kalerkantho


ধর্মঘট স্থগিত

গরু ও খাসির মাংস মিলবে আজ থেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



গরু ও খাসির মাংস মিলবে আজ থেকে

সপ্তাহখানেক পর আজ সোমবার চালু হচ্ছে গরু, মহিষ ও খাসির মাংসের জোগান। মাংস ব্যবসায়ী সমিতির ডাকা ধর্মঘট স্থগিত হওয়ার মধ্য দিয়ে গতকাল রবিবার সকাল থেকেই অনেক স্থানে মাংসের দোকান খুলেছে। তবে এদিন রাজধানীর বাজারগুলোতে স্বাভাবিক সময়ের মতো ব্যবসায়ীদের পসরা সাজিয়ে বসতে দেখা যায়নি। আজ সকাল থেকেই ঢাকাসহ সারা দেশের বাজারগুলোতে স্বাভাবিকভাবে মাংস বিক্রি হবে।

পশুর হাটের অতিরিক্ত ইজারা কমানো, চাঁদাবাজি বন্ধ, অবৈধ পথে পশু আমদানি বন্ধ করে বৈধভাবে আনার সুযোগ দেওয়া ও চামড়ার দাম নির্ধারণের দাবিতে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ধর্মঘট পালন করে আসছিল বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি ও ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতি। ছয় দিন পর গতকাল সকালে সমিতির প্রতিনিধিরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে গিয়ে নিজেদের দাবিনামা জমা দেন।

জানা গেছে, সমিতির নেতারা গতকাল দাবিগুলো নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে গেলেও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ মন্ত্রণালয়ে ছিলেন না। এ সময় মন্ত্রীর পক্ষে মাংস ব্যবসায়ীদের লিখিত দাবি গ্রহণ করেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুন্সি শফিউল হক। তিনি জানিয়ে দেন, সমিতির নেতাদের দাবিনামা তিনি মন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দেবেন। এতে আশ্বস্ত হয়ে সমিতির নেতারা গতকাল বিকেল ৫টা থেকে ধর্মঘট স্থগিতের সিদ্ধান্ত জানান।

এ সময় বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম বলেন, ‘আমরা চারটি দাবি জমা দিয়েছি।

দাবিনামার ব্যাপারে সরকারের আশ্বাসে ধর্মঘট স্থগিত করছি। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও সিটি করপোরেশন দাবিগুলোর ব্যাপারে দ্রুত ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিলে বিকেল ৫টায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করব। ’

সন্ধ্যা ৭টার দিকে রবিউল আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ধর্মঘট প্রত্যাহার করার ইচ্ছা আমাদের ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। আমরা ধর্মঘট স্থগিত করেছি। কারণ বাণিজ্যমন্ত্রী ঢাকায় নেই, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়রের সঙ্গেও আমাদের বৈঠক হয়নি। ফলে আমাদের সমস্যা সমাধানের কোনো উদ্যোগ এখনো দেখছি না। তবে জনগণের কষ্ট বিবেচনা করে আমরা ধর্মঘট স্থগিত করেছি। ’ তিনি বলেন, ‘রবিবার ধর্মঘট ছিল না; কিন্তু বাজারে মাংস বিক্রেতারা খুব একটা যায়নি। কোনো কোনো বাজারে হয়তো মাংস পাওয়া গেছে। তবে সোমবার সকাল থেকে আগের মতোই সব বাজারে মাংস বিক্রি হবে। ’

সোমবার থেকে বাজারে মাংসের দাম কমবে কি না—এমন প্রশ্নে রবিউল আলম বলেন, ‘চাঁদাবাজি কমেনি। ইজারাও কমেনি। ফলে মাংসের দাম কমার সম্ভাবনা কম। সরকার উদ্যোগী হয়ে চাঁদাবাজি কমালে মাংসের দাম কমবে। এখন মাংস ব্যবসায়ীরা যে যে দামে পারছেন গরু কিনছেন, বিক্রিও সেভাবেই করছেন। কেউ কমে কিনতে পারলে কম দামে বিক্রি করবেন, বেশি দরে কিনলে বেশি দামে বেচবেন। ’


মন্তব্য