kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


খাদিজার বাঁচার আশা বাড়ছে, বিদেশে পাঠানোর দাবি

সিলেট অফিস   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



খাদিজার বাঁচার আশা বাড়ছে, বিদেশে পাঠানোর দাবি

সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের আহত ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে শাহজালার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) কর্তৃপক্ষ। গত শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি প্রতিনিধিদল খাদিজার বাড়ি সদর উপজেলার আউশা গ্রামে যায়।

সেখানে তারা যেকোনো প্রয়োজনে খাদিজার পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দেয়। ঢাকায় চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, গতকাল রবিবারও খাদিজার জ্ঞান ফেরেনি। তবে হাত-পায়ের নড়াচড়া বাড়ছে। এ অবস্থায় পরিবারের পক্ষ থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকে বিদেশে  পাঠানোর দাবি জানানো হয়েছে।

গত সোমবার খাদিজা আক্তারকে রাস্তায় কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে শাবিপ্রবির ছাত্র ও ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম। অচেতন অবস্থায় খাদিজাকে উদ্ধার করে প্রথমে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং পরে ঢাকায় স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শনিবার রাতে শাবিপ্রবির ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক রাশেদ তালুকদারের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলটি খাদিজার বাড়িতে যায়। অধ্যাপক আখতারুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম, প্রথম ছাত্রী হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক আমিনা পারভীন, বিশ্ববিদ্যালযের গঠন করা তদন্ত কমিটির সদস্য ড. মুনশী নাছের ইবনে আফজাল, সহকারী প্রক্টর মো. সামিউল ইসলাম, আবু হেনা পহিল, সহকারী প্রশাসনিক (নিরাপত্তা) কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন প্রতিনিধিদলে ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সামিউল ইসলাম বলেন, ‘বদরুলের নৃশংসতার ঘটনায় খাদিজার পরিবারকে সহমর্মিতা ও সান্ত্বনা জানাতে আমরা গিয়েছিলাম। আমরা খাদিজার মাকে বলেছি, যেকোনো প্রয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাঁর পরিবারের পাশে থাকবে। ’

হামলাকারী বদরুলকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে জানিয়ে সামিউল ইসলাম বলেন, তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার এবং খাদিজার পরিবারকে কী ধরনের সহযোগিতা করা যায় তা নির্ধারণ করতে ‘ফ্যাক্ট ফাইন্ডার’ নামের একটি কমিটি কাজ করছে। কমিটির প্রতিবেদন হাতে এলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

পঞ্চম দিনের মতো আন্দোলনমুখর সিলেট : খাদিজা আক্তার নার্গিসের ওপর হামলার পর পাঁচ দিন অতিবাহিত হলেও থেমে নেই রাজপথের আন্দোলন। হামলাকারী বদরুলের শাস্তির দাবিতে প্রতিদিনের মতো গতকালও সিলেটের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

গতকাল দুপুরে টিলাগড়ে এমসি কলেজের প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধন করে সিলেট ইয়ুথ মুভমেন্ট। মানববন্ধনে অংশ নেন বিরোধীদলীয় হুইপ ও সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা। মানববন্ধনে বক্তারা খাদিজা আক্তার নার্গিসের ওপর নৃশংস হামলাকারী বদরুলের ফাঁসির দাবি জানান।

প্রায় একই সময়ে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন করে মহানগর ফ্রেন্ডস ক্লাব সিলেট। সংগঠনের সভাপতি রিপন মিয়ার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বৃহত্তর গণদাবি ফোরামের সভাপতি আখলাক আহমদ চৌধুরী, ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক এম জাকারিয়া আহমদ প্রমুখ।

এর আগে একই স্থানে সকাল ১১টায় একই দাবিতে মানববন্ধন করে সিলেট উন্নয়ন সংস্থা। সংস্থার সভাপতি মো. আলী আহমদের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে অংশ নেন সিলেট সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক প্রমুখ।

খাদিজার ওপর হামলাকারীর বিচার দ্রুত বিচার আইনে করার দাবি জানিয়েছে বৃহত্তর সিলেট গণদাবি পরিষদ। পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল খালিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা নার্গিসের ওপর হামলার ঘটনায় নিন্দা ও ক্ষোভ এবং দ্রুত বিচারের দাবি জানান।


মন্তব্য