kalerkantho

সোমবার। ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ । ১০ মাঘ ১৪২৩। ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৮।


স্কুল ছাত্র মিরাজ হত্যা মামলা

পাঁচ খুনির মৃত্যুদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা   

১৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



পাঁচ খুনির মৃত্যুদণ্ড

যশোরে শিশু রিয়াদুল ইসলাম মিরাজকে অপহরণের পর হত্যার দায়ে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া আরো চার আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার খুলনার বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. আব্দুর রব হাওলাদার এই রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেক আসামিকে ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডও দেওয়া হয়েছে।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো ঝিকরগাছা উপজেলার লাউজানি গ্রামের জাহিদ হাসান মিলন, মো. মহসিন রেজা শাহিন, মামুন চৌধুরী মুকুল, মো. রুবেল ও মো. সোহাগ। তাদের মধ্যে শাহিন ও মামুন পলাতক।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো লাউজানির পাশের গ্রাম নারায়ণঢালীর ইকবাল হোসেন, রাশিদা বেগম জানকি, আবুল কাশেম কাসু (পলাতক) ও হযরত আলী (পলাতক)। তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এই চারজনের মধ্যে আবুল কাশেম ও হযরত আলী পলাতক।

রায় ঘোষণার পর আদালতে উপস্থিত ছিল মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত পাঁচ আসামি।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২০ নভেম্বর লাউজানি গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে ঝিকরগাছা বিএম হাই স্কুলের ছাত্র রিয়াদুল ইসলাম মিরাজ অপহৃত হয়। অপহরণকারীরা পরদিন ২১ নভেম্বর মিরাজের অভিভাবকের কাছে মুক্তিপণ হিসেবে ২৫ লাখ টাকা দাবি করে। একপর্যায়ে তিন লাখ টাকায় অপহরণকারীরা মিরাজকে মুক্তি দিতে রাজি হয়। তার পরিবার দুই দফায় পাঁচ হাজার ও তিন হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে পরিশোধও করে। কিন্তু ২৩ নভেম্বর স্থানীয় একটি ঝিলের পাশ থেকে মিরাজের বাইসাইকেল এবং পাশের বাগান থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় মিরাজের বাবা মিজানুর রহমান বাদী হয়ে ২৪ নভেম্বর মামলা দায়ের করেন। ঝিকরগাছা থানার পুলিশ ২০১৪ সালের ১ জুন আদালতে এই মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করে। গত বছরের ৫ এপ্রিল মামলাটি বিচারের জন্য খুলনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। মামলায় মোট ২৮ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। রায়ে সন্তোষ জানিয়েছেন মিরাজের বাবা মিজানুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এনামুল হকও রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ক্রমবর্ধমান শিশু হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে এই রায় একটি দৃষ্টান্ত। ’ আসামিপক্ষের অন্যতম আইনজীবী অ্যাডভোকেট বেলাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেছেন, তাঁর মক্কেলের সঙ্গে কথা বলে আপিল করবেন।


মন্তব্য