kalerkantho


সেই বিরাটই জেতালেন মহারণ

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সেই বিরাটই জেতালেন মহারণ

এবার ইডেনেও পাকিস্তানকে হারাল ধোনির ভারত। ছবি : মীর ফরিদ

কলম্বোর প্রেমাদাসা, মিরপুরের শেরেবাংলা, অ্যাডিলেড ওভাল কিংবা কলকাতার ইডেন গার্ডেনস। যেখানেই প্রতিপক্ষ পাকিস্তান সেখানেই চওয়া বিরাট কোহলির ব্যাট।

সেটা বিশ্বকাপ, এশিয়া কাপ কী বিশ্ব টি-টোয়েন্টি। কালও তার ব্যতিক্রম হলো না। বিরাট খেললেন ৫৫ রানের অপরাজিত ইনিংস, ভারত ৬ উইকেটে জিতল এবং ইতিহাস বইয়ের একটি পাতায় যতি চিহ্ন পড়ল। ইডেনে নির্দিষ্ট ওভারের ম্যাচে পাকিস্তান ভারতের বিপক্ষে জিতেছে সব সময়, সেটা অতীত হলো। এখন নতুন ইতিহাস, ইডেনেও সীমিত ওভারের ম্যাচে পাকিস্তান ভারতের কাছে হারে। ইতিহাস বইয়ের অন্য একটা পাতায় অবশ্য যতিচিহ্ন পড়ল না, বরং তালিকাটা লম্বা হলো। বিশ্বকাপ, বিশ্ব টি-টোয়েন্টি, কোথাও যে ভারতকে হারাতে পারল না পাকিস্তান। দিনভর বৃষ্টিতে ইডেনে খেলা হওয়া নিয়ে শঙ্কাটা কেটে গেল আকাশের কান্না থামতেই। সুপার সপার ও অন্যান্য সব প্রযুক্তি ব্যবহার করে দ্রুত মাঠ শুকিয়ে খেলার উপযোগী করা হলো। খেলা শুরুর আগে পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি দুই দেশের সাবেক চার অধিনায়ককে সম্মাননা দিলেন। এসেছিলেন ইমরান খান, শচীন টেন্ডুলকার। অমিতাভ বচ্চন তাঁর বিখ্যাত ব্যারিটোন ভয়েসে গাইলেন ‘জনগণমন’, শাফকাত আমানত আলীর গলায় পাক সার জমিন এর সঙ্গে সুর মেলালেন শহীদ আফ্রিদিরা। তবে এতসব আয়োজনের পর যে ম্যাচটা হলো তা বর্ষার দিনে মিইয়ে যাওয়া মুড়ির মতই। ‘হাইভোল্টেজ’ বা ‘মহারণ’ তকমা গায়ে থাকলেও ম্যাচটা হলো বেশ একপেশেই।  

বৃষ্টিস্নাত ইডেনে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠা টসটা জিতলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি, নিলেন বোলিং। পাকিস্তান ইনিংসের গোড়াপত্তনে পাঠাল শারজিল খান ও আহমেদ শেহজাদকে। সাবধানতার খোলসে ঢুকে দুজন যেভাবে ব্যাট করলেন, তাতে ম্যাচের তালটাই হয়ে গেল ধীর। অষ্টম ওভারের চতুর্থ বলে শারজিল যখন ২৪ বলে ১৭ রান করে আউট, দলীয় রান তখন মাত্র ৩৮! ওদিকে আগের রাতেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইংল্যান্ডের রেকর্ড গড়ে রানতাড়া করে জেতার কৃতিত্ব যখন টাটকা, এমন ব্যাটিং তো চোখ টাটাবেই। ২৮ বলে ২৫ করে শেহজাদ বিদায় নেওয়ার পর রানের গতি বাড়াতে এসেছিলেন আফ্রিদি। বাংলাদেশের বিপক্ষে আগের ম্যাচটাতেই বিস্ফোরক ইনিংস খেলেছেন, অবশ্য ভারতের বিপক্ষে তার বিশ্ব টি-টোয়েন্টিতে ব্যর্থতার রেকর্ডটা টিকে রইল। ১৪ বলে মাত্র ১ বাউন্ডারিতে ৮ রান করে হার্দিক পান্ডের বলে আউট হয়ে যান পাকিস্তান অধিনায়ক। শোয়েব মালিকের ১৬ বলে ২৬ আর উমর আকমলের ১৬ বলে ২২ রানের ইনিংসেই ১৮ ওভারে  ৫ উইকেটে ১১৮ রানের পুঁজি জমা করে পাকিস্তান।

ভারতের দুই ওপেনার, শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মা খুব একটা ভালো শুরু এনে দেননি। কিন্তু বিরাট কোহলি তো আছেন! কয় দিন আগে এশিয়া কাপেও আমিরের বলে টপ অর্ডার যখন বিধ্বস্ত, তখনো বিরাট বিরুদ্ধস্রোতে সাঁতরে দলকে নিয়ে গেছেন জয়ের উপকূলে। কাল নিজ দেশে বিরাট তো আরো আত্মবিশ্বাসী! ৩৭ বলে ৭ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ৫৫ রানে অপরাজিত ইনিংস খেলে ১১৯ রান তাড়া করাটাকে সহজ করে দিয়েছেন কোহলি। সঙ্গে পেয়ে গেছেন অভিজ্ঞ যুবরাজ সিংকেও। তাই মোহাম্মদ সামী পর পর দুই বলে ধাওয়ান ও সুরেশ রায়নাকে বোল্ড করেও খেলায় খুব একটা উত্তেজনা ফিরিয়ে আনতে পারেননি। কোহলি ও যুবরাজ মিলেই শঙ্কা কাটান, যুবরাজের বিদায়ে নামা ধোনি তো ফিনিশার হিসেবেই খ্যাত! মোহাম্মদ ইরফানের বলে ছক্কা হাঁকিয়ে পাকিস্তানের সমান রানে দলকে পৌঁছে দেন ধোনি, পরের বলে এক রান নিয়ে আবারও একবার দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন ক্যাপ্টেনকুল। ম্যাচের তখনো ১৩ বল বাকি আর হাতে ৬টা উইকেটও মজুদ। ম্যাচসেরা হয়েছেন বিরাট কোহলি, পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচসেরা হওয়াটাকে রীতিমতো অভ্যাস বানিয়ে ফেলছেন দিল্লির এই তরুণ।

ঘরের মাঠে বিশ্ব টি-টোয়েন্টিতে প্রথম জয় পেল ভারত, নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে হারের পরের গুমোট তাতে কেটেছে অনেকটাই। তবে বাংলাদেশের সঙ্গে বড় ব্যবধানে জেতায় কাল ভারতের কাছে হারলেও রানরেটে পয়েন্ট টেবিলে ভারতের ওপরেই আপাতত পাকিস্তান। দুই দলেরই এক জয় ও এক হার, ফলে পয়েন্ট ২+০.৯৯৯ নিট রানরেটে পাকিস্তান দ্বিতীয় আর -০.৮৯৫ নিট রানরেট নিয়ে ভারত তিনে।


মন্তব্য