kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নব্য জেএমবির ২২ ‘বড় ভাই’ অধরা

এদের মধ্যে আছে তাত্ত্বিক সংগঠক সমন্বয়ক, প্রশিক্ষক আইটি বিশেষজ্ঞ

এস এম আজাদ   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নব্য জেএমবির ২২ ‘বড় ভাই’ অধরা

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় হামলার পর পুলিশ ও র‌্যাবের অভিযানে জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) নতুন ধারার (নব্য জেএমবি) সক্রিয় জঙ্গিদের অপতৎপরতা অনেকটাই স্তিমিত হয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে এ সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কসহ অন্তত ২১ সদস্য নিহত হয়েছে, গ্রেপ্তার হয়েছে অর্ধশতাধিক।

তবে এখনো পলাতক ২২ নেতা-সংগঠক। এদের মধ্যে অন্তত এক ডজন জঙ্গি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে গুলশান ও শোলাকিয়ার ঘটনায় জড়িত। তাদের মধ্যে কেউ তাত্ত্বিক নেতা, কেউ সংগঠক। সমন্বয়ের কাজ করছে কেউ কেউ। কেউ দিচ্ছে ধর্মীয় দীক্ষা, সামরিক প্রশিক্ষণ। কেউ কেউ অস্ত্র ও বোমা সরবরাহ করছে। আছে আইটি বিশেষজ্ঞও। দলে তারা ছদ্মনামে পরিচিত। তবে সহকর্মীরা এসব নেতাকে ‘বড় ভাই’ বলে ডাকে।

তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, গুলশান, শোলাকিয়ার ঘটনা তদন্ত, সন্দেহভাজন নিখোঁজদের তথ্য সংগ্রহ, পুরনো জেএমবি সদস্যদের কর্মকাণ্ড এবং গ্রেপ্তারকৃতদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নব্য জেএমবির এসব দুর্ধর্ষ পলাতক জঙ্গির ব্যাপারে জানা গেছে। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ভারতে পালিয়ে গেছে। কয়েকজন আছে মধ্যপ্রাচ্যে। তবে যারা দেশে আছে, তাদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছে ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি)  ইউনিট।

পলাতক জঙ্গিদের মধ্যে আছে পুরনো  জেএমবির শুরা সদস্য মাহফুজ সোহেল ওরফে হাতকাটা সোহেল ওরফে নাসিরুদ্দিন ওরফে ভাগিনা সোহেল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নূরুল ইসলাম মারজান, ডাকাতির সংগঠক ওয়াসিম আজওয়াদ আব্দুল্লাহ ওরফে আসিফ আজওয়াদ, খেলাফত নেতা আবু ইউসুফ মোহাম্মদ বাঙালি, তাত্ত্বিক নেতা আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর, উত্তরাঞ্চলের কমান্ডার রাজীব গান্ধী ওরফে রাজীব ওরফে শুভাষ ওরফে জাহাঙ্গীর, মামুনুর রশিদ রিপন ও শরিফুল ইসলাম খালিদ, অর্থ ও আইটি সমন্বয়ক বাশারুল্লাহ ওরফে রাহুল ওরফে চকলেট ওরফে শান্ত, কমান্ডার মানিক, সংগঠক ইকবাল, মামুন, জুনায়েদ হাসান খান, ইব্রাহিম হাসান খান, প্রশিক্ষক আব্দুস সাকিব ওরফে মাস্টার সাকিব, মিজান, অপারেশন বাস্তবায়নকারী বাদল মিয়া ওরফে ওস্তাদ বাদল, দিনাজপুরের আবদুল খালেক ওরফে মামা খালেক, জামায়াত নেতা সাজ্জাদ হোসেন, সাগর, আকাশ ও আজাদুল ওরফে কবিরাজ।

সিটিটিসি ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নব্য জেএমবির শক্তি অনেক ক্ষয় হয়ে গেছে। গুলশান ও শোলাকিয়ার হামলার পেছনে যারা ছিল, তাদের অনেকের নাম পাওয়া গেছে। তদন্তের পাশাপাশি পলাতকদের গ্রেপ্তারে অভিযানও চলছে। ’

সিটিটিসি কর্মকর্তারা বলছেন, গুলশানে হামলার সঙ্গে জড়িত চার শীর্ষ জঙ্গি তামিম আহমেদ চৌধুরী, তানভির কাদেরী ওরফে আবদুল করিম, মেজর (অব.) জাহিদুল ইসলাম ও রায়হান কবির ওরফে তারেক (কল্যাণপুরে নিহত) অভিযানে নিহত হয়েছে। গত দুই মাসে আরো ১৭ জন নব্য জেএমবি সদস্য নিহত হয়। গ্রেপ্তার হয়েছে অন্তত ৫০ জন। এতে নব্য জেএমবি প্রায় ৭০ শতাংশ শক্তি হারিয়েছে।

মাহফুজ সোহেল : পলাতক জঙ্গিদের মধ্যে সবচেয়ে দুর্ধর্ষ মাহফুজ সোহেল ওরফে হাতকাটা সোহেল ওরফে নাসিরুদ্দিন ওরফে ভাগিনা সোহেল। পুরনো জেএমবির শুরা সদস্য সে। দীর্ঘদিন ভারতে পালিয়ে থাকলেও গুলশান হামলার কয়েক মাস আগে দেশে আসে। সে গুলশান হামলায় অস্ত্র ও বোমা সরবরাহ করে। ২০১৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহের ত্রিশালের জঙ্গি ছিনতাইয়ের অন্যতম সংগঠক সোহেল বর্তমানে ঢাকাতেই আছে বলে ধারণা তদন্তকারীদের। শেওড়াপাড়ায় একটি বাসার সন্ধান পাওয়া গেছে, যেখানে কিছুদিন আগেও ছিল সে। দুই বছর আগে তামিমের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর সে নব্য জেএমবির সঙ্গে যুক্ত হয়। মাহফুজ গুলশান হামলার অপারেশনাল কমান্ডার নুরুল ইসলাম মারজানের নিকটাত্মীয়। বোমা তৈরির সময় তার এক হাত উড়ে যায়। এক হাতেই সে অস্ত্র চালাতে পারে।

রাজীব গান্ধী : নব্য জেএমবির আরেক দুর্ধর্ষ জঙ্গি রাজীব গান্ধী ওরফে গান্ধী ওরফে রাজীব ওরফে শুভাষ ওরফে জাহাঙ্গীর ওরফে শান্ত ওরফে আদিল। নিজ এলাকায় তার নাম শান্ত হলেও একের পর এক ছদ্মনাম নিয়ে অন্তরালেই আছে সে। এই দুর্ধর্ষ জঙ্গির বাড়ি গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায়। নব্য জেএমবির অন্যতম সংগঠক গান্ধী এখন উত্তরাঞ্চলের কমান্ডার। তার নেতৃত্ব ও পরিকল্পনায় গত দুই বছরে উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ৩২টি হত্যা-হামলার ঘটনা ঘটে। দীর্ঘদিন খুঁজে অবশেষে গান্ধীর আসল পরিচয় জেনেছেন সিটিটিসি ইউনিটের কর্মকর্তারা। ওই ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেছেন, ‘যখন কোনো হামলায় দক্ষ সন্ত্রাসীর প্রয়োজন হয়, তখন রাজীব তাদের সরবরাহ করে। গুলশানে, বগুড়ার দুজন এবং শোলাকিয়ায় একজন জঙ্গি পাঠিয়েছিল সে। উত্তরাঞ্চলের কোথাও সে আত্মগোপন করে আছে বলে ধারণা করছি। ’ ৩৫ বছর বয়সী এইচএসসি পাস এ জঙ্গির গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধায়।

মারজান : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নূরুল ইসলাম মারজান গুলশান হামলার অন্যতম সংগঠক। আইটি এক্সপার্ট ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট মারজান গুলশান হামলার নৃশংসতার ছবি প্রচার করে। সে নব্য জেএমবির সর্বকনিষ্ঠ ন্যাশনাল অপারেশনাল কমান্ডার। বয়স কম হলেও সংগঠনে তার আধিপত্য ব্যাপক। সে সদস্য সংগ্রহ করে থাকে। ঢাকা বা উত্তরাঞ্চলে মারজান লুকিয়ে আছে বলে ধারণা তদন্তকারীদের। তার স্ত্রী আফরিন ওরফে প্রিয়তিকে গত ১০ সেপ্টেম্বর আজিমপুরের আস্তানা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বাশারুল্লাহ ওরফে রাহুল ওরফে চকলেট : রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার বাসিন্দা ছিল বাশারুল্লাহ। দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ এই যুবকই নব্য জেএমবিতে বাশারুল্লাহ ওরফে আবুল বাশার ওরফে রাহুল ওরফে চকলেট নামে পরিচিত। কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার বাশারুজ্জামান সংগঠনের আইটি বিশেষজ্ঞ। সে একই সঙ্গে সংগঠনের অর্থ ও পরিকল্পনার সমন্বয়ক। সূত্র জানায়, গুলশান হামলায় জঙ্গিদের জন্য হুন্ডির মাধ্যমে আসা ১৪ লাখ টাকার একটি চালান চকলেটের কাছে আসে। এই চকলেটই বাশারুল্লাহ। আজিমপুরের আস্তানা থেকে তার স্ত্রী শায়লা আফরিনকেও গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আবু ইউসুফ : পুরনো জেএমবি নেতা আবু ইউসুফ মোহাম্মদ বাঙালি এখন নব্য জেএমবির খেলাফত নেতা। ভারতে থাকা এই জঙ্গি সম্প্রতি বাংলাদেশে এসেছে বলে তথ্য পেয়েছেন গোয়েন্দারা। গত ১০ আগস্ট রাজধানী থেকে ছয় জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব, যারা ‘দাওলাতুল ইসলাম’ শব্দ ব্যবহার করে আইএস প্রতিষ্ঠা করতে চাইছিল। তারা নেতা হিসেবে ইউসুফের নাম জানায়। দেড় বছর আগে ভারতের এনআইএ বাংলাদেশে এসে যে ১০ জনের নামের তালিকা দিয়েছে, তাদের দ্বিতীয় ছিল মাওলানা ইউসুফ শেখ ওরফে বক্কর ওরফে মোহাম্মদ ইউসুফ। বয়স আনুমানিক ৩২ বছর। তার বাবা আবদুল হাফিজ শেখ। ভারতে তার ঠিকানা পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান মঙ্গলকোটের কেষ্টবাড়ী।

শরীফুল ইসলাম খালেদ : ভারতের সঙ্গে যৌথ তদন্তে বেরিয়ে এসেছে জেএমবির উত্তরাঞ্চলের আরেক কমান্ডার শরীফুল ইসলাম খালেদ ওরফে আবু সুলেমান ওরফে জিহাদি জনের নাম। গত ৪ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান স্টেশন থেকে মুসা নামের একজনকে আটক করে সে দেশের সিআইডি। মুসা দাবি করে, জিহাদি জন ওরফে আবু সুলেমান নামের এক বাংলাদেশি তাকে আইএসের হয়ে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করে। পরে জানা যায়, আবু সুলেমানই নব্য জেএমবির সদস্য শরীফুল ইসলাম খালেদ। সে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রেজাউল করিম সিদ্দিকী হত্যার প্রধান আসামি।

মামুনুর রশীদ রিপন : গুলশান হামলার তদন্তে বেরিয়ে এসেছে রিপনের নাম। দুর্ধর্ষ এই জঙ্গি ভারতে পালিয়ে গেছে বলে তথ্য পেয়েছেন গোয়েন্দারা। গত বছরও রাজশাহীর বাসিন্দা ও উত্তরাঞ্চলের কমান্ডার হিসেবে কাজ করা মামুনুর রশিদ রিপন কয়েকটি ছদ্মনাম নিয়ে পালিয়ে ছিল। জেএমবির দণ্ডিত কয়েকজন নেতা তার আত্মীয়। গুলশান হামলাসহ বেশ কয়েকটি ঘটনায় তার পরোক্ষ সম্পৃক্ততার তথ্য মিলেছে।

ওয়াসিম আজওয়াদ আব্দুল্লাহ ওরফে আসিফ আজওয়াদ : নব্য জেএমবির এই দুর্ধর্ষ জঙ্গির অবস্থান নিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে। ২০১৪ সালের ২৪ এপ্রিল আশুলিয়ায় ব্যাংক ডাকাতির নেতৃত্বে ছিল সে। তবে তদন্তকারীরা তার কোনো ঠিকানাই খুঁজে পাননি। নব্য জেএমবির আরো কয়েকজন সদস্য পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এই জঙ্গির নাম জানালেও তার অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেনি তদন্তকারীরা।

আবুল কাশেম ওরফে বড় হুজুর : শায়খ মাওলানা কাশেম নব্য জেএমবির তাত্ত্বিক নেতা। তাকে বলা হয় বড় হুজুর। সর্বশেষ সে দিনাজপুরের ওখড়াবাড়ী মাদ্রাসার শিক্ষক ছিল। গত বছর সেখানে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করে তামিম চৌধুরী। এই ব্যক্তি কোনো মাদ্রাসাতেই দু-তিন মাসের বেশি থাকে না। তার সর্বশেষ অবস্থান জানার চেষ্টা করছেন তদন্তকারীরা।

জুনায়েদ ও ইব্রাহিম : কুষ্টিয়ার মনির হোসেনের ছেলে জুনায়েদ হাসান খান ও ইব্রাহিম হাসান খান। গত বছর থেকে নিখোঁজ এই দুই ভাই নব্য জেএমবির সাংগঠনিক নেতা। রাজধানীর বারিধারার বাসিন্দা এই সহোদর মধ্যপ্রাচ্য থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশে ফিরে আত্মগোপনে আছে। জুনায়েদ খান সম্প্রতি ভারতে গেছে বলেও তথ্য মেলে। গত ১৪ সেপ্টেম্বর ইব্রাহিম হাসান খানের ফেসবুক প্রোফাইলে দুই ভাইকে এক ছবিতে দেখা গেছে। ছবিতে তাদের পেছনে আইএসের মতো একটি কালো পতাকা ঝুলতে দেখা যায়। পরদিন প্রোফাইল থেকে ওই ছবি সরিয়ে ফেলা হয়।

সাকিব ওরফে মাস্টার : সাকিব ওরফে মাস্টার ওরফে সাব্বির নামে দিনাজপুরের এক জঙ্গি সংগঠক ও প্রশিক্ষকের ব্যাপারে তথ্য পেয়েছেন গোয়েন্দারা। কল্যাণপুরের আস্তানা থেকে গ্রেপ্তার হওয়া রাকিবুল হাসান রিগ্যানসহ তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদে করতোয়া নদীর চরে শারীরিক প্রশিক্ষণ দেওয়া দুই ব্যক্তির নাম জানা যায়। তাদেরই একজন সাকিব মাস্টার। অন্যজন মিজান ওরফে ‘মেজর’ মিজান, যার বাড়ি দিনাজপুরের নওয়াবগঞ্জে। সাকিব উত্তরাঞ্চলে সদস্য সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠায়।

আরো যারা অধরা : নব্য জেএমবির পলাতক জঙ্গিদের মধ্যে মানিক ঢাকায়ও সক্রিয়। তবে তার ব্যাপারে এখনো বিস্তারিত তথ্য মেলেনি। কল্যাণপুরের আস্তানা থেকে একটি রাইফেল নিয়ে পালিয়ে যায় ইকবাল নামের আরেকজন, তার বাড়ি গাজীপুরে। সিটিটিসি কর্মকর্তারা বলছেন, ইকবাল শীর্ষ পর্যায়ের নেতা নয়। তবে অপারেশন বাস্তবায়নকারী দলের সদস্য। বগুড়ার শাজাহানপুর থেকে জেএমবি সদস্য সংগ্রহ করছে বাদল। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের আজাদুল ওরফে কবিরাজও উত্তরাঞ্চলের একজন বড় সংগঠক। একইভাবে নাম উঠে এসেছে মামুন, সাগর, আকাশের। তারাও নব্য জেএমবির দুর্ধর্ষ জঙ্গি।

জানতে চাইলে সিটিটিসি ইউনিটের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন বলেন, ‘নব্য জেএমবিতে কতজন নেতা আছে তা সঠিক বলা যাবে না। তবে কয়েকজনের নাম আমরা জেনেছি। আরো কিছু নাম শোনা যাচ্ছে। তদন্ত না করে তাদের কী ভূমিকা তা বলা যাবে না। ’


মন্তব্য