kalerkantho


আওয়ামী লীগের বিপুল বিজয়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আওয়ামী লীগের বিপুল বিজয়

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে চেয়ারম্যান পদে বিপুল বিজয় পেয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। গতকাল মঙ্গলবার ৭১২ ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ হয়।

সর্বশেষ রাত ১২টা পর্যন্ত পাওয়া ফল অনুযায়ী, আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা ৩২০টি ইউনিয়নে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। দলটির ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীরা ২৭টিতে বিজয়ী হয়েছেন। এ ছাড়া ৩২টিতে বিএনপি ও এর ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীরা ৮টিতে জয়লাভ করেছেন। এ ছাড়া জাসদের ৪, ওয়ার্কার্স পার্টির ১, জাতীয় পার্টির ১ ও স্বতন্ত্র ২৫ প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এবারই প্রথম এই পদে দলীয়ভাবে নির্বাচন হচ্ছে।

গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ হয়। এরপরই ভোট গণনা করে ফল ঘোষণা শুরু করেন রিটার্নিং অফিসাররা। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর : ঝালকাঠি : তিন উপজেলার ৩১টি ইউনিয়নের ২৯টিতে আওয়ামী লীগ, দুটিতে দলটির ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। তাঁরা হলেন বাসন্ডা ইউনিয়নে মোবারক হোসেন মল্লিক (আ. লীগ), নথুল্লাবাদে রেজাউল কবির (আ. লীগ), গাবখান ধানসিঁড়িতে এ কে এম জাকির হোসেন (আ. লীগ বিদ্রোহী), নবগ্রামে মো. মজিবুল হক আকন্দ (আ. লীগ), গাভারামচন্দ্রপুরে গোলাম মাওলা শেরওয়ানী (আ. লীগ), শেখেরহাটে মো. নুরুল আমিন সুরুজ (আ. লীগ), বিনয়কাঠিতে মো. সাইফুল ইসলাম খান (আ. লীগ). কেওড়ায় মোয়াজ্জেম হোসেন (আ. লীগ). কীর্ত্তিপাশায় আব্দুস শুক্কুর মোল্লা (আ. লীগ), ভৈরবপাশায় নাসির উদ্দিন আহম্মেদ (আ. লীগ). মগড়ে এনামুল হক শাহীন হাওলাদার (আ. লীগ), কুলকাঠিতে এইচ এম আখতারুজ্জামান হাওলাদার (আ. লীগ), রানাপাশায় মো. মাসুদুর রহমান ছালাম (আ. লীগ). নাচনমহলে মো. সিদ্দিকুর রহমান (আ. লীগ), কুশঙ্গলে মো. আলমগীর হোসেন (আ. লীগ), সুবিদপুরে আবদুল মান্নান সিকদার (আ. লীগ). সিদ্ধকাঠিতে জেসমিন আক্তার (আ. লীগ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), দপদপিয়ায় সোহরাব হোসেন বাবুল মৃধা (আ. লীগ), মোল্লাহাটে কবির হোসেন (আ. লীগ), মঠবাড়ি ইউনিয়নে মোস্তফা কামাল সিকদার (আ. লীগ), গালুয়ায়, মো. মজিবুল হক কামাল (আ. লীগ), বড়াইয়ায় মো. শাহ আলম মিয়া (আ. লীগ), শুক্তাগড়ে মো. মজিবুল হক (আ. লীগ), সাতুরিয়ায় মো. সিদ্দিকুর রহমান (আ. লীগ) রাজাপুর সদরে আনোয়ার হোসেন মজিবর মৃধা (আ. লীগ), আওড়াবুনিয়ায় কামরুজ্জামান লিটন (আ. লীগ বিদ্রোহী), পাটিখালঘাটায় শিশির দাস (আ. লীগ) আমুয়ায় মো. আমিরুল ইসলাম (আ. লীগ), শৌলজালিয়ায় মাহামুদ হোসেন রিপন (আ. লীগ), চেঁচরিরামপুরে মো. জাকির হোসেন (আ. লীগ), কাঁঠালিয়া সদরে মো. গোলাম কিবরিয়া সিকদার (আ. লীগ)।

দিনাজপুর : হাকিমপুরের সাত ইউনিয়নের তিনটিতে আওয়ামী লীগ ও তিনটিতে বিএনপি প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। একটিতে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী। তাঁরা হলেন খট্টামাধবপাড়ায় মোখলেছুর রহমান (আ. লীগ), আলীহাটে গোলাম রসুল বাবু (আ. লীগ) ও বোয়ালদারে মেফতাহুল জান্নাত (বিএনপি), ঘোড়াঘাটে তৌহিদুল ইসলাম (বিএনপি), সিংড়ায় আব্দুল মান্নান (আ. লীগ), পাশায় কবিরুল ইসলাম প্রধান (আ. লীগের বিদ্রোহী), বোলাটিপুরে মাহফুজুর রহমান লাভলু (বিএনপি)।

কিশোরগঞ্জ : সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের ৭টিতে আওয়ামী লীগ, ২টিতে বিএনপি ও ২টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। মারিয়ায় মো. মজিবুর রহমান (আ. লীগ), দানাপাটুলীতে মো. সাখওয়াত হোসেন দুলাল (আ. লীগ), বৌলাইতে মো. আওলাদ হোসেন (আ. লীগ), বিন্নাটিতে আজহারুল ইসলাম বাবুল (আ. লীগ), চৌদ্দশততে এ বি ছিদ্দিক খোকা (আ. লীগ), মহিনন্দে মো. মনসুর আলী (আ. লীগ). কর্শাকড়িয়াইলে বদর উদ্দিন (আ. লীগ), মাইজখাপনে রোকন উদ্দিন ভূঞা (বিএনপি), রশিদাবাদে ইদ্রিছ মিয়া (বিএনপি), লতিবাবাদে শহিদুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), যশোদলে ইমতিয়াজ সুলতান রাজন (স্বতন্ত্র)।

কুষ্টিয়া : মিরপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের নির্বাচনে ৭টিতে আওয়ামী লীগ ও ৪টিতে জাসদের চেয়ারম্যান প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁরা হলেন পোড়াদাহ ইউনিয়নে ফারুকুজ্জামান জন (জাসদ), আমবাড়িয়া ইউনিয়নে মশিউর রহমান মিলন (জাসদ), কুর্ষা ইউনিয়নে ওমর আলী (জাসদ), বারুইপাড়ায় সাইদুর রহমান (জাসদ), তালবাড়িয়া ইউনিয়নে আব্দুল হান্নান (আ. লীগ), বহুলবাড়িয়া ইউনিয়নে সোহেল রানা (আ. লীগ), ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নে আব্দুস সালাম (আ. লীগ), ছাতিয়ান ইউনিয়নে জসিমউদ্দিন (আ. লীগ), মালিহাদ ইউনিয়নে আলমগীর হোসেন (আ. লীগ), আমলা ইউনিয়নে আনোয়ারুল ইসলাম (আ. লীগ) ও সদরপুর ইউনিয়নে রবিউল হক (আ. লীগ)।

ভোলা : জেলার ৩৬ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ৩৫ প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। তজুমদ্দিন উপজেলার চাঁচড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী রিয়াজ হোসেন হান্নান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। আওয়ামী লীগের নির্বাচিত প্রার্থীরা হলেন দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নে ইফতারুল হাসান স্বপন, চরখলিফা ইউনিয়নে মেহেদী হাসান মুকুর, ইয়ানুর রহমান বিপ্লব (বাপ্তা), এমদাদ হোসেন কবির (ধনিয়া), মো. বশির আহম্মদ (আলীনগর), মো. জসিম উদ্দিন (শিবপুর), লিয়াকত হোসেন মনসুর (উত্তর দিঘলদী), মো. গিয়াস উদ্দিন (পশ্চিম ইলিশা), আব্দুস সালাম মাল (ভেলুমিয়া), মো. তাজুল ইসলাম  (ভেদুরিয়া), মো. মহিউদ্দিন মাতব্বর (চরসামাইয়া), রেজাউল করিম রিয়াজ (গঙ্গাপুর), মহিবুল্লাহ মৃধা (সাচড়া), আসাদুজ্জামান বাবুল (দেউলা), আব্দুর রব কাজী (কচিয়া), কামরুল হাসান চৌধুরী (টবগী), আলমগীর চৌধুরী (হাসাননগর), নাজমুল আহসান জোবায়েদ (কুতুবা), ফজলুল হক দেওয়ান (শম্ভুপুর), মো. ফখরুল আলম জাহাঙ্গীর (চাঁদপুর), রিয়াজ হোসেন হান্নান (চাঁচড়া), মোজাম্মেল হক জমাদার (চরমাদ্রাজ), মাহবুব আলম খোকন (এওয়াজপুর), কাউছার মাস্টার (চরকলমী), ইউনুছ নসু মিয়া (জাহানপুর), আব্দুস ছালাম হাওলাদার (ঢালচর), রুহুল আমীন (নজরুলনগর), সেলিম হাওলাদার (হাজারীগঞ্জ), হেদায়েতুল ইসলাম মিন্টু (ধলীগৌর নগর), মো. শাহজাহান মিয়া (লালমোহন), শাহরিয়ার চৌধুরী দীপক (হাজিরহাট), মোশারফ হোসেন (চরপাতা), এ কে এম নাছির উদ্দিন নান্নু (মদনপুর), মনজুর আলম (মেদুয়া), ইয়াছিন লিটন (উত্তর জয়নগর), আলমগীর (দক্ষিণ জয়নগর), মেহেদী মাসুদ মুক (চরখলিফা)।

পটুয়াখালী : কলাপাড়া উপজেলার চাকামইয়া, টিয়াখালী ও নীলগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। তাঁরা হলেন যথাক্রমে হুমায়ূন কবীর কেরামত,   সৈয়দ মশিউর রহমান শিমু ও নাসির উদ্দিন মাহমুদ।

রংপুর : রংপুরের পীরগাছা উপজেলার কল্যাণী ইউনিয়নে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুর আলম।

জামালপুর : ইসলামপুর উপজেলার ইসলামপুর সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাবিবুর রহমান চৌধুরী শাহীন বিজয়ী হয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : আশুগঞ্জে দুটি ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন।   তাঁরা হলেন আড়াইসিদা ইউনিয়নে মো. সেলিম মিয়া ও দুর্গাপুর ইউনিয়নে মো. জিয়াউল করিম খান।

মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার ১০ ইউনিয়ন পরিষদেই চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। জৈনসার ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম দুদু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। বাকিরা হলেন মালখানগরে বর্তমান চেয়ারম্যান সানজিদা আক্তার জ্যোত্স্না, বাসাইলে বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম যুবরাজ, বয়রাগাদীতে গাজী মো. আলাউদ্দিন, রশুনিয়ায় বর্তমান চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন চোকদার, লতব্দী ইউপিতে এইচ এম সোহরাব হোসেন, বালুরচরে বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের আবু বকর সিদ্দিক, ইছাপুরায় বর্তমান চেয়ারম্যান মতিন হাওলাদার, কোলায় বর্তমান চেয়ারম্যান মীর লিয়াকত আলী, মধ্যপাড়ায় করিম শেখ।

খুলনা : খুলনা জেলার ৬৭টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে ৫০টিতে জয়লাভ করেছে আওয়ামী লীগ। দলটির ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী সাতটি, বিএনপি দুটি, দলটির ‘বিদ্রোহী’ দুটি ও স্বতন্ত্র পাঁচটিতে জয়লাভ করেছে। বিজয়ীরা হলেন হরিঢালীতে আবু জাফর সিদ্দিকী রাজু (স্বতন্ত্র), কপিলমুনিতে কওছার আলী জোয়ার্দার (আ. লীগ), লতায় দিবাকর বিশ্বাস (আ. লীগ), দেলুটিতে রিপন কুমার মণ্ডল (আ. লীগ), সোলাদানায় এস এম এনামুল হক (বিএনপি), লস্করে কে এম আরিফুজ্জামান তুহীন (আ. লীগ), গদাইপুরে গাজী জুনায়েদুর রহমান (স্বতন্ত্র), রাড়ুলীতে আব্দুল মজিদ গোলদার (আ. লীগ) ও গড়ুইখালীতে রুহুল আমিন বিশ্বাস (আ. লীগ), দামোদর ইউনিয়নে শরীফ মো. ভূইয়া (আ. লীগ), ফুলতলায় আবুল বাশার (বিএনপি), জামিরায় মাওলানা সাইফুর হাসান (স্বতন্ত্র-জামায়াত), আটরা গিলাতলায় শেখ মনিরুল ইসলাম (আ. লীগ), সেনহাটিতে গাজী জিয়াউর রহমান জিয়া (আ. লীগ), গাজীরহাটে মোল্লা কামাল সিদ্দিকী হেলাল (আ. লীগ), দিঘলিয়ায় মো. ফিরোজ মোল্লা (আ. লীগ), বারাকপুরে গাজী জাকির হোসেন (আ. লীগ), আজগড়ায় কৃষ্ণ মেনন রায় (আ. লীগ), বারাসাতে কে এম আলমগীর হোসেন (আ. লীগ), সাচিয়াদহে উকিল উদ্দিন লস্কর (আ. লীগের বিদ্রোহী), চাকলাদহে এস এম দীন ইসলাম (আ. লীগ) ও মধুপুরে মো. মহসীন হোসেন (আ. লীগ), তেরখাদা সদর ইউনিয়নে এস এম ওহিদুজ্জামান (আ. লীগ) বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন, আমাদিতে আমীর আলি গাইন (আ. লীগ), বাগালীতে আব্দুস ছাত্তার পাড় (আ. লীগ বিদ্রোহী) মহেশ্বরীপুরে বিজয় কুমার সরদার (আ, লীগ বিদ্রোহী), মহারাজপুরে আব্দুল্লাহ আল মামুন লাবলু (আ. লীগ), কয়রা সদরে এস এম শফিকুল ইসলাম (আ. লীগের বিদ্রোহী), উত্তর বেদকাশীতে সরদার নূরুল ইসলাম (আ. লীগ) ও দক্ষিণ বেদকাশীতে শামসুর রহমান (আ. লীগ), পানখালীতে শেখ আব্দুল কাদের (আ. লীগ), দাকোপে বিনয়কৃষ্ণ রায় (আ. লীগ), লাইডোব ইউনিয়নে স্বরজিৎ কুমার রায় (আ. লীগের বিদ্রোহী), কৈলাশগঞ্জন ইউনিয়নে মিহির কুমার মণ্ডল (আ. লীগ), ছুতারখালী ইউনিয়নে মাছুম আলী ফকির (আ. লীগ), কামারখোলায় রঘুনাথ রায় (আ. লীগ), তিলডাঙ্গায় রণজিৎ কুমার মণ্ডল (আ. লীগ), বাজুয়ায় রঘুনাথ রায় (আ. লীগ), বানিশান্তায় সুদেব কুমার রায় (আ. লীগ), আইচগাতিতে অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বাবুল (আ. লীগ), শ্রীফলতলায় ইসহাক সরদার (আ. লীগ), নৈহাটিতে কামাল হোসেন বুলবুল (আ. লীগ), টিএস বাহিরদিয়ায় মো. জাহাঙ্গীর শেখ, ডুমুরিয়ার ধামালিয়ায় রেজোয়ান হোসেন (আ. লীগ), রঘুনাথপুরে খান শাকুর উদ্দীন (আ. লীগ), রূদাঘরায় মোস্তফা কামাল খোকন (আ. লীগ), আটলিয়া ইউনিয়নে স ম আব্দুল কাইয়ুম (আ. লীগ), মাগুরাঘোনায় শেখ আবুল হোসেন (আ. লীগ), শরাফপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী শেখ রবিউল ইসলাম (আ. লীগের বিদ্রোহী), সাহসে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়নাল আবেদীন (বিএনপির বিদ্রোহী), ভাণ্ডারপাড়ায় হিমাংশু বিশ্বাস (আ. লীগ), ডুমুরিয়া সদর ইউনিয়নে হুমায়ুন কবির বুলু (আ. লীগ), রংপুর ইউনিয়নে রামপ্রসাদ জোয়াদ্দার (আ. লীগ), গুটুদিয়া ইউনিয়নে মোস্তফা সরোয়ার মোল্লা (আ. লীগ), ও মাগুরখালী ইউনিয়নে বিমল কৃষ্ণ সানা (আ. লীগ), বটিয়াঘাটা উপজেলার গঙ্গারামপুরে শেখ হাদী উজ্জামান হাদী (আ. লীগের বিদ্রোহী)।

সাতক্ষীরা : দুই উপজেলার ২১ ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগ ১২, বিএনপি ২, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ২, বিএনপির বিদ্রোহী ১, ওয়ার্কার্স পার্টি ১, জাতীয় পার্টি ১ ও স্বতন্ত্র একটিতে বিজয়ী হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর : রামগতি ও কমলনগর উপজেলার ছয় ইউপির সব কটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। তাঁরা হলেন কমলনগরের তোরাবগঞ্জে ফয়সাল আহম্মেদ, হাজিরহাটে নিজাম উদ্দিন, চরফলকনে হাজি হারুনুর রশিদ, পাটারিরহাটে এ কে এম নুরুল আমিন রাজু, রামগতির চরবাদামে সাখাওয়াত হোসেন জসিম এবং চর পোড়াগাছায় নুরুল আমিন।

বরগুনা : সদরসহ চার উপজেলার ৩৪ ইউপির মধ্যে ২৪টিতে আওয়ামী লীগ, আটটিতে স্বতন্ত্র ও দুটিতে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। সদরের বদরখালীতে শরীফ ইলিয়াস উদ্দীন আহম্মেদ (আ. লীগ), গৌরীচন্নায় মো. মনিরুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), ফুলঝুড়িতে মো. গোলাম কিবরিয়া (স্বতন্ত্র), কেওড়াবুনিয়ায় আবু হানিফ মাতবর (স্বতন্ত্র), আয়লা পাতাকাটায় খন্দকার আশশাকুর রহমান (আ. লীগ), বুড়িরচরে মো. সিদ্দিকুর রহমান (আ. লীগ), ঢলুয়ায় আবু হেনা মোস্তফা কামাল (বিএনপি), বরগুনায় গোলাম আহাদ সোহাগ (আ. লীগ), বালিয়াতলীতে মো. শাহনেওয়াজ সেলিম (আ. লীগ), নলটোনায় মো. হুমায়ূন কবির (আ. লীগ), আমতলীর গুলিশাখালীতে মো. নুরুল ইসলাম (আ. লীগ), কুকুয়ায় বোরহান উদ্দীন আহম্মেদ (আ. লীগ), আঠারোগাছিয়ায় মো. হারুন অর রশিদ (আ. লীগ), হলদিয়ায় শহিদুল ইসলাম মৃধা (আ. লীগ), চাওড়ায় আখতারুজ্জামান খান (আ. লীগ), আরপাঙ্গাশিয়ায় এ কে এম নুরুল হক (স্বতন্ত্র), পাথরঘাটার রায়হানপুরে মো. মিজানুর রহমান (আ. লীগ), নাচনাপাড়ায় মো. ফরিদ মিয়া (আ. লীগ), চরদুয়ানীতে হাফিজ উদ্দীন আহম্মেদ (আ. লীগ), পাথরঘাটায় মো. আসাদুজ্জামান (আ. লীগ), কালমেঘায় আকন মো. সহিদ (স্বতন্ত্র), কাকচিড়ায় মো. আলাউদ্দীন পল্টু (আ. লীগ), কাঁঠালতলীতে মো. শহিদুল ইসলাম (আ. লীগ), বামনার বুকাবুনিয়ায় সাইদুর রহমান সবুজ (স্বতন্ত্র), বামনায় চৌধুরী কামরুজ্জামান ছগির (আ. লীগ), রামনায় আ. খালেক (স্বতন্ত্র), ডৌয়াতলায় মোহাম্মদ মিজানুর রহমান (স্বতন্ত্র), বেতাগীর বিবিচিনিতে মো. নওয়াব হোসেন (আ. লীগ), বেতাগীতে মো. নজরুল ইসলাম (আ. লীগ), হোসনাবাদে মাকসুদুর রহমান ফোরকান (আ. লীগ), মোকামিয়ায় মো. মাহবুব আলম সুজন (বিএনপি), বুড়ামজুমদারে সৈয়দ গোলাম রব (আ. লীগ), কাজিরাবাদে মো. মোশাররফ হোসেন (আ. লীগ) ও সরিষামুড়িতে ইমাম হাসান শিপন (আ. লীগ)।

নরসিংদী : নরসিংদীর দুই উপজেলার দুই ইউপিতেই আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। তাঁরা হলেন পলাশের ডাঙ্গা ইউনিয়নে সাবেরুল হাই সাবের ও গজারিয়ায় বদরুল জামান বদু।

ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার পাঁচ ইউপির সব কটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁরা হলেন কুশনায় আব্দুল হান্নান, সাবদালপুরে নওশের আলী নাসির, বলুহরে আবদুল মতিন, দোড়ায় কাবিল উদ্দিন বিশ্বাস ও এলাঙ্গীতে মিজানুর রহমান খান।

সিলেট : সদরের আট ইউপির মধ্যে আওয়ামী লীগের দুজন, বিএনপির দুই ও দুই দলের চারজন বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। মোগলগাঁওয়ে হিরন মিয়া (আ. লীগ), খাদিমপাড়ায় মো. আফছর আহমদ (আ. লীগের বিদ্রোহী), টুলটিকরে এস এম আলী হোসেন (আ. লীগের বিদ্রোহী), টুকেরবাজারে শহিদ আহমদ (বিএনপি), কান্দিগাঁওয়ে নিজাম উদ্দিন (আ. লীগ), হাটখোলায় আজির উদ্দিন (বিএনপি), খাদিমনগরে দেলোয়ার হোসেন (বিএনপির বিদ্রোহী) ও জালালাবাদে মনফর আলী (আ. লীগের বিদ্রোহী)।

কক্সবাজার : তিন উপজেলার ১৬ ইউপির মধ্যে ১৫টির ফল পাওয়া গেছে। তার মধ্যে আওয়ামী লীগের সাতজন, বিএনপির তিনজন এবং স্বতন্ত্র পাঁচজন নির্বাচিত হয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্য আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চারজন এবং আরেকজন জামায়াত নেতা। টেকনাফের সেন্ট মার্টিনসে নুর আহমদ (আ. লীগের বিদ্রোহী), সাবরাংয়ে নুর হোসেন (আ. লীগের বিদ্রোহী), সদরে মোহাম্মদ শাহজাহান (আ. লীগের বিদ্রোহী) বাহারছড়ায় মৌলভী আজিজ উদ্দিন (আ. লীগ), কুতুবদিয়ার বড়ঘোপে অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী (আ. লীগ), আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নে নুরুচ্ছফা বিকম (আ. লীগ), লেমশীখালীতে আকতার হোসাইন (বিএনপি), দক্ষিণ ধুরুংয়ে সৈয়দ আহমদ কুতুবী (বিএনপি), কৈয়ারবিলে জালাল আহমদ (বিএনপি) এবং উত্তর ধুরুংয়ে শাহরিয়ার চৌধুরী (জামায়াত নেতা), মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে মাস্টার মোহাম্মদুল্লাহ (আ. লীগের বিদ্রোহী), কুতুবজোমে মোশাররফ হোসেন খোকন (আ. লীগ), ছোট মহেশখালীতে জিহাদ বিন আলী (আ. লীগ), হোয়ানকে মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল (আ. লীগ) ও ধলঘাটায় কামরুল হাসান (আ. লীগ)।

কিশোরগঞ্জ : সদরের ১১ ইউপির সাতটিতে আওয়ামী লীগ, দুটিতে বিএনপি ও দুটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। মারিয়ায় মো. মজিবুর রহমান (আ. লীগ), দানাপাটুলীতে মো. সাখাওয়াত হোসেন দুলাল (আ. লীগ), বৌলাইয়ে মো. আওলাদ হোসেন (আ. লীগ), বিন্নাটিতে মো. আজহারুল ইসলাম বাবুল (আ. লীগ), চৌদ্দশতে এ বি ছিদ্দিক খোকা (আ. লীগ), মহিনন্দে মো. মনসুর আলী (আ. লীগ), কর্শাকড়িয়াইলে মো. বদর উদ্দিন (আ. লীগ), মাইজখাপনে মো. রোকন উদ্দিন ভূঞা (বিএনপি), রশিদাবাদে মো. ইদ্রিছ মিয়া (বিএনপি), লতিফাবাদে মো. শহিদুল ইসলাম (স্বতন্ত্র) ও যশোদলে ইমতিয়াজ সুলতান রাজন (স্বতন্ত্র)।

গোপালগঞ্জ : টুঙ্গিপাড়ার পাঁচ ইউপির সব কটিতেই আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁরা হলেন ডুমুরিয়ায় কবির আলম তালুকদার, গোপালপুরে সুষেন সেন, পাটগাতীতে মিলন মোল্লা, কুশলীতে মো. খালিদ হোসেন ও বর্নিতে শফিকুল ইসলাম বাদশা।

এছাড়া বাগেরহাটে আওয়ামী লীগ ১৮ ইউনিয়নে জয়লাভ করেছে। সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে আওয়ামী লীগ ৭টি, বিএনপি ১টি, আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী ১টিতে নির্বাচিত হয়েছেন। কুমিল্লার দেবীদ্বারে আওয়ামী লীগ ১০, বিএনপি ২, স্বতন্ত্র ২ প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। মাদারীপুরের শিবচরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা ১৬টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন। ময়মনসিংহের ফুলপুরে আওয়ামী লীগ ৪, বিএনপি ৪ ও বিএনপির ‘বিদ্রোহী’ ২ প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। পাবনার বেড়ায় আওয়ামী লীগ ৯ ও পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় আওয়ামী লীগ ২, বিএনপি ২ ও এর ‘বিদ্রোহী’ ৩ প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।  


মন্তব্য