পরশুরামে ভোট স্থগিত -333841 | প্রথম পাতা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১১ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৩ জিলহজ ১৪৩৭


পরশুরামে ভোট স্থগিত

দুই এমপিকে এলাকা ত্যাগের নির্দেশ

বিশেষ প্রতিনিধি   

৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



পরশুরামে ভোট স্থগিত

নির্বাচন কমিশন (ইসি) ফেনীর পরশুরাম উপজেলার তিন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার কমিশন এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পাশাপাশি সেখানে কিভাবে আওয়ামী লীগের তিনজন চেয়ারম্যান প্রার্থী, ১৫ জন সদস্য ও আটজন সংরক্ষিত সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারলেন সেটাও তদন্ত করবে বলে জানিয়েছে। এ বিষয়ে দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি করতে যাচ্ছে কমিশন।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগের দুই সংসদ সদস্যকে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচার চালানোর অভিযোগে সংশ্লিষ্ট এলাকা ত্যাগের নির্দেশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি।

ইসি সূত্র জানায়, আজ বুধবার পরশুরামের ভোট স্থগিত ও দুই সংসদ সদস্যকে এলাকা ত্যাগের চিঠি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কাছে পাঠানো হবে।

দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠেয় পরশুরাম উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটের আগেই এই উপজেলায় মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়সীমা এক দিন বাড়ানোর পরও আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোনো দল বা নির্দলীয় প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেননি।

এর আগে ইউপি নির্বাচনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দিতে বাধা দেওয়া, জনমনে ভীতি সঞ্চার এবং নির্বাচন কমিশন ও সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার দায়ে ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবদুল আলিমকে বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। গত রবিবার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব লুত্ফুন নাহার স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে তাঁকে বরখাস্ত করা হয়।

নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার, রিটার্নিং অফিসারকে তালিকা ধরিয়ে দিয়ে সে তালিকার বাইরে কাউকে মনোনয়নপত্র না দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি, উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় ভাঙচুর—এসব অভিযোগে নির্বাচন কমিশন গত ২ মার্চ স্থানীয় সরকার বিভাগের কাছে ওই উপজেলা চেয়ারম্যানকে বরখাস্তের সুপারিশ করে। এ ছাড়া ফেনীর পুলিশ সুপারকে তাঁর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। কমিশনের এই পদক্ষেপের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে বরখাস্ত করার পাশাপাশি তাঁর বিরুদ্ধে মামলাও করা হয়েছে।

গতকাল আওয়ামী লীগের দুই সংসদ সদস্যকে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচার চালানোর অভিযোগে সংশ্লিষ্ট এলাকা ত্যাগের নির্দেশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি। এই দুই সংসদ সদস্য হলেন বরগুনা-২ আসনের শওকত হাচানুর রহমান রিমন এবং পাবনা-২ আসনের খন্দকার আজিজুল হক আরজু। এর আগে পৌরসভা নির্বাচনেও বরগুনা-২ আসনের সংসদ সদস্য রিমনকে আচরণবিধি লঙ্ঘনের কারণে ইসি কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিল। জবাবে সংসদ সদস্য রিমন লিখিতভাবে দুঃখ প্রকাশ করেন এবং তিনি সশরীরে কমিশনে গিয়ে এর পুনরাবৃত্তি না ঘটানোর বিষয়ে অঙ্গীকার করে আসেন।

এ বিষয়ে গতকাল রাতে নির্বাচন কমিশনার আবু হাফিজ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কমিশন সব জায়গায় অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতে চায়। পরশুরামের তিনটি ইউপির ভোট স্থগিতের সিদ্ধান্ত হয়েছে। তদন্ত করে দেখা হবে—সেখানে কেন অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হয়নি।’ দুই সংসদ সদস্যকে এলাকা ত্যাগের নির্দেশ দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেন এ নির্বাচন কমিশনার।

মন্তব্য