kalerkantho

জানা-অজানা

ইব্রাহীম খাঁ

[ষষ্ঠ শ্রেণির আনন্দপাঠ বইয়ে ইব্রাহীম খাঁর কথা উল্লেখ আছে]

হাবিব তারেক   

২ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



ইব্রাহীম খাঁ

শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ইব্রাহীম খাঁর (১৮৯৪-১৯৭৮) জন্ম টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার তৎকালীন বিরামদী (বর্তমান নাম শাবাজনগর) গ্রামে। তিনি ‘প্রিন্সিপাল ইব্রাহীম খাঁ’ নামেও পরিচিত। ১৯১২ সালে এন্ট্রান্স (প্রবেশিকা বা মাধ্যমিক) এবং ১৯১৪ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে ভর্তি হন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ১৯১৯ সালে এমএ পাস করে শিক্ষকতা শুরু করেন। করটিয়ার জমিদারের আর্থিক সহযোগিতায় করটিয়া সাদ’ত কলেজ প্রতিষ্ঠিত হলে ইব্রাহীম খাঁ সেখানে প্রিন্সিপাল হিসেবে যোগ দেন। ১৯৪৮ থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত তিনি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ছিলেন। কাজের ফাঁকে সময় বের করে তিনি লেখালেখি করতেন। তাঁর লেখা বইয়ের তালিকায় আছে—স্মৃতিকথা, প্রবন্ধ, নাটক, ভ্রমণকাহিনি, রসরচনা, গল্প, উপন্যাস, ইতিহাস ও জীবনচরিত, শিশু সাহিত্য, অনুবাদ ও পাঠ্য বই। তাঁর উল্লেখযোগ্য বই—

কামাল পাশা (১৯২৭), আনোয়ার পাশা (১৯৩৯), ঋণ পরিশোধ (১৯৫৫), ইস্তাম্বুল যাত্রীর পত্র (১৯৫৪), বাতায়ন (১৯৬৭), ব্যাঘ্র মামা (১৯৫১), বেদুইনদের দেশে (১৯৫৬)। ১৯৬৩ সালে তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার এবং ১৯৭৬ সালে একুশে পদক পান। পাকিস্তান আমলে ‘সিতারা-ই-ইমতিয়াজ’ এবং ব্রিটিশ আমলে তাঁকে ‘খান সাহেব’ ও ‘খান বাহাদুর’ উপাধি দেওয়া হয়। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে তাঁর নামে একটি কলেজ আছে।

 

 


মন্তব্য