাসায় গিয়েছিলেন।

আইনজীবী সমিতির একাংশের সংবাদ সম্মেলন

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহসভাপতি মো. অজি উল্লাহর নেতৃত্বে সমিতির সরকার সমর্থক অংশ গতকাল দুপুরে সমিতি ভবন মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলন করে। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মো. অজি উল্লাহ। তিনি প্রধান বিচারপতির ছুটি নিয়ে সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বাধীন অংশের কর্মকাণ্ডের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। ওই সময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির ট্রেজারার রফিকুল ইসলাম হিরু, সহসম্পাদক শফিকুল ইসলাম, সদস্য হাবিবুর রহমান, কুমার দেবুল দে ও নুর ই আলম উজ্জল।

সমিতির অপর অংশের মানববন্ধন

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন ও সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের নেতৃত্বে সমিতির ব্যানারে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা সমিতি ভবনের সামনে মানববন্ধন এবং সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। মিছিলের আগে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, সমিতির সাবেক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন, বর্তমান সহসভাপতি উম্মে কুলসুম রেখা, তৈমূর আলম খন্দকার, আবেদ রাজা, নুর মোহাম্মদ, গোলাম মো. চৌধুরী আলাল, গাজী কামরুল ইসলাম সজল, মির্জা আল মাহমুদ, মোহাম্মদ আলী প্রমুখ। এরপর সভাপতি আগামী রবি ও সোমবার সারা দেশে আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক ও জেলা জজের কাছে স্মারকলিপি প্রদান, মানববন্ধন ও প্রতিবাদসভার কর্মসূচি ঘোষণা করেন। সভা শেষে তাঁরা প্রধান বিচারপতির বাসার উদ্দেশে মিছিল নিয়ে মাজার গেটে পৌঁছলে পুলিশ বাধা দেয়। এরপর তাঁরা ফিরে যান।


মন্তব্য