kalerkantho


ভোটারকে দেওয়া টাকা নিয়ে বিতণ্ডা একজন নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা   

২১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ভোটারকে দেওয়া টাকা নিয়ে বিতণ্ডা একজন নিহত

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থীর দেওয়া টাকা ভাগাভাগি নিয়ে বাগিবতন্ডার একপর্যায়ে লাথিতে মারা যান কাটাবিল এলাকার চাল ব্যবসায়ী খোরশেদ আলম। মৃত্যুর খবর পেয়ে স্বজনদের আহাজারি। ছবি : কালের কণ্ঠ

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এক কাউন্সিলর প্রার্থীর ভোটারকে দেওয়া টাকা ভাগাভাগি করাকে  কেন্দ্র করে হামলায় একজন নিহত হয়েছেন। তাঁর নাম খোরশেদ আলম (৬০)।

তাঁর বাড়ি শহরের কাটাবিল এলাকায়। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। অভিযোগ রয়েছে, হারুন নামের এক ভোটার ও তার ছেলের লাথিতে খোরশেদ মারা যান। গতকাল সন্ধ্যায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি।  

এদিকে নির্বাচনী প্রচারণার ষষ্ঠ দিন গতকালও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মধ্যে প্রচারণায় ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগের আনজুম সুলতানা সীমা এবং বিএনপির মনিরুল হক সাক্কু। দুই দলের কেন্দ্রীয় নেতারা প্রচারণায় অংশ নিয়ে মনোনীত প্রার্থীর জন্য ভোট চেয়েছেন। তবে বিএনপির প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর অভিযোগ,  সরকারদলীয় প্রার্থীর পক্ষে গোয়েন্দা  সংস্থার লোকজন এলাকায় অবস্থান নিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনে খরচের জন্য নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ৫০০ টাকা দেন হারুন নামে এক ভোটারকে। তা থেকে ২০০ টাকা চেয়েছিলেন এলাকার আরেক ভোটার খোরশেদ আলম।

টাকা নিয়ে বিতণ্ডার একপর্যায়ে খোরশেদ আলমের বুকে লাথি মারে হারুন ও তার ছেলে তানিম। এতে খোরশেদ মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে  চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

কোতোয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক সালাউদ্দিন জানান, হারুন ও তার ছেলে তানিমের সঙ্গে খোরশেদের টাকা নিয়ে ঝগড়া হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জোর প্রচারণায় দুই মেয়র প্রার্থী : আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সীমার পক্ষে গতকালও দলের কেন্দ্রীয় নেতারা গণসংযোগ ও উঠান বৈঠক করেছেন। পাড়া-মহল্লায় তাঁরা ভোট চেয়েছেন। গতকাল সকালে নগরীর  ১৯, ২০, ২১, ২২ নম্বর ওয়ার্ডে উঠান বৈঠক ও গণসংযোগ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের মেয়ে নাফিসা কামাল। এ সময় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক আলহাজ মো. ওমর ফারুকসহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সীমার পক্ষে ভোট চেয়ে নাফিসা কামাল বলেন, কুমিল্লার মানুষ সব সময় উন্নয়নের পক্ষে কাজ করে। নৌকায় ভোট দিতে আপনারা কেউ ভুল করবেন না। সীমা আপাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আপনাদের পাশে সেবা করার সুযোগ দিন।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আনজুম সুলতানা সীমা বলেন, ‘আমার পক্ষে ব্যাপক জনসমর্থন রয়েছে।   কুমিল্লার মানুষ পরিবর্তন চায়। ’

এদিকে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন। তিনি সাধারণ ভোটারদের কাছে ভোট চেয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তাঁর সঙ্গেও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা গণসংযোগ করছেন। এ ছাড়া কুমিল্লা শহরের মোগলটুলী এলাকায় গণসংযোগ করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, মাহবুবে রহমান শামিম, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কর্নেল (অব.) আনোয়ারুল আজিম, সহসাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া প্রমুখ।

বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু বলেন, ‘আমি মানুষের জন্য অনেক কাজ করেছি। আমাকে ভোটাররা হতাশ করবে না। আগামী ৩০ তারিখে সবাইকে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি এবং নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি, ভোটাররা যেন তাদের ভোটের অধিকার প্রয়োগ করতে পারে সে ব্যবস্থা নেয়। যদি সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয় বিপুল ভোটে আমি বিজয়ী হব। ’


মন্তব্য