kalerkantho


পদ্মা সেতুতে দুর্নীতির ইস্যুতে শেখ হাসিনা

সততার বলেই চ্যালেঞ্জ নিতে পেরেছিলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক গাজীপুর ও কালিয়াকৈর প্রতিনিধি   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সততার বলেই চ্যালেঞ্জ নিতে পেরেছিলাম

পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ মিথ্যা, গালগল্প—কানাডার আদালতের এ রায়ের প্রতিক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সততার শক্তি ছিল বলেই বিশ্বব্যাংকের ওই অভিযোগকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পেরেছিলেন তিনি। গাজীপুরের সফিপুরে গতকাল রবিবার বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৭তম জাতীয় সমাবেশ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত দরবারে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

কানাডার আদালতের রায় প্রকাশের দুই দিনের মাথায় প্রধানমন্ত্রী এ প্রতিক্রিয়া দিলেন। তিনি বলেন, ‘এতকাল পরে আজকে তারা স্বীকার করেছে, কোর্ট বলে দিয়েছে; এখানে তো কোনো দুর্নীতি হয়ই নাই, বরং ওয়ার্ল্ড ব্যাংক যে অভিযোগ করেছে, তা ভুয়া, মিথ্যা ও আষাঢ়ে গল্প। ’ এ ঘটনার মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের মানুষের ‘মানমর্যাদা’ অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বাংলাদেশের মানুষের মানসম্মান ক্ষুণ্ন করতে পারে—এমন কোনো কাজ শেখ মুজিবের পরিবার করবে না বলেও মন্তব্য করেন তাঁর মেয়ে শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আমি এতটুকু বলতে পারি, আমাদের কারণে বাংলাদেশের মানুষ এতটুকু লজ্জায় পড়তে পারে বা বাংলাদেশের মানুষের কোনো রকম মানসম্মান ক্ষুণ্ন হবে—অন্তত সেই কাজ আমাদের পরিবার, শেখ মুজিবের পরিবার এটা কোনো দিনও করবে না। কারণ আমরা দেশকে ভালোবাসি, দেশের মানুষকে ভালোবাসি আর মানুষের জন্য রাজনীতি করি, দেশের মানুষকে ভালো রাখার নিয়ত নিয়ে রাজনীতি করি। ’

এভাবে যাতে চলতে পারেন সে জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের দোয়া চাই, মানসম্মান নিয়ে যেন চলতে পারি। একটা কথা সব সময় বিশ্বাস করি—সততার সেই শক্তি ছিল বলেই চ্যালেঞ্জ নিতে পেরেছিলাম। ’ নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু করে বাংলাদেশের মানুষ ‘অসাধ্য সাধনের’ সক্ষমতা বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলে চুক্তি করেও বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো প্রকল্প পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন স্থগিত এবং পরে তা বাতিল করেছিল বিশ্বব্যাংক। পরে তাদের বাদ দিয়েই নিজস্ব অর্থায়নে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে বিশ্বব্যাংকের ওই অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছেন কানাডার একটি আদালত। এ ঘটনায় কানাডীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের দুই কর্মকর্তাসহ তিন আসামিকে খালাস দেন ওই আদালত।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৭তম জাতীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী। বিশেষ করে শিল্প-কারখানা, সমুদ্রবন্দর ও বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় অর্ধলক্ষাধিক আনসার সদস্যের সর্বদা সতর্ক উপস্থিতি দেশের অর্থনীতির চাকাকে নিরাপদ ও গতিশীল রেখেছে।

প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক রুখতে আনসার-ভিডিপিকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান। এ ছাড়া নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা তত্পরতায় আনসার সদস্যদের সতর্ক থাকারও আহ্বান জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সম্প্রতি অনুষ্ঠিত সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং ইংরেজি নববর্ষবরণের সময়ে বিশৃঙ্খলা ও নাশকতা ঠেকাতে আনসার সদস্যদের বলিষ্ঠ ও সক্রিয় ভূমিকা দেশবাসী দেখেছে। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন ধর্মীয় ও জাতীয় উৎসব পালনকালে জননিরাপত্তাবিধান ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আপনাদের অবস্থান সুস্পষ্ট। এ ক্ষেত্রে আমি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি অকুতোভয় সেসব আনসার সদস্যকে, যাঁরা দায়িত্ব পালনকালে জীবন উৎসর্গ করেছেন। ’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে প্রতিটি ক্ষেত্রে আনসার বাহিনীর সদস্যরা সব সময়ই কর্মদক্ষতা ও সফলতার পরিচয় দিয়ে আসছেন। বিশেষ করে জাতীয় সংকটকালে এবং জরুরি মুহূর্তে আনসার সদস্যদের কর্মতত্পরতা এ বাহিনীকে সরকারের এক নির্ভরযোগ্য অংশে পরিণত করেছে। বিভিন্ন নির্বাচনে দায়িত্ব পালন ছাড়াও অপারেশন রেলরক্ষা, মহাসড়কে নাশকতা রোধ এবং মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদ রুখতে আনসার বাহিনীর সদস্যদের ভূমিকা অনস্বীকার্য।

সাহসিকতা ও সেবার জন্য অনুষ্ঠানে ১১১ জন আনসার সদ্যকে বিভিন্ন পদক দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ঠাকুরগাঁও, রাজশাহী, খুলনা ও রাঙামাটিতে আনসার ব্যাটালিয়ন সদর দপ্তর কমপ্লেক্স ভবনের নামফলক উন্মোচন করেন। পরে তিনি আনসার সদস্যদের নিয়ে কেক কাটেন এবং তাঁদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

এর আগে সকাল ৯টা ৩৩ মিনিটে একাডেমির ইয়াদ আলী প্যারেড গ্রাউন্ডে পৌঁছলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, স্বরাষ্ট্রসচিব ড. কামাল উদ্দিন আহম্মেদ ও আনসার গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মিজানুর রহমান খান তাঁকে অভ্যর্থনা জানান। পরে প্রধানমন্ত্রী আনসার সদস্যদের কুচকাওয়াজ ও সালাম গ্রহণ করেন।


মন্তব্য