kalerkantho


মেন্ডিসের সেঞ্চুরিতে প্রথম দিন শ্রীলঙ্কার

শ্রীলঙ্কা ৮৮ ওভারে ৩২১/৪ (প্রথম দিনের শেষে)

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



মেন্ডিসের সেঞ্চুরিতে প্রথম দিন শ্রীলঙ্কার

দিনের শেষে তাসকিন আহমেদ দ্বিতীয় নতুন বল হাতে পেতেই আসিলা গুনারত্নের উইকেটটি তুলে নিলেন বটে, তবে ততক্ষণে বিদায়ী ব্যাটসম্যানকে নিয়ে গল টেস্টের প্রথম দিনটি একেবারে নিজেদের করে নিয়েছেন কুশল মেন্ডিস। যাঁর কিনা সেই দিনের শুরুতে মুখোমুখি হওয়া প্রথম বলেই ফিরে যাওয়ার কথা ছিল। না ফিরে রয়ে যেতে পেরেছিলেন শুভাশীষ রায়ের করা ডেলিভারিটা ‘নো’ হওয়ায়। অথচ আগের বলেই ওপেনার উপুল থারাঙ্গাকে বোল্ড করা পেসারের কুশলকে উইকেটের পেছনে লিটন কুমার দাশের দারুণ ক্যাচ বানানোর উল্লাসটা স্থায়ী হয়নি। দিনজুড়ে বরং স্থায়ী হয়েছে কুশলের ইনিংসটি। তাতে ৯২ রানেই ৩ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কার দিনের শুরুর চেহারাটা বিকেলে পুরো বিপরীত। তাদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৩২১ রান।

প্রথম দিনেই দলকে এই জায়গায় নিয়ে যাওয়া কুশলও আছেন নিজের দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরিকে ডাবলে নিয়ে যাওয়ার অপেক্ষায়। আজ ১৬৬ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামবেন তিনি। যাঁর সেঞ্চুরি করলেই সেটিকে বড় সেঞ্চুরিতে রূপ দেওয়ার অভ্যাসটা হয়ে গেল বলে! গত জুলাইয়ে পাল্লেকেলেতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টেই হাঁকিয়েছিলেন ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ১৭৬ রানের ইনিংস। গলে দ্বিতীয় টেস্টেও ৮৬ রানের ইনিংস খেলা কুশলের ব্যাট পরের ছয় টেস্টে নিষ্প্রভ থাকার পর এবার এমন উজ্জ্বল যে প্রথম দিনের শেষেই বাংলাদেশ শিবিরের মুখটা অন্ধকার হওয়ার অবস্থা।

কুশল আর গুনারত্নের ব্যাটিংয়ে যতই পথ দেখেছে শ্রীলঙ্কার ইনিংস, ততই খেই হারিয়েছে সফরকারী দলের বোলিং। অথচ শুরুর দিকে তা নিয়ন্ত্রিতই ছিল। অনেক দিন পর বোলিংয়ে নেমে শুরুতে কিছুটা জড়তা ছিল মুস্তাফিজুর রহমানের, একটু এলোমেলো ছিলেন তাসকিন আহমেদও। পরে তাঁরা ছন্দ কিছুটা ফিরে পাওয়ার আগেই নিজের প্রথম ওভারে সাফল্য এনে দেন শুভাশীষ রায়। বোল্ড করেন থারাঙ্গাকে (৪)। ওভারস্টেপিংয়ের জন্য পরের বলটি নো হওয়ায় কুশলের উইকেটটি পেয়েও না পাওয়ার হতাশাই দিনের শেষে বড় হয়ে উঠল। বেঁচে যাওয়া কুশল প্রথমে অন্য ওপেনার দিমুথ করুনারত্নেকে (৩০) নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামলে নেওয়ার পর পান দীনেশ চান্দিমালকে। বাংলাদেশের বিপক্ষে যাঁর আগের পাঁচ ইনিংসের তিনটিতেই সেঞ্চুরি। তবে এবার তাঁকে ৫ রানেই থামিয়েছেন মুস্তাফিজ। স্টাম্পের বাইরে করা অফ কাটারে চালাতে গিয়ে গালিতে মেহেদী হাসান মিরাজের হাতে ধরা পড়েন চান্দিমাল। ৯২ রানে ৩ উইকেট হারানো দলে পরিণত স্বাগতিকরাও। কে জানত যে তখন থেকেই কুশল আর গুনারত্নে সফরকারীদের আরেকটি উইকেটের জন্য প্রাণপাত করিয়ে মারবেন! দুজনে মিলে গড়েছেন ১৯৬ রানের পার্টনারশিপ। সেটি তাসকিন ভাঙলেও কৃতিত্বের দাবিদার তিনি খুব একটা নন। খাটো লেন্থের বল পুল করতে গিয়েই না স্টাম্পে টেনে নিয়েছেন গুনারত্নে, তাতে দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরির পথে থেকেও আউট হয়েছেন ৮৫ রানে। তাঁকে ফেরানো গেলেও কিছুতেই যায়নি ১৬৫ বলে সেঞ্চুরিতে পৌঁছানো কুশলকে। এর পরই অন্য চেহারায় তিনি, সেখান থেকে দেড় শতে পৌঁছতে খেলেছেন মাত্র ৫০ বলই! আজ নিশ্চয়ই ডাবল করে দলকে আরো ভালো জায়গায় পৌঁছে দিতে চাইবেন কুশল মেন্ডিস।


মন্তব্য