kalerkantho


নিম্ন আদালতের আদেশের জাবেদা নকল সহজ হচ্ছে

জালিয়াতি ঠেকাতে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা

এম বদি-উজ-জামান   

৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নিম্ন আদালতের আদেশের জাবেদা নকল সহজ হচ্ছে

বিচার বিভাগ ডিজিটাইজেশনের অংশ হিসেবে নিম্ন আদালতের রায় বা আদেশ বা নথির সংশ্লিষ্ট অংশের জাবেদা নকল সরবরাহের বিদ্যমান পদ্ধতি সহজ ও দ্রুততর করার লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট। এতে বলা হয়েছে, বিচারকের এজলাসে বা খাসকামরায় কম্পিউটারে টাইপ করা আদেশ বা রায় বা জাবেদা নকল প্রদানযোগ্য অংশের জাবেদা নকল সরবরাহের ক্ষেত্রে পুনরায় টাইপ না করে নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ায় কম্পিউটারে সংরক্ষণ করা পিডিএফ ফাইল থেকে প্রিন্ট করে সরবরাহ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে অধস্তন প্রত্যেক আদালতকে যত দূর সম্ভব সব আদেশ বা রায় কম্পিউটারে টাইপ করতে বলা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার আদেশক্রমে গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার আবু সৈয়দ দিলজার হোসেনের সই করা এক সার্কুলারে ওই সব নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের এ উদ্যোগে নিম্ন আদালতের রায় বা আদেশ জালিয়াতি অনেকাংশে কমবে বলে মনে করেন আইনজীবীসহ আদালতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাঁদের মতে, দ্রুত বিচার নিষ্পত্তির মাধ্যমে মামলাজট কমাতেও এ উদ্যোগ সহায়ক হবে।

অপরাধ আইন বিশেষজ্ঞ অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম এ বিষয়ে কালের কণ্ঠকে বলেন, রায় বা আদেশ কম্পিউটারে টাইপ করতে এবং পুনরায় টাইপ না করে সংরক্ষিত ফাইল থেকে প্রিন্ট দিয়ে সার্টিফায়েড কপি সরবরাহ করতে সুপ্রিম কোর্টের এ উদ্যোগে বিচারপ্রার্থী এবং আদালতের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সময় বাঁচবে। একই সঙ্গে খরচও বাঁচবে। আর সার্টিফায়েড কপি দ্রুত পাওয়া গেলে বিচারও ত্বরান্বিত হবে। এতে মামলার জট কমবে। তিনি বলেন, কোনো মামলায় উচ্চ আদালতে আবেদন করার সময় অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, আদেশ বা রায়ের ফটোকপিতে স্ট্যাম্প লাগিয়ে সার্টিফায়েড কপি হিসেবে বিচারপ্রার্থীরা নিয়ে আসে।

এতে কোনো কোনো ক্ষেত্রে হাতের লেখা সঠিকভাবে বোঝা যায় না। কপি নকল হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এ অবস্থায় আদেশ বা রায়ের কপি কম্পিউটারে টাইপ করা বাধ্যতামূলক হলে বিচারপ্রার্থীদের সুবিধা হবে। উচ্চ আদালতেও এর সুবিধা পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, এভাবেই বিচার বিভাগে ডিজিটাইজেশনের সুফল পাবে জনগণ।

ঢাকা জজ আদালতে রেকর্ড কিপার হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী (সদ্য পিআরএলে যাওয়া) মিল্টন সরকার কালের কণ্ঠকে বলেন, এটা অত্যন্ত প্রশংসনীয় উদ্যোগ। সুপ্রিম কোর্ট কম্পিউটারে টাইপ করা আদেশ বা রায় থেকে প্রিন্ট করে কপি সরবরাহের যে নির্দেশ দিয়েছেন তাতে জালিয়াতি কমবে। কারণ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে কম্পোজ করা কপির একটি ফাইল পিডিএফ করে সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে। এটা করা হলে সহজে কেউ জালিয়াতি করতে পারবে না। তিনি বলেন, ‘বহু বছর ধরেই আদালত অঙ্গনে জালিয়াতচক্র সক্রিয়। তারা নিম্ন আদালতের আদেশ বা রায় জাল করে সরবরাহ করে। কোনো কোনো সময় এসব ভুয়া কপি উচ্চ আদালতে দাখিল করে জামিন নিয়ে থাকে আসামি। কেউ আবার রায় জালিয়াতি করে কারাগার থেকেও বেরিয়ে যায়। এ অবস্থায় সুপ্রিম কোর্টের এ উদ্যোগ জালিয়াতি কমাতে সক্ষম হবে বলে মনে করি। ’ তিনি আরো বলেন, কম্পিউটারে টাইপ করার কারণে বিচারপ্রার্থীরাও দ্রুত আদেশের কপি পাবে। এতে বিচারকাজ ত্বরান্বিত হবে।  

সুপ্রিম কোর্টের জারি করা সার্কুলারে বলা হয়েছে, ‘নিম্ন আদালতে বিচারপ্রার্থীদের সহজে ন্যায়বিচার প্রাপ্তি ও মামলার জট হ্রাস করার লক্ষ্যে মামলার আদেশ বা রায় বা নথির অন্যান্য অংশের (জাবেদা নকল প্রদানযোগ্য) জাবেদা নকল সরবরাহের বিদ্যমান পদ্ধতি সহজ ও দ্রুততর করা আবশ্যক। ’ এতে আরো বলা হয়েছে, এ ক্ষেত্রে প্রত্যেক আদালতের যত দূর সম্ভব সব আদেশ বা রায় কম্পিউটারে টাইপ করতে হবে। আর কম্পিউটারে টাইপ করা অংশ (জাবেদা নকল প্রদানযোগ্য) মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ফাইলের পাশাপাশি নির্দিষ্ট একটি ড্রাইভে জাবেদা নকল প্রদানের নির্ধারিত ফরম্যাটে পিডিএফ ফাইল আকারে সংরক্ষণ করতে হবে। আর প্রতিটি ফাইলের নাম অবশ্যই মামলার নম্বর দ্বারা চিহ্নিত হবে।

সার্কুলারে বলা হয়, ‘কম্পিউটারে টাইপকৃত কোনো আদেশ বা রায় বা নথির অন্যান্য অংশের (জাবেদা নকল প্রদানযোগ্য) জন্য অনুলিপি শাখায় আবেদন দাখিল হওয়ার পর অনুলিপি শাখা সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে প্রয়োজনীয় ফোলিও প্রাপ্তির পর যে আদালতের কম্পিউটারে সংশ্লিষ্ট আদেশ বা রায় বা নথির অন্যান্য অংশ টাইপ করা হয়েছিল সে আদালতের বেঞ্চ সহকারী বা স্টেনোগ্রাফার বা স্টেনো-টাইপিস্ট বা কম্পিউটার অপারেটর বরাবর প্রয়োজনীয় ফোলিও প্রেরণ করবেন এবং বর্ণিত কর্মচারী চাহিতমতে উক্ত ফোলিওতে পিডিএফ ফাইল হতে সংশ্লিষ্ট আদেশ বা রায় বা নথির অন্যান্য অংশ প্রিন্ট করে অনুলিপি প্রস্তুতকারী হিসেবে স্বাক্ষর প্রদান করে তাৎক্ষণিকভাবে অনুলিপি শাখায় প্রেরণ করবেন। অতঃপর অনুলিপি শাখা মূল নথির আদেশ বা রায় বা নথির অন্যান্য অংশের সাথে উক্ত প্রিন্ট কপি তুলনা করে এবং অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে জাবেদা নকল সরবরাহ করবে। ’


মন্তব্য