kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জেএমবির ছয় জঙ্গি ভারতে গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, কলকাতা   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



জেএমবির ছয় জঙ্গি ভারতে গ্রেপ্তার

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও আসাম রাজ্য থেকে জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) ছয় জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কলকাতা পুলিশের বিশেষ টাস্কফোর্স (এসটিএফ)। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে তিনজন বাংলাদেশি এবং তিনজন ভারতের নাগরিক।

এসটিএফের দাবি, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে পাঁচজন ২০১৪ সালের ৩ অক্টোবর বর্ধমানের খাগড়াগড় বিস্ফোরণের ঘটনায় চার্জশিটভুক্ত আসামি। তাদের মধ্যে ভারতে নিযুক্ত জেএমবির দুই প্রধানও রয়েছে। তারা ভারতে বড় ধরনের নাশকতার পরিকল্পনা করছিল। এই ছয়জনকে ধরিয়ে দিতে পারলে পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণাও প্রচার করা হয়েছিল।

কলকাতা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার ও এসটিএফ প্রধান বিশাল গর্গ গতকাল সোমবার দুপুরে লালবাজারে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান। তিনি জানান, গ্রেপ্তারকৃত বাংলাদেশি তিনজন হলো আনোয়ার হোসেন ফারুক ওরফে এনাম ওরফে কালু ভাই, মোহাম্মদ রুবেল ওরফে রফিক ওরফে পিছি ও জাবিরুল ইসলাম ওরফে জাহিদুল শেখ ওরফে জাফর। আর ভারতীয় তিনজন হলো মাওলানা ইউসুফ ওরফে ইউসুফ শেখ ওরফে বক্কর ওরফে আবু খেতাব, শহীদুল ইসলাম ওরফে সূর্য ওরফে শামীম ও আবুল কালাম আজাদ ওরফে কলিম।

এসটিএফ প্রধান জানান, আনোয়ার হোসেন ফারুক ওরফে এনাম পশ্চিমবঙ্গ শাখা জেএমবির প্রধান এবং মাওলানা ইউসুফ তার প্রধান সহযোগী। মাওলানা ইউসুফ পশ্চিমবঙ্গে সংগঠনের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছিল। তাকে ধরিয়ে দিতে পারলে ১০ লাখ রুপি পুরস্কার ঘোষণা করেছিল ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা (এনআইএ)। এ ছাড়া জাহিদুল, মোহাম্মদ রুবেল, শহীদুল ও আবুল কালাম আজাদকে ধরিয়ে দিতে তিন লাখ এবং রুবেলের জন্য এক লাখ রুপি পুরস্কারের ঘোষণা ছিল।

এসটিএফ প্রধান বলেন, গ্রেপ্তার  হওয়া জঙ্গিরা খাগড়াগড়ের ঘটনার পরপরই উত্তর ও দক্ষিণ ভারতে গা ঢাকা দিয়েছিল। পুলিশ সোর্স লাগিয়ে ও কিছু বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি ব্যবহার করে এদের ওপর নজর রাখা হচ্ছিল। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া আর কোথায় কোথায় তাদের কী পরিকল্পনা ছিল কিংবা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে, পুলিশ রিমান্ডে নিয়ে সেটাই জানার চেষ্টা করা হবে। তাদের কাছ থেকে ডেটনেটর, দুই কেজি পাউডার (বিস্ফোরক বলে সন্দেহ), মোবাইল ফোন, মেমোরি কার্ড এবং কিছু তার কাটার যন্ত্রপাতি পাওয়া গেছে।

কলকাতা পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, ইউসুফ ও শহীদুলকে রবিবার চব্বিশ পরগনার বশিরহাটের নতুন বাজার এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। ফারুক ও রুবেলকে ধরা হয় বনগাঁওয়ের বাগদা রোড থেকে। আর কালামকে রবিবার কোচবিহার স্টেশন এবং জাহিদুলকে শনিবার আসামের কাছাড় জেলা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। গতকালই তাদের কলকাতার সিএমএম কোর্টে তোলার কথা ছিল।  


মন্তব্য