kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পরাজিত হলে ফল মানবেন না ট্রাম্প

জরিপে এগিয়ে হিলারি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



জরিপে এগিয়ে হিলারি

ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হলে ফল প্রত্যাখ্যান করতে পারেন বলে আভাস দিয়েছেন রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। যদিও মাত্র চার দিন আগেই ঠিক বিপরীত অবস্থানে ছিলেন তিনি।

একই সঙ্গে এও জানান দিয়েছেন, দ্বিতীয় টেলিভিশন বিতর্কে হিলারির স্বামী বিল ক্লিনটনের বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কগুলো নিয়ে কথা বলার ইচ্ছা আছে তাঁর। তিনি বলেন, ‘হিলারি নোংরা। তবে নোংরামিতে আমার সঙ্গে পেরে উঠবেন না। ’

ট্রাম্পের এসব বাগাড়ম্বরের মধ্যেই করা এক জরিপে দেখা গেছে, হিলারি তাঁর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে ৫ পয়েন্টের ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। শুক্রবার প্রকাশিত রয়টার্স/ইপসোসের মতামত জরিপে এই পরিসংখ্যান উঠে এসেছে।

সেপ্টেম্বরের ২৩ থেকে ২৯ তারিখ পর্যন্ত দেশজুড়ে চালানো এই জরিপে দেখা যায়, ৪৩ শতাংশ ভোটার হিলারিকে সমর্থন করছে আর ৩৮ শতাংশ ট্রাম্পের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। ১৯ শতাংশ ভোটার দুজনের কাউকেই ভোট দেবে না।

চলতি বছরে পরিচালিত বেশির ভাগ জরিপেই এগিয়ে ছিলেন হিলারি। তবে গত চার সপ্তাহের জরিপে এগিয়ে ছিলেন ট্রাম্প। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী চার প্রার্থীকে নিয়ে হওয়া আরেক জরিপেও হিলারি এগিয়ে রয়েছেন। ওই জরিপে হিলারির সমর্থন ৪২ শতাংশ আর ট্রাম্পের ৩৮ শতাংশ।

গত সোমবার প্রথমবারের মতো টিভি বিতর্কে অংশ নেন হিলারি ও ট্রাম্প। এর পর থেকে জরিপে হিলারির জনপ্রিয়তা বাড়ছে।

এদিকে নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেছেন, নির্বাচনের ফল হিলারির দিকে গেলে তিনি তা মেনে নেবেন না। এমনকি নির্বাচনে কারচুপি হতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। তিনি কারচুপিকে দেশের নির্বাচনের একটি বড় সমস্যা হিসেবেও চিহ্নিত করেন। যদিও মাত্র চার দিন আগেই ট্রাম্প বলেছিলেন, নির্বাচনের ফল যাই হোক না কেন তিনি মেনে নেবেন। গত শুক্রবার এই সাক্ষাৎকারটি প্রকাশ করা হয়।

একই সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প আরো বলেন, ‘হিলারি এমন এক ব্যক্তিকে বিয়ে করেছেন, যিনি রাজনীতির ইতিহাসে একক ব্যক্তি হিসেবে সবচেয়ে বড় নারী নিপীড়নকারী। আর এ কাজে হিলারির সমর্থন ছিল। আমি মনে করি এটি তাঁদের বড় সমস্যা। এ নিয়ে অদূর ভবিষ্যতে আরো অনেক কিছু আমার বলার ইচ্ছা আছে। ’

চলতি সপ্তাহে বিতর্কে পিছিয়ে পড়ার পর ট্রাম্প ও তাঁর শিবির বারবারই বিল ক্লিনটনের অতীত বিষয়গুলো সামনে নিয়ে আসছে। যদিও ট্রাম্পের নিজের বিবাহিত জীবনের ইতিহাস খুব একটা সুবিধার নয়। তিনি বিয়ে করেছেন তিনবার। তাঁর প্রথম বিয়েটি ভেঙে যায় বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের কারণেই। তবে এ বিষয়ে ট্রাম্পের ভাষ্য হলো, বিয়ে ভেঙে যাওয়ার সময় তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন না। তাঁর বিয়ে ভাঙার জন্য দেশকে কোনো মূল্য দিতে হয়নি। সূত্র : রয়টার্স, এএফপি, এনবিসি।


মন্তব্য