kalerkantho


জানা-অজানা

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর

[পঞ্চম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের কথা উল্লেখ আছে]

আব্দুর রাজ্জাক   

৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধসংক্রান্ত নিদর্শন ও স্মারকচিহ্ন সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের এক অন্যতম স্থান মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। কয়েকজন সমাজনেতার ব্যক্তিগত উদ্যোগে ১৯৯৬ সালের ২২ মার্চ ঢাকার সেগুনবাগিচার একটি ভাড়াবাড়িতে জাদুঘরটির যাত্রা শুরু হয়। ২০১৭  সালের ১৬ এপ্রিল জাদুঘরটি নতুন ভবনে (এফ-১১/এ-বি, সিভিক সেক্টর, আগারগাঁও) স্থানান্তর করা হয়েছে। আগারগাঁও পঙ্গু হাসপাতালের উল্টো দিকে চক্ষু বিজ্ঞান হাসপাতালের পাশে যার অবস্থান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাদুঘরটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। তিনি ২০১১ সালের ৪ মে জাদুঘরটির ভিত্তিপ্রস্তরও স্থাপন করেছিলেন।

জাদুঘরটিতে মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদদের ব্যবহৃত সামগ্রী, অস্ত্র, দলিল, চিঠিপত্র ইত্যাদি মিলিয়ে ১৭ হাজারের বেশি নিদর্শন রয়েছে। ৯ তলাবিশিষ্ট ভবনটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১০২ কোটি টাকা। ভবনের ভূগর্ভস্থ তিনটি তলায় রয়েছে কার পার্কিং, আর্কাইভ, ল্যাবরেটরি, প্রদর্শনশালা। নিচতলায় জাদুঘর কার্যালয় ও মিলনায়তন। জাদুঘরটির প্রথম তলায় রয়েছে একটি যুদ্ধবিমান। এ ছাড়া রয়েছে বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার ব্রোঞ্জ ভাস্কর্য। ছাদের সঙ্গে আটকানো রয়েছে মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত হেলিকপ্টার ও একটি বিমান। দ্ব্বিতীয় তলায় গবেষণাকেন্দ্র, পাঠাগার। তৃতীয় ও চতুর্থ তলায় চারটি মূল প্রদর্শনকক্ষ। পঞ্চম তলায় আন্তর্জাতিক প্রদর্শনকক্ষ।

    


মন্তব্য