kalerkantho


চাপের মুখে তনুর পরিবার!

গ্রামের বাড়ি থেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ মা-বাবাকে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



চাপের মুখে তনুর পরিবার!

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যা মামলা কুমিল্লা গোয়েন্দা পুলিশে (ডিবি) স্থানান্তর করা হয়েছে। পাশাপাশি র‌্যাবও মামলাটির ছায়া তদন্ত করছে।

তবে তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে কেউ কিছু জানাতে পারেনি। এ ঘটনায় একজন আটক হওয়ার খবর জানা গেলেও গতকাল শনিবার পর্যন্ত কেউই তা স্বীকার করেনি। এর মধ্যে র‌্যাব শুক্রবার রাতে তনুর পরিবারের সদস্যদের মুরাদনগরের গ্রামের বাড়ি থেকে তুলে এনে জিজ্ঞাসাবাদের পর ক্যান্টনমেন্টের বাসায় পৌঁছে দিয়েছে। পরে গতকাল সকালে ফের ডিবি পুলিশ তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করে। রাতে আরেক দফা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ ঘটনায় শঙ্কা প্রকাশ করেছেন নিহতের স্বজনরা।

অন্যদিকে কুমিল্লা সেনানিবাসে সংঘটিত তনু হত্যার প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে গতকালও বিক্ষোভ অব্যাহত ছিল। কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ হয়। দেশের বাইরে যুক্তরাজ্য, সিঙ্গাপুর ও ভারতের শান্তিনিকেতনে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

গণজাগরণ মঞ্চ আজ রবিবার সকালে ঢাকা থেকে কুমিল্লা অভিমুখে লংমার্চ কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে। আমাদের

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ :

পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, তনু হত্যা মামলাটির তদন্তভার শুক্রবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মনজুর আলমের কাছে ন্যস্ত করেন পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন। মামলার তদন্তভার গ্রহণ করার পর গতকাল সকালে কুমিল্লা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মনজুর আলম তনুর পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তিনি মামলার বাদী নিহত তনুর বাবা ইয়ার হোসেন, মা আনোয়ারা বেগম, ভাই আনোয়ার হোসেন ও চাচাতো বোন নাইজু জাহানকে বাসা থেকে নিয়ে কয়েক ঘণ্টা কথা বলেন। কুমিল্লা জেলা পুলিশ ভবনের গোয়েন্দা কার্যালয়ে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে বিকেল ৪টার দিকে তাঁরা সেনানিবাসের বাসায় চলে যান।

ওসি মনজুর আলম বলেন, ‘আমরা মামলাটির তদন্তভার পাওয়ার পর বাদী ইয়ার হোসেন আমাদের সাথে কথা বলেছেন। রবিবার (আজ) ঘটনাস্থলে যেতে পারি। ’ তিনি জানান, উল্লেখ করার মতো তথ্য এখনো তাঁরা পাননি।

এর আগে র‌্যাবের সদস্যরা শুক্রবার রাতে নিহত তনুর গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার মীর্জাপুরে যান। তাঁরা তনুর বাবা ইয়ার হোসেন ও বড় ভাই আনোয়ার হোসেন, তনুর মা আনোয়ারা বেগম, চাচাতো বোন নাইজু জাহান ও এক ভাইকে বাড়ি থেকে তুলে এনে নিজ কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরে ভোররাতে তাঁদের মুরাদনগরে পৌঁছে না দিয়ে ক্যান্টনমেন্টের বাসায় পৌঁছে দেন। তবে প্রকৃতপক্ষে কেন তাঁদের গভীর রাতে গ্রামের বাড়ি থেকে নিয়ে আসা হয়, তা জানা যায়নি। এ ব্যাপারে বক্তব্য জানার জন্য র‌্যাব-১১-এর ক্রাইম প্রিভেনশন কম্পানি-২-এর অধিনায়ক মেজর খোরশেদ আলমের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। বিষয়টি জানার জন্য তনুর পরিবারের সদস্যরা কথা বলতে রাজি হননি। তবে এক সদস্য জানিয়েছেন, তাঁরা চাপের মুখে রয়েছেন। গতকাল রাতে এ প্রতিবেদন লেখার সময়ও নাইজু জাহানকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা জিজ্ঞাসাবাদ করছিলেন বলে জানা গেছে।

এদিকে তনু হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে গণজাগরণ মঞ্চ কুমিল্লা অভিমুখে লংমার্চ কর্মসূচি দিয়েছে। রবিবার সকালে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে দুপুরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে এবং বিকেল ৩টায় পূবালী চত্বরে সমাবেশ করবে তারা।

অন্যদিকে র‌্যাবের ১২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল রাজধানীর উত্তরায় র‌্যাব সদর দপ্তরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘র‌্যাব যেকোনো ঘটনারই ছায়া তদন্ত করে। এ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। খুব শিগগির হয়তো আমরা এ বিষয়ে একটি ভালো খবর দিতে পারব। ’

অন্যান্য স্থানে প্রতিবাদ : তনু হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে কুমিল্লায় গতকালও নানা কর্মসূচি অব্যাহত থাকে। এর মধ্যে গতকাল সন্ধ্যায় নগরীর কান্দিরপাড় পূবালী চত্বরে বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের সদস্যরা প্রদীপ প্রজ্বালন করে। এতে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং বিভিন্ন এনজিও অংশ নেয়। আজ রবিবার কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধের পরিকল্পনা নিয়েছিল। পরে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মসূচির কারণে তা পিছিয়ে দেওয়া হয়। কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের খিলা বাজারে গতকাল বিকেলে ‘তনু হত্যা প্রতিবাদ কমিটি’র উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালিত হয়। এ সময় বক্তারা দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে গতকাল সকালে ‘অবিরাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র আয়োজনে মানববন্ধন হয়। শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এতে অংশ নেয়। অধ্যক্ষ সোপানুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য দেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাহিত্য একাডেমির আহ্বায়ক কবি জয়দুল হোসেন, জেলা নাগরিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রতন কান্তি দত্ত, খেলাঘর আসর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিহার রঞ্জন সরকার, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুম বিল্লাহ, ‘অবিরাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া’ সংগঠনের সভাপতি নাঈম ইসলাম সাঈফি।

মেধাবী শিক্ষার্থী সোহাগী জাহান তনু হত্যার প্রতিবাদে ও হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। সকালে জেলা শহরের স্টেডিয়াম সড়কে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এতে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ, সিটি কলেজ, সাতক্ষীরা ডে-নাইট কলেজ, টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়।

ঢাকার সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধের সামনে দুপুরে গণবিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বৃন্ত মানববন্ধন ও গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করেছে। এতে কয়েক শতাধিক সাধারণ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। পরে মানববন্ধনে উপস্থিত সবার কাছ থেকে স্বাক্ষর নেওয়া হয়।

দিনাজপুরের পার্বতীপুরের খোলাহাটিতে বীর-উত্তম শহীদ মাহবুব সেনানিবাস পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা গতকাল সকালে মানববন্ধন করে। বক্তব্য দেয় বীর-উত্তম শহীদ মাহবুব সেনানিবাস পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র মেহেদী হাসান, দ্বিতীয় বর্ষের হাসিব, সৌমিক, আলমগীর প্রমুখ।


মন্তব্য