পেইচিংয়ে মামলা ঢাকায় হামলা-332330 | প্রথম পাতা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৫ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৭ জিলহজ ১৪৩৭


পেইচিংয়ে মামলা ঢাকায় হামলা

আবুল কাশেম ও ওমর ফারুক   

৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



পেইচিংয়ে মামলা ঢাকায় হামলা

সাভারে ট্যানারি পল্লীতে কেন্দ্রীয় বর্জ্য পরিশোধনাগার (সিইটিপি) নির্মাণ নিয়ে সেখানে কর্মরত চীনা নাগরিকরা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছে। চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান লিং ঝিয়ানঝু সম্প্রতি ঢাকায় এসে ছয়জন চীনা সহযোগীকে নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির স্থানীয় প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত মিন ঝু নামের আরেক চীনা নাগরিকের বনানীর বাসায় হামলা করেছেন; মিথ্যা তথ্য দিয়ে পুলিশ নিয়ে চেষ্টা করেছেন সিইটিপির নথিপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার। এ ছাড়া ট্যানারি পল্লী থেকে সিইটিপি নির্মাণের লাইন বিচ্ছিন্ন করা, অন্যান্য যন্ত্রপাতি সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টাও করেছেন তাঁরা। এমনকি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাব জব্দ করার ব্যবস্থাও করেছেন। সাভারের নির্মাণকাজকে কেন্দ্র করে চীনেও মিন ঝুর নামে মামলা করেছেন লিং ঝিয়ানঝু; স্থগিত করানো হয়েছে মিন ঝুর ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাব।

জানা গেছে, চেয়ারম্যান ঝিয়ানঝু সাভারের কাজে নিম্নমানের মালামাল গছিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় প্রতিনিধি মিন ঝু তাতে বাদ সাধেন। মূলত এই নিয়েই দুজনের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়।

চীনাদের এই অন্তর্দ্বন্দ্ব ও সিইটিপি নির্মাণকাজ সচল রাখার স্বার্থে বিষয়টি নিয়ে ‘বিশেষ জরুরি বৈঠক’ করেছে শিল্প মন্ত্রণালয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী স্থানীয় প্রতিনিধি মিন ঝুর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ঢাকা মহানগরের সব থানা পুলিশকে নির্দেশ দিতে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়াকে অনুরোধ করেছে শিল্প  মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া বিধিবহির্ভূত কর্মকাণ্ড থেকে চীনা নাগরিকদের বিরত থাকার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিষয়টি ঢাকায় অবস্থিত চীনা দূতাবাস এবং চীনে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসকে জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে সাভারের ট্যানারি পল্লীতে সিইটিপি, এসটিপি ও এসপিজিএসের নির্মাণকাজের ঠিকাদারি পায় চীনের ‘ঝিয়াংসু লিংঝি এনভায়রনমেন্টাল প্রটেকশন কম্পানি লিমিটেড’ (জেএলইপিসিএল) এবং বাংলাদেশের ‘ডেভেলপমেন্ট কনস্ট্রাকশন লিমিটেড’ (ডিসিএল)-এর সমন্বয়ে গঠিত জেএলইপিসিএল-ডিসিএল জেভি। ২০১২ সালের ১১ মার্চ তাদের কার্যাদেশ দেওয়া হয়। তখন থেকেই স্থানীয় প্রতিনিধি মিন ঝু সিইটিপি নির্মাণকাজে দক্ষ জনবল নিয়োজিত করা, ইপিএস ও পাইপলাইন নির্মাণকাজ যথাসময়ে শুরু এবং দরপত্রের শর্ত মেনে মালামাল শিপমেন্টের জন্য জেএলইপিসিএলের চেয়ারম্যান লিং ঝিয়ানঝুকে অনুরোধ করলেও তিনি কোনো সাড়া দিচ্ছিলেন না। বরং দরপত্রের শর্ত না মেনে তিনি নিম্নমানের মালামাল পাঠাচ্ছিলেন। এ অবস্থায় মিন ঝুর সহযোগিতায় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান বিআরটিসি, বুয়েট ও বিসিকের তত্ত্বাবধানে ইতিমধ্যে সিভিল কাজের ৮৫ শতাংশ সম্পন্ন হয়।

মিন ঝু শিল্প মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছেন, এ অবস্থার মধ্যে লিং ঝিয়ানঝু বিভিন্ন সময় প্রকল্প বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত করতে তাঁকে হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিলেন। তাতেও কাজ না হওয়ায় গত ২৭ জানুয়ারি সশরীরে ঢাকায় আসেন লিং ঝিয়ানঝু। তিনি এ দেশে কর্মরত তাঁর সহযোগী লিং মেইঝিন, লিং ঝিয়ানর্মি, লিং ঝিনান, ঝিয়া দাহাই, কিয়ান্স ওয়েনহং ও কাও ঝুয়েকে নিয়ে গত ১০ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টার দিকে মিন ঝুর বনানীর বাসায় জোর করে ঢোকার চেষ্টা করেন। ব্যর্থ হয়ে একই দিনে দুপুরে বনানী থানায় গিয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে পুলিশ এনে আবারও মিন ঝুর বাসায় ঢুকে সিইটিপির নথিপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। তবে পুলিশ এ কাজে সহযোগিতা করেনি।

এ প্রসঙ্গে বনানী থানার ওসি সালাউদ্দিন খান কালের কণ্ঠকে বলেন, এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। তবে উভয় পক্ষ পরস্পরের বিরুদ্ধে জিডি করেছে।

সাভার ট্যানারি পল্লী প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আবদুল কাইয়ুম জানান, প্রকল্প এলাকায় একটি পুলিশ ফাঁড়ি রয়েছে। পুলিশ সদস্যরা সারাক্ষণ প্রকল্প এলাকায় টহল দিচ্ছেন। তবে জেএলইপিসিএলের চেয়ারম্যান লিং ঝিয়ানঝু গত ২৭ জানুয়ারি বাংলাদেশে আসার পর থেকে তাঁর কতিপয় সহযোগীর সিইটিপির পাইপলাইন স্থাপন বন্ধ করা, নির্মাণ যন্ত্রপাতি প্রকল্প এলাকা থেকে সরিয়ে নেওয়া, জেএলইপিসিএল-ডিসিএল জেভির ব্যাংক হিসাব স্থগিত করা এবং মিন ঝুকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করা ও সরাসরি হুমকি দেওয়ার কারণে সিইটিপির নির্মাণকাজ চরমভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে।   

শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত ‘বিশেষ জরুরি বৈঠকের’ কার্যবিবরণী বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, দরপত্রের শর্ত মেনে বিআরটিসি ও বুয়েট অনুমোদিত তালিকা অনুযায়ী জেএলইপিসিএল যন্ত্রপাতি সরবরাহ না করে বরং কম দামের যন্ত্রপাতি সরবরাহ করছিল। যেমন, স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী স্টেইনলেস স্টিল (এসএস) সরবরাহ করার কথা থাকলেও সাধারণ স্টিলের (এমএস) ও নিম্নমানের যন্ত্রপাতি সরবরাহের সিদ্ধান্তে অটুট থাকে লিং ঝিয়ানঝু। এমনকি বুয়েট ও বিআরটিসির দুজন অধ্যাপকসহ চার সদস্যের প্রতিনিধিদল চীনে গিয়ে লিং ঝিয়ানঝুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাঁকে দরপত্র অনুযায়ী মালামাল সরবরাহের অনুরোধ করলেও তিনি তা মানেননি। এরই মধ্যে নিম্নমানের যন্ত্রপাতির কয়েকটি চালান এলে বুয়েট ও বিসিক তা গ্রহণ করেনি।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, তারপর থেকেই জেএলইপিসিএল সিইটিপির নির্মাণকাজ বাস্তবায়নে সহযোগিতার বদলে নানাভাবে বিঘ্ন ঘটানোর অপচেষ্টা করছে। নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সভায় লিং ঝিয়ানঝুকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও তিনি তাতে হাজির হননি। আরো নানা অভিযোগ রয়েছে লিং ঝিয়ানঝুর বিরুদ্ধে। ২০১২ সালের এপ্রিল মাসে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবৈধভাবে ৭০ হাজার ডলার বহন করার অপরাধে ধরা পড়েন তিনি। তিনি ২০ শতাংশ জরিমানা দিয়ে ছাড়া পান।

মিন ঝু বলেছেন, গত ১১ ফেব্রুয়ারি কোনো রকম কারণ দর্শানো ছাড়াই জেএলইপিসিএল-ডিসিএল জেভির ব্যাংক হিসাবটি বন্ধ করে দেওয়ায় কর্মচারীদের মজুরি ও মালামালের ব্যয় মেটানো সম্ভব হচ্ছে না। এতে সিইটিপি নির্মাণকাজ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এ ছাড়া সিইটিপির যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য যে এলসি খোলা হয়েছে, তার বিপরীতে যাতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সরবরাহ করতে না পারে, সে জন্য চীনে অবস্থিত বিভিন্ন সরবরাহকারী ভেন্ডর ও তাঁর বিরুদ্ধে চীনা আদালতে লিং ঝিয়ানঝু ও তাঁর লোকজন মামলা করেছে। চীনে মিন ঝুর ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবটিও স্থগিত করা হয়েছে। 

যৌথ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাব দ্রুত খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের মহাব্যবস্থাপক দেবপ্রসাদ দেবনাথ। তিনি জানান, একটি বিশেষ মহলের একতরফা অভিযোগের ভিত্তিতে সাময়িকভাবে জেএলইপিসিএল-ডিসিএল জেভির ব্যাংক হিসাব স্থগিত করা হয়। প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে হিসাবটি অতি দ্রুত খুলে দেওয়া হবে।

মন্তব্য