kalerkantho

মঙ্গলবার। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ৯ ফাল্গুন ১৪২৩। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন

দৈনিক ভ্রমণ ভাতা সর্বোচ্চ ১৮২০ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



দৈনিক ভ্রমণ ভাতা সর্বোচ্চ ১৮২০ টাকা

বেসামরিক সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নতুন করে ভ্রমণ ভাতা, দৈনিক ভাতা ও সড়কপথে কিলোমিটারভিত্তিক পথভাড়া ভাতা নির্ধারণ করেছে সরকার। একজন সরকারি কর্মকর্তা দেশের ভেতরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে দৈনিক সর্বোচ্চ এক হাজার ৪০০ টাকা ভাতা পাবেন। তবে ব্যয়বহুল স্থান হিসেবে ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর শহর এবং সাভার পৌর এলাকার জন্য ভাতা আরো ৩০ শতাংশ হারে বাড়বে। অর্থাৎ এসব এলাকা ভ্রমণে সরকারের একজন কর্মকর্তা দৈনিক ভাতা হিসেবে সর্বোচ্চ এক হাজার ৮২০ টাকা পাবেন। তবে জাতীয় বেতন স্কেলের ১০ নম্বর গ্রেড থেকে ২০ নম্বর গ্রেড পর্যন্ত কর্মরতদের ক্ষেত্রে এ ভাতা কমবে।

জাতীয় বেতন স্কেলের বিভিন্ন গ্রেড ও মূল বেতন বিবেচনায় চাকরিজীবীদের চারটি শ্রেণিতে বিভক্ত করে এসব ভাতা নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। ফলে  শ্রেণিওয়ারি বিবেচনায় সমদূরত্বে ভ্রমণে গেলেও একেক শ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একেক হারে দৈনিক ভাতা, যানবাহনভাড়া বাবদ ভাতা এবং বদলিজনিত ভাতা পাবেন।

মূল বেতন-নির্বিশেষে জাতীয় বেতন স্কেলের নবম গ্রেড থেকে প্রথম গ্রেডের সব কর্মকর্তা এবং ২৯ হাজার টাকা বা এর বেশি মূল বেতনধারী দশম গ্রেডের কর্মকর্তারা ‘ক’ শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত। আর মাসে ২৯ হাজার টাকার কম মূল বেতন গ্রহণকারী সব দশম গ্রেডের কর্মকর্তা এবং ১১ থেকে ১৬ নম্বর গ্রেডের কর্মকর্তা-কর্মচারী, যাঁদের মাসিক মূল বেতন ১৬ হাজার থেকে ২৯ হাজার টাকার কম, তাঁরা ‘খ’ শ্রেণিতে জায়গা পেয়েছেন। আর ১১ থেকে ১৬ নম্বর গ্রেডধারী, যাঁদের মূল বেতন ১৬ হাজার টাকার কম, তাঁরা ‘গ’ শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত। ফরেস্ট গার্ড, পুলিশ কনস্টেবল (প্রধান কনস্টেবল বাদে), জেল ওয়ার্ডার, পেটি অফিসার, কিশোর অপরাধী সংশোধনী প্রতিষ্ঠানের দ্বাররক্ষী এবং বেতন স্কেলের ১৭ নম্বর গ্রেড থেকে ২০ নম্বর গ্রেডের সব কর্মচারী ‘ঘ’ শ্রেণিভুক্ত। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, গ্রেড বলতে টাইম স্কেল বা সিলেকশন গ্রেড স্কেল পাওয়ার পর নির্ধারিত স্কেল বা গ্রেড নয়, সংশ্লিষ্ট পদের জন্য প্রযোজ্য গ্রেডকে বোঝাবে।

‘ক’ শ্রেণির কর্মকর্তাদের মধ্যে যাঁদের মূল বেতন ৭৮ হাজার বা এর বেশি, তাঁরা দৈনিক ভাতা পাবেন এক হাজার ৪০০ টাকা। ৭১ হাজার এক টাকা থেকে ৭৭ হাজার ৯৯৯ টাকা মূল বেতন হলে ভাতা এক হাজার ২২৫ টাকা। মূল বেতন ৫০ হাজার এক টাকা থেকে ৭১ হাজার হলে দৈনিক ভাতা এক হাজার ৫০ টাকা, ২৯ হাজার এক টাকা থেকে ৫০ হাজার মূল বেতন হলে ভাতা ৮৭৫ টাকা, মূল বেতন ২২ হাজার থেকে ২৯ হাজার হলে দৈনিক ভাতা ৭০০ টাকা। এ ছাড়া ২৯ হাজার টাকার কম মূল বেতন গ্রহণকারী দশম গ্রেডের কর্মকর্তাদের দৈনিক ভাতা ৪৯০ টাকা। ১৬ হাজার টাকা বা এর বেশি মূল বেতন গ্রহণকারী ১১ থেকে ১৬ নম্বর গ্রেডের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর দৈনিক ভাতা ৪২০ টাকা। আর ১৬ হাজার টাকার কম মূল বেতন গ্রহণকারী ১১ থেকে ১৬ নম্বর গ্রেডধারীদের দৈনিক ভ্রমণ ভাতা ৩৫০ টাকা। ১৭ থেকে ২০ নম্বর গ্রেডধারীসহ ‘ঘ’ শ্রেণির কর্মচারীদের দৈনিক ভ্রমণ ভাতা ৩০০ টাকা ধরা হয়েছে। তবে ব্যয়বহুল স্থান হিসেবে ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর শহর এবং সাভার পৌর এলাকার জন্য দৈনিক ভাতা আরো ৩০ শতাংশ হারে বাড়বে।

সড়কপথে ভ্রমণের জন্য ‘ক’ শ্রেণির কর্মকর্তারা কিলোমিটারপ্রতি ভাড়া পাবেন ৩ দশমিক ৭৫ টাকা। ‘খ’ শ্রেণির ক্ষেত্রে ভাড়া তিন টাকা, ‘গ’ শ্রেণির জন্য ২ দশমিক ২৫ টাকা এবং ‘ঘ’ শ্রেণির জন্য ১ দশমিক ৫০ টাকা।

রেলপথে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ‘ক’ শ্রেণির কর্মকর্তাদের মধ্যেও বিভক্তি আনা হয়েছে। ৪৩ হাজার থেকে ৬৯ হাজার ৮৫০ টাকা মূল বেতনধারীরা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত প্রথম শ্রেণি, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত শ্রেণি না থাকলে প্রথম শ্রেণি পাবেন। তবে বদলি বাদে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত শ্রেণিতে ভ্রমণের জন্য পথভাড়া ওই শ্রেণির ভাড়ার দেড় গুণ হবে। বদলি ও শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত শ্রেণির ভ্রমণ বাদে সব শ্রেণির সরকারি কর্মকর্তা যে শ্রেণিতে ভ্রমণের অধিকারী, সে শ্রেণিতে ভ্রমণ করলে পথভাড়া ওই শ্রেণির ভাড়ার ১ দশমিক ৮ গুণ হবে। ৪৩ হাজার টাকার কম মূল বেতনধারী ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত অন্যান্য কর্মকর্তা রেলপথে ভ্রমণের ক্ষেত্রে প্রথম শ্রেণির ভাড়া পাবেন। ‘খ’ শ্রেণির সব কর্মচারী দ্বিতীয়, শোভন বা সুলভ শ্রেণির ভাড়া পাবেন।

যে ট্রেনে দুটি শ্রেণি রয়েছে, সেই ট্রেনে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ‘গ’ শ্রেণির কর্মকর্তারা নিম্নতম শ্রেণি পাবেন। আর কোনো ট্রেনে তিনটি শ্রেণি থাকলে ১০ হাজার ২০০ টাকা মূল বেতন হলে মধ্যম শ্রেণি এবং মূল বেতন ১০ হাজার ২০০ টাকার কম হলে নিম্নতম শ্রেণি পাবেন।

সমুদ্র বা নদীপথে স্টিমার, জাহাজ ও লঞ্চে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত ৪৩ হাজার থেকে ৬৯ হাজার ৮৫০ টাকা মূল বেতন হলে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত প্রথম শ্রেণি পাবেন, তবে তা না থাকলে প্রথম শ্রেণি পাবেন। ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত অন্য কর্মকর্তারা পাবেন প্রথম শ্রেণি। ‘খ’ শ্রেণির সব সরকারি কর্মকর্তা দ্বিতীয়, শোভন বা সুলভ শ্রেণি পাবেন। আর ‘গ’ শ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারী দুটি শ্রেণি থাকলে নিম্নতম, তিনটি শ্রেণি থাকলে মধ্যম এবং চারটি থাকলে নিম্নতর শ্রেণির উচ্চতর শ্রেণি পাবেন।

আর বাসে ভ্রমণের ক্ষেত্রে নবম গ্রেড থেকে ১ নম্বর গ্রেডধারীরা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত আসন পাবেন। অন্য সব কর্মকর্তা-কর্মচারী শীতাতপ নিয়ন্ত্রণবিহীন আসন পাবেন। বদলিজনিত কারণে বাসে ভ্রমণের জন্য পথভাড়া ওই শ্রেণির ভাড়ার দ্বিগুণ হবে।

দেশের ভেতরে বিমানে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ৪৩ হাজার থেকে ৬৯ হাজার ৮৫০ টাকা মূল বেতনধারী ‘ক’ শ্রেণির কর্মকর্তারা ইকোনমি ক্লাস পাবেন। রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীদের সফরের সময় ব্যক্তিগত কর্মকর্তারাও ইকোনমি ক্লাস পাবেন। বিশেষ ক্ষেত্রে অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও বিমানে ভ্রমণের অনুমতি পেতে পারেন। তবে এ জন্য প্রতিটি ভ্রমণের ক্ষেত্রে কমপক্ষে মন্ত্রণালয় বা বিভাগের সচিবের অনুমোদন নিতে হবে এবং এর অনুলিপি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠাতে হবে।

বদলিজনিত কারণে অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান ভ্রমণের ক্ষেত্রে আনুষঙ্গিক খরচ বাবদ বিমানভাড়ার ২০ শতাংশ দেওয়া হবে।

বদলিজনিত ভ্রমণের ক্ষেত্রে সরকারি চাকরিজীবীদের নৌপথে নিজের জন্য নির্ধারিত শ্রেণির তিনটি ভাড়া, পরিবারের প্রত্যেক সহগামী সদস্যের জন্য একটি পূর্ণ ভাড়া (স্ত্রীসহ সর্বোচ্চ তিনজন) পাবেন। সড়কপথে নিজের জন্য নির্ধারিত শ্রেণির দুটি ভাড়া এবং পরিবারের প্রত্যেক সহগামী সদস্যের জন্য একটি পূর্ণ ভাড়া (স্ত্রীসহ সর্বোচ্চ তিনজন) পাবেন। আর বিমানে ভ্রমণের ক্ষেত্রে শুধু নিজের জন্য প্রাধিকার অনুযায়ী ভাড়া পাবেন।

সরকারি চাকরিজীবীদের বদলিজনিত কারণে নিজস্ব মালামাল পরিবহনের পরিমাণ ও প্যাকিং চার্জও নির্ধারণ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এ ক্ষেত্রে ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত কর্মকর্তারা একাকী ভ্রমণে এক হাজার ৫০০ কেজি এবং সপরিবারে ভ্রমণের ক্ষেত্রে দুই হাজার ৩০০ কেজি মালামাল পরিবহনে প্যাকিং চার্জ পাবেন দুই হাজার ২৫০ টাকা। ‘খ’ শ্রেণিভুক্তরা একাকী ৮০০ কেজি এবং সপরিবারে এক হাজার ২০০ কেজি মালামাল প্যাকিং চার্জ এক হাজার ৫০০ টাকা, ‘গ’ শ্রেণিভুক্তরা একাকী ৫০০ কেজি এবং সপরিবারে ৭০০ কেজির প্যাকিং চার্জ ৭৫০ টাকা এবং ‘ঘ’ শ্রেণিভুক্তরা একাকী ২০০ কেজি এবং সপরিবারে ৩০০ কেজি মালামাল প্যাকিং চার্জ বাবদ ৪০০ টাকা পাবেন।


মন্তব্য