kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লন্ডনে ২২ ঘণ্টা থেকে কানাডায় প্রধানমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



লন্ডনে ২২ ঘণ্টা থেকে কানাডায় প্রধানমন্ত্রী

কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাওয়ার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার লন্ডনে পৌঁছলে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের প্রবাসীরা তাঁকে স্বাগত জানান। এ সময় তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানা ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এক পর্যায়ে ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিকের মেয়ে আজালিয়াকে বহনকারী বেবি স্ট্রলার ঠেলে নিয়ে যান প্রধানমন্ত্রী। - ছবি : বাসস

লন্ডনে ২২ ঘণ্টার যাত্রাবিরতি দিয়ে কানাডার মন্ট্রিয়লে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ১০ মিনিটে এয়ার কানাডার একটি ফ্লাইটে লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দর ত্যাগ করেন তিনি।

পঞ্চম রিপ্লেনিশমেন্ট কনফারেন্স অব দ্য গ্লোবাল ফান্ড (জিএফ) ও জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভায় যোগ দিতে কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে ১২ দিনের সফরে বুধবার সকাল ১০টার দিকে বিশেষ বিমানে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী। পথে লন্ডনে যাত্রাবিরতি করেন তিনি। স্থানীয় সময় বিকেল ৪টার দিকে তিনি লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে পৌঁছেন। সেখানে তাঁকে স্বাগত জানান দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার খোন্দকার মোহাম্মদ তালহা।

লন্ডনের পথে প্রধানমন্ত্রী বিমানের যাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন এবং সিট ছেড়ে হেঁটে হেঁটে যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেন। লন্ডন পৌঁছে বাকিংহ্যামশায়ার স্টক পার্ক কাউন্টি হোটেলে ওঠেন তিনি। ২২ ঘণ্টার যাত্রাবিরতিতে দলীয় কোনো কর্মসূচিতে অংশ না নিলেও বুধবার বিকেলে বোনের মেয়ে ব্রিটিশ এমপি টিউলিপ সিদ্দিকের মেয়ে আজালিয়াকে কোলে নিয়ে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত সাক্ষাতে মিলিত হন শেখ হাসিনা। গতকাল সকালে লন্ডন হাইকমিশনের মিনিস্টার প্রেস নাদিম কাদির প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন বঙ্গবন্ধু লেখক ও সাংবাদিক ফোরাম প্রকাশিত এবং সুজাত মনসুর সম্পাদিত ‘মুজিব মানে মুক্তি’ শিরোনামের সদ্য প্রকাশিত একটি গ্রন্থ। বিশ্রামের ফাঁকে বাকি সময়টুকু বোন শেখ রেহানা ও তাঁর পরিবারের সঙ্গে একান্তেই কাটিয়েছেন শেখ হাসিনা।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিশেষ বিমানে রওনা দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানাতে সেখানে উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, সংসদের প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

গতকাল কানাডার উদ্দেশে রওনা হওয়ার সময় লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান ব্রিটেনে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার খোন্দকার মোহাম্মদ তালহা। এর আগে বাকিংহ্যামশায়ার স্টক পার্ক কাউন্টি হোটেল ত্যাগের সময় প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান হাইকমিশন কর্মকর্তা ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতারা।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর আমন্ত্রণে চার দিনের সরকারি সফরে শেখ হাসিনা কানাডা যাচ্ছেন। সেখানে জিএফ সম্মেলনে অংশ নেওয়া ছাড়াও দ্বিপক্ষীয় একাধিক ইভেন্টে অংশ নেবেন তিনি। জিএফ হচ্ছে এইডস, যক্ষ্মা, ম্যালেরিয়া প্রতিরোধ ও চিকিৎসা কার্যক্রম-সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক অর্থায়ন সংস্থা। এই ফান্ড গোটা বিশ্বে বিশেষ করে যেসব অঞ্চলে এসব রোগ বড় ধরনের বোঝা হয়ে উঠেছে সেখানে গুরুত্ব দিয়ে নানা কর্মসূচিতে সহায়তা দিয়ে থাকে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং জানিয়েছে, শেখ হাসিনা ১৬ সেপ্টেম্বর মন্ট্রিয়লের হায়াত রিজেন্সিতে অনুষ্ঠেয় জিএফ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। পরে বিকেলে একই হোটেলে অন্যান্য রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের সঙ্গে সম্মেলনের মিনিস্ট্রিয়াল প্লেজিং মোমেন্টের আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনায় অংশ নেবেন।

 

হায়াত রিজেন্সি মন্ট্রিয়লে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর আমন্ত্রণে আনুষ্ঠানিক নৈশভোজে অংশগ্রহণ করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর ১৭ সেপ্টেম্বর কানাডার প্রধানমন্ত্রী ও বিশ্ব তহবিলের নির্বাহী পরিচালক মার্ক দাইবালের সঙ্গে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় দিনের সম্মেলনে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। একই দিনে ‘রিমুভিং বেরিয়ার্স টু হেলথ থ্রু এমপাওয়ারিং উইমেন অ্যান্ড গার্লস অ্যান্ড রিচিং দ্য মোস্ট মার্জিনালাইজড’ শীর্ষক প্যানেল আলোচনা-১ এবং ‘এনগেজিং অ্যান্ড মোবিলাইজিং ইয়ুথ টু মিট দ্য সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোলস’ শীর্ষক প্যানেল আলোচনা-২-এ অংশ নেবেন শেখ হাসিনা।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ও গভর্নর জেনারেল ডেভিড জনস্টনের যৌথ আয়োজনে আনুষ্ঠানিক মধ্যাহ্নভোজেও অংশ নেবেন শেখ হাসিনা। পরে সম্মেলনের সমাপনী অধিবেশনে যোগ দেবেন তিনি। শেখ হাসিনা কানাডার প্রধানমন্ত্রী ট্রুডোর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হবেন এবং তাঁর হাতে ‘ফ্রেন্ডস অব লিবারেশন ওয়ার অনার’ পুরস্কার হস্তান্তর করবেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালে দ্ব্যর্থহীন সমর্থন ও অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার কানাডার তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী পিয়েরে ট্রুডোকে (জাস্টিন ট্রুডোর পিতা) মরণোত্তর এই পুরস্কার প্রদান করে। প্রধানমন্ত্রী অন্যান্য রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের সঙ্গে বিশ্ব তহবিল ও গ্লোবাল সিটিজেন আয়োজিত কনসার্টেও অংশ নেবেন।

শেখ হাসিনা স্থানীয় সময় ১৮ সেপ্টেম্বর দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে এয়ার কানাডার একটি ফ্লাইটে নিউ ইয়র্কের উদ্দেশে মন্ট্রিয়ল ত্যাগ করবেন। ওই দিনই তিনি নিউ ইয়র্কে পৌঁছবেন। সেখানে জাতিসংঘের ৭১তম সাধারণ অধিবেশনে অংশ নেবেন তিনি। নিউ ইয়র্ক ও ওয়াশিংটনে বেশ কয়েকটি কর্মসূচি সম্পন্ন করে ২৬ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর দেশে পৌঁছার কথা রয়েছে।


মন্তব্য