kalerkantho


‘আলাপন’ অ্যাপ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

১১ সেপ্টেম্বর নিয়ে ঈদের ছুটি ৬ দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



১১ সেপ্টেম্বর নিয়ে ঈদের ছুটি ৬ দিন

ঈদ সামনে রেখে ১১ সেপ্টেম্বর রবিবার সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এর ফলে শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক বন্ধসহ ঈদে সরকারি ছুটি দাঁড়াল ছয় দিনে। ১১ সেপ্টেম্বরের পরিবর্তে ২৪ সেপ্টেম্বর শনিবার সরকারি অফিস খোলা থাকবে। গতকাল সোমবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানায়। এর আগে সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়। সেখানে ১১ ও ১৫ সেপ্টেম্বর এই ছুটি দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিন্তু আলোচনার পর ১১ সেপ্টেম্বর ছুটি ঘোষণার সিদ্ধান্ত হয়। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ঈদুল আজহা পালিত হবে।

মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ঈদের ছুটি বাড়ানোর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা  হয়েছে। এ প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হলে মন্ত্রিসভার অধিকাংশ সদস্য ১১ তারিখ ছুটি দিলেই যথেষ্ট হবে বলে মত দেন। এক দিন অতিরিক্ত ছুটি ঘোষণা করা হলেই মানুষ স্বস্তি নিয়ে গ্রামে গিয়ে স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে পারবে বলে যুক্তি দেখান মন্ত্রীরা।

গত রোজার ঈদেও নির্বাহী আদেশে এক দিন ছুটি ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। আর তাতে ছুটি দাঁড়িয়েছিল টানা ৯ দিন। বাড়তি ছুটির বিষয়টি পুষিয়ে দিতে ঈদের পর এক শনিবার সরকারি অফিস-আদালত খোলা রাখা হয়েছিল।  

আলাপনে আলাপ শুরু : গোপনীয়তা রক্ষা করে সরকারি কর্মকর্তাদের নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ ও ফাইল আদান-প্রদানে দেশীয় মেসেজিং অ্যাপ ‘আলাপন’ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মন্ত্রিসভা বৈঠকের শুরুতে আইওএস এবং গুগল প্লেস্টোরে অ্যাপটি অবমুক্ত করা হয়। পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জানান, সরকারি কর্মকর্তারা নিজেরা এই অ্যাপের মাধ্যমে আলাপ করতে পারবেন। বরিশালের জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলে প্রধানমন্ত্রী এর উদ্বোধন করেন।  

সরকারি কর্মকর্তারা নিজের জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ও পে স্কেলে ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর দিয়ে বিনা মূল্যে অ্যাপটি ডাউনলোড করতে পারবেন। এর মাধ্যমে সরকারের যেকোনো কর্মকর্তা যেকোনো জায়গা থেকে একক বা গোষ্ঠীগত চ্যাটিং, ভয়েস ও ভিডিও কল, গ্রুপ কনফারেন্স ছাড়াও নথি আদান-প্রদান করতে পারবেন। এতে কর্মকর্তাদের অবস্থানও জানা যাবে।

মন্ত্রিসভা বৈঠকে খাদ্যমন্ত্রী ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী : শপথ ভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক গতকাল মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। আদালত অবমাননার দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত কামরুল ইসলাম ও মোজাম্মেল হকের মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় ১ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত হয়। তাতে বলা হয়, দুই মন্ত্রীই শপথ ভঙ্গ করেছেন। এরপর তাঁদের মন্ত্রিত্ব থাকা নিয়ে আইনজ্ঞসহ বিভিন্ন মহল প্রশ্ন তোলে।

গত ৫ মার্চ ঢাকায় ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির এক গোলটেবিল আলোচনায় খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক মীর কাসেমের রায়ের আগে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ও বিচার বিভাগের সমালোচনা করেছিলেন। এ ঘটনায় দুই মন্ত্রীর শপথ ভঙ্গ হয়েছে বলে রায় দেন আদালত।


মন্তব্য