বেঁধে বালিশচাপা দিয়ে মারে সত্ভাই-331140 | প্রথম পাতা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১২ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৪ জিলহজ ১৪৩৭


সহোদর দুই শিশু খুন

বেঁধে বালিশচাপা দিয়ে মারে সত্ভাই

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা   

২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বেঁধে বালিশচাপা দিয়ে মারে সত্ভাই

কুমিল্লা শহরের দুই শিশু সহোদরকে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত তাদের সত্ভাই আল সফিউল ইসলাম ছোটনকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার রাত ১০টার দিকে শান্তিনগরের টুইন টাওয়ারের সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন কুমিল্লার পুলিশ সুপার মো. শাহ আবিদ হোসেন। তিনি জানান, জিজ্ঞাসাবাদে ছোটন স্বীকার করেছে, সে একাই ওই দুই শিশুকে রশিতে বেঁধে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে।

গত শনিবার কুমিল্লা শহরের ঢুলিপাড়া চৌমুহনী এলাকার নিজ বাড়িতে মুদি দোকানি আবুল কালামের শিশুপুত্র হলিচাইল্ড আইডিয়াল স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্র মেহেদী হাসান জয় (৭) ও নার্সারির ছাত্র মেজবাউল হক মনি (৬) হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহত দুই শিশুর মা রেখা বেগম বাদী হয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানায় তাঁর সতিনের ছেলে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির বিবিএর ছাত্র আল সফিউল ইসলাম ছোটনকে আসামি করে মামলা করেন। ঘটনার পর থেকেই ছোটন পলাতক ছিল।

গতকাল বিকেলে ছোটনকে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে সে ১৬৪ ধারায় স্বীরোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলেও পুলিশ জানিয়েছে।

গতকাল সকালে কুমিল্লা পুলিশ অফিসে সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলী আশ্রাফ ভূঁইয়ার নেতৃত্বে কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল ঢাকা থেকে ছোটনকে গ্রেপ্তার করে। জিজ্ঞাসাবাদে ছোটন জানিয়েছে, তার বাবা আবুল কালাম ১০ বছর আগে তার মা রোকেয়া বেগমকে রেখে আরেকটি বিয়ে করে। সেই থেকে তার বাবা ও সত্মা তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ শুরু করে। সম্প্রতি পৈতৃক সম্পত্তি থেকে তাদের বঞ্চিত করা হবে বলেও শুনতে পায়। এসব ক্ষোভের কারণেই সে তার ছোট দুই সত্ভাইকে হত্যা করেছে।

নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, জয় ও মনিকে হত্যার পর ছোটন ঢাকায় পালিয়ে গিয়ে প্রথমে ধানমণ্ডির ১৫ নম্বরে একটি মেসে ওঠে। সেখানে তার বন্ধুরা তাকে আত্মগোপন করতে বলে। এরপর সে একটি মসজিদে দুই রাত কাটায়। সেখান থেকে নতুন নেওয়া মোবাইল ফোনে সে মেসের বন্ধুদের সঙ্গে কথাও বলে। ফোনের সূত্র ধরেই গোয়েন্দা পুলিশ তাকে শান্তিনগরের টুইন টাওয়ারের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করে গভীর রাতেই কুমিল্লায় নিয়ে আসে।

মন্তব্য