kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


১২ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু, শিক্ষকসহ নিহত ২৫

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



১২ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু, শিক্ষকসহ নিহত ২৫

গতকাল টাঙ্গাইলের ইচাইলে ঢাকাগামী একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

সড়ক দুর্ঘটনায় ১২ জেলায় শিশু, শিক্ষকসহ অন্তত ২৫ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো অন্তত ৬৪ জন।

এর মধ্যে গতকাল শনিবার টাঙ্গাইলে তিনটি দুর্ঘটনায় মারা গেছে মা, ছেলেসহ ১১ জন। একই দিন ভোলা, সিলেট ও ঝালকাঠিতে দুজন করে এবং শেরপুর, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, ঝিনাইদহ, ঢাকার আশুলিয়া ও মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে একজন করে নিহত হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার ময়মনসিংহের নান্দাইল ও নীলফামারীর ডিমলায় মারা গেছে দুই শিশু। গত সোমবার থেকে গতকাল পর্যন্ত সড়কে প্রাণ গেছে অন্তত ৮৫ জনের। বিস্তারিত আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :

টাঙ্গাইল : মির্জাপুর উপজেলার ইচাইল এলাকায় বঙ্গবন্ধু সেতু-ঢাকা মহাসড়কে গতকাল সকাল সোয়া ৭টার দিকে বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছে মা, ছেলেসহ পাঁচজন। আহত হয়েছে অন্তত ৩০ জন। নিহতরা হলো কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার কুটিপাড়া গ্রামের মমিনুলের স্ত্রী সালমা আক্তার (৩০) ও তাঁর ছেলে আরিফ (৯), একই জেলার রাজারহাট উপজেলার বাঁশপাড়া গ্রামের সুমন (৩০) ও তাঁর স্ত্রী মিনতি (২৫), একই গ্রামের কাজলের ছেলে আনন্দ (১২)।

সকাল ৯টার দিকে কালিহাতী উপজেলার আনালিয়াবাড়ী এলাকায়

প্রাইভেট কার ও মোটরসাইকেলের সামনাসামনি সংঘর্ষে মারা গেছেন মোটরসাইকেলের দুই আরোহী। তাঁরা হলেন গাইবান্ধা সদরের তৌহিদ (২৭) ও ফুলছড়ি উপজেলার মোখলেছুর রহমান দীপ্ত (৩০)। তাঁরা দুজন সম্পর্কে মামা-ভাগ্নে।

গোড়াই হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আরিফুল ইসলাম জানান, ইচাইল এলাকায় সামনাসামনি সংঘর্ষ হয়েছে কুড়িগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা জাবালে নূর পরিবহনের যাত্রীবাহী বাস ও ইটবোঝাই টাঙ্গাইলগামী ট্রাকের মধ্যে। এতে বাস ও ট্রাকের সামনের অংশ দুমড়েমুচড়ে ঘটনাস্থলেই এক শিশু ও এক নারীর মৃত্যু হয়। এ সময় বাসের চালকসহ কয়েকজন যাত্রী বাসের ভেতর আটকা পড়ে। খবর পেয়ে মির্জাপুর থানা ও হাইওয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে আসেন। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় তাঁরা আহতদের উদ্ধার করে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে পাঠান। সেখানে আরো তিনজনের মৃত্যু হয়।

দুর্ঘটনার পর মহাসড়কের উভয় পাশে কমপক্ষে ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে দুর্ঘটনাকবলিত বাস ও ট্রাক সরিয়ে নিলে সকাল ৮টার দিকে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। মির্জাপুর থানার উপপরিদর্শক মো. ছানোয়ার হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন।

কুমুদিনী হাসপাতালের পরিচালক ডা. দুলাল চন্দ্র পোদ্দার ও ডা. জেরিন বলেন, দুর্ঘটনায় আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাদের মধ্যে রনি, ইব্রাহিম ও আমিন নামের তিনজনের অবস্থা গুরুতর।

টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. মাহবুব হোসেন নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার এবং আহতদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার ঘোষণা দেন। এ ছাড়া তিনি নিহতদের লাশ বাড়ি নিয়ে যাওয়ার খরচ বহনের দায়িত্ব নিয়েছেন বলে মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাসুম আহমেদ নিশ্চিত করেছেন।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ওসি মো. আছাবুর রহমান জানান, কালিহাতীর আনালিয়াবাড়ি এলাকায় উত্তরবঙ্গমুখী একটি প্রাইভেট কারের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন মোটরসাইকেল আরোহী দুজন। তাঁদের মধ্যে ঘটনাস্থলেই মারা যান মোটরসাইকেলের চালক মোখলেছুর রহমান দীপ্ত। টাঙ্গাইল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তৌহিদের মৃত্যু হয়। মামা-ভাগ্নে দুজন মোটরসাইকেলে করে ঢাকা যাচ্ছিলেন।

ওসি জানান, প্রাইভেট কারটি আটক করা হয়েছে।

সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে মধুপুর পৌর শহরের নরকোনা এলাকায় বাস ও ট্রাকের সামনাসামনি সংঘর্ষে এক নারীসহ চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে আরো ১৯ জন।

নিহত চারজনের মধ্যে তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তাঁরা হলেন মধুপুর উপজেলার টিকরী গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে লিটন (২২), একই গ্রামের সালমা (২৩) ও পোদ্দারবাড়ী গ্রামের সমশের আলীর ছেলে রজব আলী (৬০)। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মধুুপুর থানার ওসি মো. শফিকুল ইসলাম জানান, টাঙ্গাইল থেকে ময়মনসিংহগামী একটি বাস মধুুপুর পৌর শহরের নরকোনা এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মালবোঝাই ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই চারজন নিহত এবং আরো ১৯ জন আহত হয়।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মধুপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রমেন্দ্র নাথ বিশ্বাস ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসার পর গুরুতর আহত ১৩ জনকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও তিনজনকে ঘাটাইলের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আরো তিনজনকে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, নিহত চারজনের প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে এবং আহত প্রত্যেককে দুই হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।

সিলেট : গোলাপগঞ্জ উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে দুই বোনের মৃত্যু হয়েছে। এতে অন্তত ১২ জন আহত হয়েছে। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সিলেট-বিয়ানীবাজার-জকিগঞ্জ সড়কের ফুলবাড়ি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো গোলাপগঞ্জের গোয়াসপুর গ্রামের কয়েছ মিয়ার মেয়ে শুভা (১১) ও তাম্মি (৬)। শুভা স্থানীয় একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণিতে আর তাম্মি নার্সারিতে পড়ত।

গোলাপগঞ্জ থানার ওসি এ কে এম ফজলুল হক শিবলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাসটি সিলেট থেকে বড়লেখা অভিমুখে যাচ্ছিল। এ সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি খাদে পড়ে উল্টে যায়। আহত অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর দুই বোনের মৃত্যু হয়।

ঝালকাঠি : রাজাপুরে যাত্রীবাহী বাস ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে সজিব হাওলাদার ও মো. খলিল নামের দুজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন এক নারী। গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ঝালকাঠি-পিরোজপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের পিংড়ি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। সজিব উপজেলার আলগী গ্রামের সেলিম হাওলাদারের ছেলে। খলিল পটুয়াখালীর তাফালবাড়ী গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে। তিনি সজিবের ভগ্নিপতি।

রাজাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জানান, রাজাপুর থেকে সজিব তাঁর বোন শারমিন আক্তার ও ভগ্নিপতিকে নিয়ে একটি মোটরসাইকেলে করে ঝালকাঠি যাচ্ছিলেন। দুর্ঘটনায় আহত শারমিনকে রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাসটি আটক করলেও চালক পালিয়ে গেছেন।

ভোলা : গতকাল সকাল ১০টার দিকে সদর উপজেলার পূর্ব ইলিশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক খবির হোসেন অটোরিকশায় করে স্কুলের সামনে এসে নামেন। এ সময় একটি যাত্রীবাহী বাস তাঁকে ধাক্কা দিয়ে চলে যায়। স্থানীয় লোকজন খবিরকে প্রথমে ভোলা সদর হাসপাতালে এবং পরে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু পথেই তাঁর মৃত্যু হয়। ইলিশা পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত আবুল বশার এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ বাসটি আটক করেছে।

একই দিন দুপুরে তজুমদ্দিন উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজার ব্রিজ থেকে নামার সময় সাত যাত্রী নিয়ে একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা উল্টে পড়ে যায়। এ সময় অটোরিকশার নিচে চাপা পড়ে মাহবুবুর রহমান (৩৫) নামের এক যাত্রী গুরুতর আহত হন। তাঁকে তজুমদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মাহবুব রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার বাঘজোয়া গ্রামের আব্দুর রব মিয়ার ছেলে। তিনি শম্ভুপুর ইউনিয়নের কোড়ালমারা গ্রামের পাঠানবাড়ির শামছুল হকের জামাতা। স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে ঈদ করে ঢাকায় কর্মস্থলে ফিরছিলেন তিনি।

ফরিদপুর : ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের মল্লিকপুর এলাকায় যাত্রীবাহী বাসের চাপায় মারা গেছেন জয়নাল শেখ (৫৮) নামের এক পথচারী। তাঁর বাড়ি ওই গ্রামে। এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা থেকে কুষ্টিয়াগামী এমএম পরিবহনের একটি বাস বিপরীতমুখী একটি ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পথচারী জয়নালকে চাপা দিয়ে সড়কের পাশের গাছের ওপর গিয়ে পড়ে। পুলিশ সার্জেন্ট ওয়াহিদুল ইসলাম জানান, বাসটি আটক করা হলেও চালক পালিয়ে গেছেন।

গোপালগঞ্জ : কাশিয়ানীর শালবরাত এলাকায় গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাস ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে সোহেল  মোল্যা (২২) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। মোটরসাইকেলের চালক এই যুবক কোটালীপাড়া উপজেলা সদরের জালাল মোল্যার ছেলে।

সাভার (ঢাকা) : সাভারের আশুলিয়ায় বাসচাপায় সিরাজুল ইসলাম (৬০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গতকাল সকাল ১০টার দিকে নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের পল্লীবিদ্যুৎ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। সিরাজুলের বাড়ি মুন্সীগঞ্জে। তিনি মেয়েবাড়ি বেড়াতে এসেছিলেন।

মুন্সীগঞ্জ : ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের শ্রীনগরে বাসচাপায় শুকুর আলী (৭০) নামের এক পথচারী নিহত হয়েছেন। গতকাল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার উমপাড়া বটতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। শুকুর পাকিরাপাড়া গ্রামের কুব্বত আলীর ছেলে। এ ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করে। এ সময় প্রায় দুই ঘণ্টা যান চলাচল বিঘ্নিত হয়। পাঁচটি বাস ভাঙচুর করে বিক্ষুব্ধ জনতা। এতে সড়কের দুই দিকে প্রায় ছয় কিলোমিটারজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। হাসাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ওসি গোলাম মোর্শেদ তালুকদার জানান, ১৫-২০ মিনিট মহাসড়কটি অবরুদ্ধ ছিল। পরে ষোলঘর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুল ইসলাম নিহতের পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা সহায়তা দেওয়ায় জনতা অবরোধ তুলে নেয়।

শেরপুর : ঝিনাইগাতী উপজেলায় গতকাল সকালে রাস্তা পার হওয়ার সময় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন ফকির মাহমুদ (৬৫) নামের এক ব্যক্তি। তিনি নলকুড়া ইউনিয়নের মানিককুড়া গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশ মোটরসাইকেলের চালক গজারিকুড়া গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে নুর আলমকে (৩০) আটক করেছে।

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) : মায়ের কোলে চড়ে নানিবাড়ি বেড়াতে গিয়েছিল চার বছরের শিশু শাকিব। বাড়ি ফেরার পথে চলন্ত ইজিবাইকে (ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা) মায়ের কোল থেকে সে ছিটকে পড়ে। ইজিবাইকটি তার মাথার ওপর দিয়ে চলে যায়। মাথা থেঁতলে যাওয়া শাকিবকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর তার মৃত্যু হয়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার নান্দাইল-কেন্দুয়া সড়কে। শাকিব উপজেলার নাখিরাজ গ্রামের কাজল মিয়ার ছেলে।

নান্দাইল মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নাজিম উদ্দিন জানান, শিশুর বাবা কাজল মিয়া ঘটনাটি মীমাংসা করে ফেলেছেন। এ নিয়ে তিনি থানায় মামলা করবেন না বলে জানিয়েছেন। তাই ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

নীলফামারী : ডিমলায় খেলতে গিয়ে অনামিকা আক্তার (৩) নামের এক শিশু উল্টে পড়া ব্যাটারিচালিত রিকশাভ্যানের নিচে চাপা পড়ে মারা গেছে। শুক্রবার বিকেলে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। সে ওই উপজেলার খালিশাচাপানি ইউনিয়নের চারঘড়ি গ্রামের ভ্যানচালক আনোয়ার হোসেনের মেয়ে।

ঝিনাইদহ : শৈলকুপার গাড়াগঞ্জ বাজারে ঝিনাইদহ-কুষ্টিয়া মহাসড়কে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী রুপালী খাতুন (৩৫) নামের এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। তিনি পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রী। দুর্ঘটনায় তাঁর স্বামী এএসআই হামিদুল ইসলাম (৪০) ও মেয়ে হালিমা খাতুন (৪) আহত হয়েছেন। তাঁদের বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সান্দিয়ারা গ্রামে। এএসআই হামিদুল ইসলাম চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশে কর্মরত। ঈদের ছুটিতে বাড়ি এসেছিলেন তিনি।


মন্তব্য