kalerkantho


প্রত্যাখ্যান করতে পারে বিএনপি

আজ আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



প্রত্যাখ্যান করতে পারে বিএনপি

নতুন নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) প্রত্যাখ্যান করতে পারে বিএনপি। গতকাল সোমবার রাতে গুলশানে চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ বিষয়ে নেতিবাচক আলোচনা হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। বৈঠকে বিশেষ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদাকে নিয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে। তিনি ১৯৯৬ সালের জনতার মঞ্চের অন্যতম কর্তা ছিলেন বলে আলোচনা হয়। উপস্থিত একাধিক নেতা তাঁর যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। যাঁরা কমিশনার হয়েছেন তাঁরা অপেক্ষাকৃত জুনিয়র ও কম গুরুত্বপূর্ণ কাজের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন বলেও মত দেন বিএনপির নেতারা।

তবে নতুন নির্বাচন কমিশনারদের জীবনবৃত্তান্ত, পারিবারিক অবস্থা ও রাজনৈতিক সংশ্লিষ্ট পর্যালোচনার পর আজ মঙ্গলবার রাতে ২০ দলীয় জোটের বৈঠক শেষে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গত রাতে দলটির মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান কালের কণ্ঠকে এ তথ্য জানান।

শায়রুল কবির খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মহাসচিব জানিয়েছেন, আগামীকাল (আজ) রাত সাড়ে ৮টায় ২০ দলীয় জোটের জরুরি বৈঠক ডাকা হয়েছে গুলশানে। এরপর নতুন নির্বাচন কমিশনের বিষয়ে গুলশান কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবেন মহাসচিব। ’

নতুন ইসি গঠন নিয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘জনতার মঞ্চের এক কর্তা প্রধান নির্বাচন কমিশনার হয়েছেন বলে শুনেছি, তাহলে আর কী লাগে! আর কমিশনার যাঁরা হয়েছেন তাঁদের ব্যাপারে তো কিছু জানি না।

৪০ বছরের আইন পেশায় থাকাকালীন এঁদের কারো নাম শুনিনি। তাই এঁদের ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে মতামত দিতে হবে। ’

‘বিএনপির তালিকা থেকে সাবেক অতিরিক্ত সচিব মাহবুব তালুকদার রয়েছেন’—এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, ‘সব ব্যাপারেই খোঁজখবর আমরা নিচ্ছি। ’

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক নেতা বলেন, ‘নতুন ইসি আমরা প্রত্যাখ্যান করব। জনতার মঞ্চের কর্তা যে সংস্থার প্রধান সেখান থেকে ভালো কিছু আশা করা যায় না। তা ছাড়া একজনের বাবা আওয়ামী লীগের নেতা বলে শুনেছি। ’

তবে ডানপন্থী হিসেবে পরিচিত কমিটির আরেক সদস্য বলেন, ‘বেগম জিয়া বৈঠকে সব কিছু শুনলেও প্রত্যাখ্যান বা স্বাগত জানানোর কোনো ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেননি। তিনি আগামীকাল (আজ) এ নিয়ে আরো ভাবতে চান বলে বৈঠকে জানিয়েছেন। ’

গত রাত সাড়ে ৯টায় খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে বৈঠক শুরু হয়ে চলে প্রায় দুই ঘণ্টা। এতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ড. আব্দুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

তবে বৈঠকের বিষয়বস্তু সম্পর্কে বা নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের পর এ সম্পর্কে কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানায়নি দলটি। বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মঙ্গলবার (আজ) রাতে ২০ দলীয় জোটের জরুরি বৈঠকের পর নতুন নির্বাচন কমিশনের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবে তারা।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ কালের কণ্ঠকে জানান, দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করতে বিএনপি চেয়ারপারসন এসব বৈঠক আহ্বান করেছেন। সব বৈঠক হবে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে রাত ৯টায়।

তিনি জানান, সোমবার (গতকাল) রাত ৯টায় স্থায়ী কমিটির বৈঠক, মঙ্গলবার রাত ৯টায় ভাইস চেয়ারম্যানদের বৈঠক, ১১ ফেব্রুয়ারি রাত ৯টায় উপদেষ্টা কাউন্সিলের বৈঠক এবং ১২ ফেব্রুয়ারি রাত ৯টায় ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠক হবে।


মন্তব্য