kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ম্যানিলা থেকে দেড় কোটি ডলার ফেরত আসছে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ম্যানিলা থেকে দেড় কোটি ডলার ফেরত আসছে

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে চুরি যাওয়া অর্থের মধ্যে উদ্ধার হওয়া দেড় কোটি ডলার বাংলাদেশ ব্যাংককে ফেরত দিতে ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংককে নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির একটি আদালত। গতকাল সোমবার ম্যানিলায় রিজিওনাল ট্রায়াল কোর্ট এ আদেশ দেন বলে সরকারি আইনজীবীর বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্ক থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার সরিয়ে ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংকে নিয়ে গিয়েছিল হ্যাকাররা। পরে ওই অর্থের বেশির ভাগই জুয়ার টেবিল হয়ে স্থানীয় মুদ্রায় মিশে যায়।

দেশটির বিচার বিভাগের প্রধান কৌঁসুলি রিকার্দো পারাস রয়টার্সকে বলেন, উদ্ধার হওয়া দেড় কোটি ডলারের প্রকৃত মালিক বাংলাদেশ বলে আদালত রায় দিয়েছেন। রায়ে আদালত বলেছেন, ওই অর্থ ফেরত পাওয়ার পূর্ণ অধিকার রয়েছে বাংলাদেশের। ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের (বিএসপি) ভল্টে জমা রাখা ওই অর্থ বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তরে পদক্ষেপ নিতে বিএসপিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) জুপিটার শাখায় ভুয়া পরিচয়ে খোলা পাঁচটি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির অর্থ সরানোর ঘটনা ঘটে। এ ঘটনা নিয়ে বিশ্বজুড়ে তোলপাড়ের মধ্যে ফিলিপাইন সরকার তৎপর হলে দেড় কোটি ডলারের মতো সন্ধান মেলার পর তা জব্দ করে। গত মে মাসে এই দেড় কোটি ডলার রিজার্ভ চুরির অন্যতম সন্দেহভাজন ক্যাসিনো ব্যবসায়ী কিম অংয়ের কাছ থেকে জব্দের পর তা দেশটির বিচার বিভাগের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়। যদিও কিম অংয়ের ক্যাসিনোতে (জুয়ার আখড়া) সাড়ে তিন কোটি ডলারের মতো গিয়েছিল বলে মনে করা হয়। ওই অর্থ উদ্ধারের পরপরই এর মালিকানা দাবি করে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে দেশটির আদালতে আবেদন করা হয়েছিল।

বাকি অর্থগুলো উদ্ধারের কোনো অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না। ফিলিপাইন সরকার জুয়ার আখড়ার আরো আড়াই কোটি ডলার জব্দ করেছে বলে জানালেও এখনো এর কোনো সুরাহা হয়নি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী মুখপাত্র আনোয়ারুল ইসলাম গতকাল সাংবাদিকদের জানান, ফিলিপাইনের রিজিওনাল ট্রায়াল কোর্ট শুনানি শেষে এর আগে বাজেয়াপ্ত ও দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকে রক্ষিত দেড় কোটি ডলার বাংলাদেশের অনুকূলে অবমুক্ত করার আদেশ জারি করেছেন। ফিলিপাইন সরকার বনাম কিম অংয়ের মামলায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে ফিলিপাইনের ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস। এ আদেশের ফলে বাংলাদেশ দেড় কোটি ডলার ফেরত পাচ্ছে।

‘অবশিষ্ট অর্থ আইনানুগ প্রক্রিয়ায় উদ্ধারের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে’ জানিয়ে আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার, বাংলাদেশ ব্যাংক ও ফিলিপাইনে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসকে সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। আশা করা যায় সম্পূর্ণ স্টোলেন অ্যাসেট অচিরেই বাংলাদেশ আদায় করতে সমর্থ হবে। ’


মন্তব্য