kalerkantho


৩০০ ফুটে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



৩০০ ফুটে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা সংলগ্ন ৩০০ ফুট সড়কের পাশের অবৈধ স্থাপনা গতকাল উচ্ছেদ করে রাজউক। ছবি : লুৎফর রহমান

নির্বিচারে দখল হয়ে যাওয়া ৩০০ ফুট রাস্তায় উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেছে রাজউক (রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ)। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাসিরউদ্দিন গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় অভিযান শুরু করে শেষ করেন দুপুর আড়াইটার দিকে।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন পূর্বাচল প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুল হকসহ রাজউকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। স্থানীয় থানা পুলিশের সহযোগিতায় রাস্তার উত্তর পাশে দখল হওয়া বিশাল এলাকা দখলমুক্ত করা হয় বলে অভিযানে থাকা কর্মকর্তারা জানান।

২২ সেপ্টেবর কালের কণ্ঠ’র প্রথম পৃষ্ঠায় ৩০০ ফুট রাস্তা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশিত প্রকল্পের জমি দখল করে দোকানপাট ও হাটবাজার

 গড়ে তোলা সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। যার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাসিরউদ্দিন এবং নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুল হকের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

নাসিরউদ্দিন কালের কণ্ঠকে জানান, যেকোনো মূল্যে পূর্বাচলের প্রবেশপথ হিসেবে খ্যাত ৩০০ ফুট রাস্তা এবং ক্যানেলের জমি দখলমুক্ত রাখা হবে। এই প্রথমবার অভিযান চালিয়ে ক্যানেলের জমির ওপর নির্মিত পাকা স্ল্যাব ও দোকানপাট উচ্ছেদ করা হয়েছে। রাস্তার জমি দখল করে পাকা স্ল্যাব দিয়ে সেখানে হোটেল-রেস্তোরাঁ, গ্যারেজ, কফি হাউস, টি স্টল, ফলের দোকান ও নার্সারি ব্যবসা শুরু হয়েছে। কুড়িল থেকে শুরু করে বোয়ালিয়া খাল পর্যন্ত উচ্ছেদ চালানো হয়।

নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুল হক বলেন, প্রথম দিন বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা, টং দোকান ও পাকা স্ল্যাব উচ্ছেদ করা হয়েছে।

এর পরও সেখানে বেশ কিছু অবৈধ স্থাপনা ও নার্সারি রয়ে গেছে। তাদের এক দিনের সময় দেওয়া হয়েছে। দখলদারচক্র সেটা না মানলে পরে অভিযান চালিয়ে এসব উচ্ছেদ করা হবে।

৩০০ ফুট রাস্তার পাশের পান দোকানি ইব্রাহিম মিয়া জানান, সেখানে এটাই প্রথম উচ্ছেদ অভিযান। ম্যাজিস্ট্রেট যখন অভিযান শুরু করেন, তখন কোনো কোনো দোকানদার বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলেও পুলিশি তৎপরতার কারণে তারা পিছু হটে। ফলে নির্বিঘ্নে উচ্ছেদকাজ শেষ হয়। তবে ম্যাজিস্ট্রেট কাউকে কাউকে মানবিক বিবেচনায় এক দিনের সময় দিয়ে গেছেন।

কুড়াতুলীর বাসিন্দা হাবিব উল্লাহ এ অভিযানে উল্লাস প্রকাশ করে বলেন, ‘যেভাবে ৩০০ ফুট রাস্তা দখল হয়ে যাচ্ছিল তাতে আমরা শঙ্কিত হয়ে উঠেছিলাম। উচ্ছেদ অভিযান শুরু হওয়ায় অবৈধ দখল বন্ধ হয়ে যাবে। ’


মন্তব্য