kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কিছু জায়গায় আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাপক অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি   

৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



কিছু জায়গায় আচরণবিধি লঙ্ঘনের ব্যাপক অভিযোগ

কয়েকটি এলাকায় মনোনয়নপত্র জমা দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ, বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষ ও সরকারি দলের মনোনয়নবঞ্চিতদের বিক্ষোভ প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে গতকাল ইউপি নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া সম্পন্ন হয়েছে। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যানুসারে বেশির ভাগ এলাকায় উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়।

কিছু এলাকায় ব্যাপকভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনাও ঘটে। বেশ কয়েকটি ইউপিতে বিএনপির প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র দাখিল করেননি। ফলে প্রথম ধাপের মতো দ্বিতীয় ধাপেও আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এ ছাড়া প্রথম ধাপের নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিনে গতকাল বেশ কয়েকটি ইউপিতে সরকারি দলের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন।

এদিকে নির্বাচন কমিশন গতকাল রাত পর্যন্ত মনোনয়নপত্র দাখিল, প্রত্যাহার এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাওয়াদের কোনো তথ্য জানাতে পারেনি।

যশোর : চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ায় যশোর জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও চূড়ামনকাঠি ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুস সাত্তারকে গতকাল বুধবার তাঁর কার্যালয়ে তালাবদ্ধ করে রাখেন প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগের প্রার্থী। পরে পুলিশ গিয়ে তালা ভেঙে তাঁকে উদ্ধার করেছে বলে দাবি ওই প্রার্থীর।

বুধবার দুপুরে যশোর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু তাঁদের প্রার্থীকে তালাবদ্ধ করে রাখার অভিযোগ করে বলেন, ‘শুধু চূড়ামনকাঠিই নয়, যশোর সদর ও মণিরামপুর উপজেলার সব কটি ইউনিয়নে আমাদের প্রার্থীদের বাধা দেওয়া হয়েছে। ফলে প্রার্থীরা ঠিকমতো গণসংযোগ করতে পারছেন না। মোবাইল ফোনে হুমকি-ধমকি দেওয়া হচ্ছে। ’ তিনি সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে এই সন্ত্রাসীদের দ্রুত আটকের দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলন চলাকালে দুপুর সোয়া ২টার দিকে পুলিশ পাহারায় আবদুস সাত্তার প্রেসক্লাবে উপস্থিত হন।

তবে, এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রতিপক্ষ প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল মান্নান মুন্না। তিনি বলেন, ‘প্রতিবার নির্বাচনের আগে আবদুস সাত্তার এমন নাটক করে থাকেন। ’ যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। ’

বগুড়া : বগুড়া ও সোনাতলা উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে এক হাজার ১১২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ১১০ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৭৭০ জন এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ২৩২ জন। এর মধ্যে শিবগঞ্জ উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৭৮ জন ও সোনাতলায় চেয়ারম্যান পদে ৩২ জন রয়েছেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় ব্যাপকভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাঁদের মধ্যে সরকারি দলের প্রার্থীরাই বেশি আচরণবিধি ভঙ্গ করছেন। নিয়ম অনুযায়ী মাত্র পাঁচজন ভোটার-সমর্থক নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে। কিন্তু সেখানে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে হাজার-হাজার ভোটার সমর্থক নিয়ে মিছিল ও শোডাউন এবং মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা করে তাঁরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

বগুড়ার শিবগঞ্জে সরকারদলীয় মনোনীত প্রার্থীরা আচরণবিধি ভঙ্গ করে শত শত বাস, ট্রাক, প্রাইভেট কার, মাইক্রো, মোটরসাইকেল, শ্যালো ইঞ্চিনচালিত ভটভটি, অটোরিকশাযোগে হাজার হাজার ভোটার-সমর্থক নিয়ে প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র দাখিল করেন।

বিএনপি প্রার্থী মনোনয়ন জমা দেননি!

কিশোরগঞ্জ :  কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলায় একজন চেয়ারম্যান ও একজন সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। এ উপজেলার দিঘিরপাড় ইউনিয়নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ফজলুল হককে বিএনপিদলীয় চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী পদে মনোনয়ন দেয়। ফজলুল হক বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত মজিবুর রহমান মঞ্জুর ভাতিজা। অজ্ঞাত কারণে ফজলুল হক মনোনয়নপত্র জমা দেননি।

জয়পুরহাট : জয়পুরহাট সদর উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে ৯টি ইউনিয়নের মধ্যে দুটি ইউনিয়ন—ধলাহার ও দোগাছিতে আওয়ামী লীগের  চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে চলেছেন। ধলাহারে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ফয়েজ উদ্দিন ও দোগাছি ইউনিয়নে জহুরুল ইসলাম। ওই দুই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আর কোনো প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করেননি।

এদিকে এ জেলার জামালপুর ও পুরানাপৈল ইউনিয়নে বিএনপিদলীয় কোনো প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করেননি। জামালপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাসানুজ্জামান মিঠু ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোর্শেদ আলম স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়ন দাখিল করেছেন। আর পুরানাপৈলে আওয়ামী লীগ মনোনীত খোরশেদ আলম এবং স্বতন্ত্র হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান শফিউল আলম ও নিখিল চন্দ্র মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। জামালপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম অভিযোগ করেন গত সোমবার নির্বাচনী অফিস থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে ফেরার পথে কয়েক যুবক জোর করে মনোনয়নপত্র কেড়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলে। পরবর্তী সময়ে নির্বাচনে প্রার্থী না হওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে তাঁকে ভয়ভীতি ও হুমকি দেওয়া হয়। যার ফলে তিনি পর পর দুবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হয়েও এবার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

একইভাবে ধলাহার ইউনিয়ন পরিষদের দুবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হোসেন কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, হয়রানি ও প্রচণ্ড চাপের কারণে তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য হয়েছেন।

জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য মোজাহার আলী প্রধান জানান, মনোনয়নপত্র কেড়ে নেওয়াসহ অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ভয়ভীতি ও প্রকাশ্যে হুমকি দেওয়ার কারণে চারটি ইউনিয়নে বিএনপির কোনো প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পারেনি।

গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার হিরন ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত দুই প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

মাদারীপুর : মাদারীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় অনিয়ম ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের মতামতের তোয়াক্কা না করার অভিযোগ এনে প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন মনোনয়নবঞ্চিত নেতাকর্মীরা।

শিবচরে সংঘর্ষে আহত ১৫ : মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নে দুই ইউপি সদস্যের সমর্থকদের বক্তব্যের জের ধরে মঙ্গলবার রাতে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে তিনজন নারীসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে।

মেহেরপুর : মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার চারটি ইউনিয়নে মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনে আওয়ামী লীগের সাতজন বিদ্রোহী প্রার্থীসহ চেয়ারম্যান পদে ২৪ জন, সংরক্ষিত (নারী) সদস্য পদে ৪২ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ১৩৭ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন মহাজনপুর ইউনিয়নের মিসকিন আলী, বাগোয়ান ইউনিয়নে আব্দুর রাজ্জাক, আক্কাস আলী, দারিয়াপুর ইউনিয়নে তৌফিকুল বারি বকুল, আসাদুল হক, মোনাখালীতে শফিকুল ইসলাম মোল্লা ও মফিজুল ইসলাম। জামায়াত থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোনাখালীতে খানজাহান আলী, দারিয়াপুরে আওলাদ হোসেন এবং বাগোয়ানে সেলিম খান মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। জাতীয় পার্টি (মঞ্জু) থেকে দারিয়াপুর ইউনিয়নে একমাত্র মওলাদ আলী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার তিন ইউনিয়নের সাধারণ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিনে গতকাল বুধবার ব্যাপক উৎসবমুখর পরিবেশে প্রার্থীরা শো-ডাউন করে তাঁদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এতে তিন ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১২ জন, সংরক্ষিত নারী সদস্য ৫১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৯৮ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এদিকে উপজেলার মোহনগঞ্জ ইউনিয়নে সদ্য জাতীয় পার্টি থেকে আওয়ামী লীগে যোগদানকৃত আব্দুল বারী সরকারকে মনোয়ন দেওয়ার কারণে দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পাওয়ার কারণে অভিমান করে দল ত্যাগ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক কামরুল আলম বাদল। পরে তিনি জাতীয় পার্টিতে যোগদান করে মনোনয়ন নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন।

চাঁদপুর : চাঁদপুর সদরের ১২টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ২৪ জন এবং হাইমচরের ছয়টি ইউনিয়নে এই দুই দলের ১২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে দুই নারীসহ ৬০ জন চেয়ারম্যান ও ৫১৯ জন সদস্য প্রার্থী উৎসবমুখর পরিবেশে পৃথক পৃথক রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এ সময় প্রার্থীরা তাঁদের কর্মী-সমর্থক নিয়ে বিশাল শো-ডাউন করে নিজেদের শক্তির মহড়া দেন।

প্রত্যাহার : এদিকে প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচনে বরিশাল জেলার ১০ উপজেলার ৭৪ ইউনিয়নে নির্বাচনে বৈধ ৩৭৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে গতকাল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ৪৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী তাঁদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

এদের মধ্যে বরিশাল সদর উপজেলা থেকে একজন, বাকেরগঞ্জ উপজেলা থেকে ৯ জন, বাবুগঞ্জ উপজেলা থেকে পাঁচজন, হিজলা উপজেলা থেকে চারজন, বানারীপাড়া থেকে সাতজন, মেহেন্দীগঞ্জ থেকে তিনজন, মুলাদী থেকে পাঁচজন, গৌরনদী থেকে তিনজন, উজিরপুর দুজন এবং আগৈলঝারা থেকে চারজন।

বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার উদয়কাঠী ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রাহাত আহম্মেদ ননী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলায় ১২টি ইউনিয়নে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২ মার্চ বুধবার চার চেয়ারম্যান ও ১২ সদস্যসহ ১৬ জন প্রার্থী তাঁদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছেন।

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় তিনজন ও গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় চারজন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে রয়েছে। টুঙ্গিপাড়া উপজেলার পাটগাতী, বর্ণি ও কুশলী ইউনিয়নে অন্য প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন নিয়েছেন।


মন্তব্য