kalerkantho


লাইফ সাপোর্ট ছাড়াই শ্বাস নিতে পারছেন খাদিজা

নিজস্ব প্রতিবেদক ও সিলেট অফিস   

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



লাইফ সাপোর্ট ছাড়াই শ্বাস নিতে পারছেন খাদিজা

খাদিজা আক্তারের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। গত বুধবার লাইফ সাপোর্ট ছাড়া কিছুক্ষণের জন্য শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পেরেছেন তিনি। ডান হাত ও ডান পাও নড়াচড়া করতে পারছেন। তবে এখন পর্যন্ত বাঁ পাশের কোনো নড়াচড়া দেখা যায়নি। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর লাইফ সাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়। এরপর অনেকক্ষণ তিনি স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পেরেছেন। দু-এক দিনের মধ্যে পুরোপুরি লাইফ সাপোর্ট খুলে  দেওয়া সম্ভব হবে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

স্কয়ার হাসপাতালের নিউরো সার্জন ডা. এ এম রেজাউস সাত্তার গণমাধ্যমকে জানান, বুধবার কিছুক্ষণের জন্য খাদিজাকে ভেন্টিলেশন মেশিন থেকে আলাদা করা হয়। ভেন্টিলেশন মানে হচ্ছে শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য সাপোর্ট দেওয়া, যেটাকে লাইফ সাপোর্ট বলা হয়। আগে ধারাবাহিক লাইফ সাপোর্ট ছিল। এখন ট্রায়াল বেসিসে করা হচ্ছে। এটা একটা বড় ইমপ্রুভমেন্ট।

গতকাল সন্ধ্যায় স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন খাদিজাকে দেখতে যান স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ক্রিটিক্যাল পরিস্থিতি থেকে এখন উন্নতি হয়েছে খাদিজার। এ জন্য চিকিৎসকদের ধন্যবাদ জানাই। দেশেই খাদিজার চিকিৎসা সম্ভব। যদি প্রয়োজন হয় এবং চিকিৎসকরা পরামর্শ দেন তখন বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানোর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। নার্গিসের চিকিৎসার সব খরচ সরকার বহন করবে। ’

গত ৩ অক্টোবর ছাত্রলীগ নেতা বদরুলের হামলায় আহত হন খাদিজা আক্তার নার্গিস। পরে তাঁকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ৪ অক্টোবর ভোরে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে আনা হয়। ওই দিনই নার্গিসের অস্ত্রোপচার করা হয়।

সিলেট বিএনপির মানববন্ধন : খাদিজা আক্তার নার্গিসের ওপর হামলাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তি ও দ্রুত বিচারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে সিলেট জেলা বিএনপি। গতকাল দুপুরে নগরের কোর্ট পয়েন্টে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। এ সময় খাদিজার পরিবার চাইলে বিনা খরচে দলের আইনজীবীদের পক্ষ থেকে সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। মানববন্ধনে জেলা বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন, উপজেলা শাখার নেতারা অংশ নেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘খাদিজার পরিবার অনুমতি দিলে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম এই মামলা বিনা খরচে পরিচালনা করতে চায়। ’ খাদিজার ওপর হামলাকারী বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি করে বক্তারা আরো বলেন, ‘বদরুলের মতো কুলাঙ্গার আমাদের এলাকার বলে আমরা লজ্জিত। এ রকম বদরুল আমাদের এলাকা কেন দেশের কোথাও যেন আর জন্ম নিতে না পারে সে জন্য তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত। ’


মন্তব্য