kalerkantho


এইচএসসি প্রস্তুতি ♦ সমাজবিজ্ঞান প্রথম পত্র

সৃজনশীল প্রশ্ন

মরিয়ম বেগম, সহকারী অধ্যাপক, আবদুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজ, নরসিংদী   

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



এইচএসসি প্রস্তুতি ♦ সমাজবিজ্ঞান প্রথম পত্র

ষষ্ঠ অধ্যায়

নিচের চিত্রটি দেখে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

ক) ‘নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর’—কে বলেছেন?

খ) অর্থনীতির ওপর সংস্কৃতির প্রভাব ব্যাখ্যা করো।

গ) চিত্রে ‘?’ চিহ্নিত স্থানে সমাজজীবনে প্রভাব বিস্তারকারী কোন উপাদানের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে? ব্যাখ্যা করো।

ঘ) সমাজজীবনের ওপর চিত্রে উল্লিখিত উপাদানটির প্রভাব পর্যালোচনা করো।

উত্তর :

ক) হানটিংটন বলেন, ‘নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর।’

খ) সমাজজীবনে অর্থনীতি বা অর্থব্যবস্থার ওপরও সাংস্কৃতিক উপাদানের প্রভাব অপরিসীম। কাজের সূচনার মাধ্যমে সমাজে যখন স্থিতিশীলতার সৃষ্টি হয়, তখন মানুষের মধ্যে অর্থনৈতিক সচ্ছলতার আগমন ঘটে। আবার যখন শিল্পসমাজের উত্তরণ ঘটে তখন ব্যক্তিগত মালিকানার প্রভাবে অর্থব্যবস্থার উন্নয়নে মানুষ তৎপর হয়ে ওঠে। এর মূল কারণ হিসেবে সাংস্কৃতিক উপাদানই সক্রিয়ভাবে সমাজকে প্রভাবিত করেছে। তাই অর্থব্যবস্থার উন্নয়ন ও গতি-প্রকৃতিকে সাংস্কৃতিক উপাদানই প্রভাবিত করে। সুতরাং মানবজীবনে সাংস্কৃতিক উপাদানের গুরুত্ব অপরিসীম।

গ) উদ্দীপকের চিত্রে সমাজজীবনে প্রভাব বিস্তারকারী ভৌগোলিক উপাদানটির ইঙ্গিত করা হয়েছে।

ভৌগোলিক উপাদান বলতে জলবায়ু, তাপমাত্রা, বায়ুমণ্ডল, নদ-নদী, পাহাড়-পবর্ত, গ্রহ-নক্ষত্র, ঋতু পরিবর্তন, বৃষ্টিপাত প্রভৃতিকে বোঝায়। সমাজবিজ্ঞানী পি সরোফিন বলেন, ‘ভৌগোলিক উপাদান বা ভৌগোলিক পরিবেশ বলতে সেই সব মহাজাগতিক অবস্থা এবং ব্যাপারকে নির্দেশ করে, যা মানুষের সৃষ্টি নয় এবং যা নিজের নিয়মেই পরিবর্তিত হয়।

ভৌগোলিক মতবাদের সঙ্গে গ্রিক দার্শনিক অ্যারিস্টটলের নাম বিশেষভাবে জড়িত। তিনি বলেন, ‘অনুকূল ভৌগোলিক পরিবেশে প্রাচীনকালে গ্রিকরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব অগ্রগতি সাধন করেছিল।’

ভৌগোলিক পরিবেশ মানুষের চিন্তাভাবনা, কাজকর্ম, আচার-আচরণকেও নিয়ন্ত্রণ করে। যেমন শীতপ্রধান অঞ্চলের মানুষ দৈহিক দিক থেকে শক্তিশালী, কর্মক্ষম ও সাহসী হয়ে থাকে। আর উষ্ণ, তথা গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলের মানুষ হয় দুর্বল, ভীরু, কর্মবিমুখ ও অলস। প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে না পারার অর্থ নিশ্চিত মৃত্যু। কাজেই প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য বিধান বা অভ্যস্ত হতে না পারলে মানুষের পক্ষে টিকে থাকাই অসম্ভব। বস্তুতপক্ষে, মানবজীবনে ভৌগোলিক পরিবেশের প্রভাবকে মানুষ কোনোভাবেই অস্বীকার করতে পারে না। মানবজীবনে ভৌগোলিক পরিবেশের প্রভাবকে প্রধানত দুই ভাগে ভাগ করা যায়; যথা—প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্রভাব।

 

প্রত্যক্ষ প্রভাব : সভ্যতার বিকাশ, কৃষির ওপর

বিকাশ, যোগাযোগব্যবস্থা,

কর্মপ্রতিভা, পোশাক-পরিচ্ছদ, শিল্প ও সাহিত্য, প্রাকৃতিক সম্পদ, কর্মদক্ষতা ও ব্যক্তিগত আচরণ

 

পরোক্ষ প্রভাব :

রাষ্ট্রীয় কাঠামো ও প্রশাসনব্যবস্থা,

অপরাধপ্রবণতা,

জৈবিক বৈশিষ্ট্য ও জনসংখ্যার ওপর

পরিবেশগত ভারসাম্য,

নীতিবোধ

ঘ) ভৌগোলিক উপাদান সমাজজীবনকে বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করে।

 

১। জনসংখ্যার বণ্টন ও সভ্যতার উন্মেষ : জনসংখ্যার ঘনত্ব নির্ভর করে মানুষের মৌল চাহিদা পূরণের অনুকূল ভৌগোলিক পরিবেশের ওপর। সভ্যতা সৃষ্টির জন্য মানুষের উদ্যম কর্মশক্তির ভূমিকা অনস্বীকার্য।

 

২। প্রাকৃতিক সম্পদ : কোনো অঞ্চলের প্রাকৃতিক সম্পদ সেখানকার ভৌগোলিক পরিবেশের ওপর নির্ভরশীল। বিশেষ করে জলবায়ুর নিজস্ব প্রভাবে আদিম যুগেই বিভিন্ন ভৌগোলিক অবস্থানে প্রাকৃতিক সম্পদের সৃষ্টি হয়েছে।

৩। কৃষি : কৃষি বহুলাংশে ভৌগোলিক পরিবেশের ওপর নির্ভরশীল। বাংলাদেশের বরিশাল ও ময়মনসিংহ জেলায় প্রচুর ধানের আবাদ হয় এবং এর গুণগতমান অন্যান্য এলাকার ধানের চেয়ে উন্নত।

৪। ঘরবাড়ি, পোশাক-পরিচ্ছদ ও যানবাহন : ঘরবাড়ি তৈরির উপকরণ ভৌগোলিক পরিবেশ দ্বারা প্রভাবিত। যেমন— পাকিস্তানের মরু অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ খুব কম বিধায় সেখানকার ঘরবাড়ির জানালায় সানশেডও দেখতে পাওয়া যায় না। জলবায়ু ও আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের পোশাক-পরিচ্ছদও বিভিন্ন প্রকার হয়। যানবাহনের ওপরও ভৌগোলিক পরিবেশের প্রভাব দেখা যায়।

 

৫। মান প্রকৃতি ও

দক্ষতা : বলা হয় যে মানসিক দক্ষতা বা বুদ্ধিমত্তা ভৌগোলিক উপাদান দ্বারা প্রভাবিত। হানটিংটনের এক গবেষণায় প্রমাণিত হয় যে ৪০হ্ন ফারেনহাইট তাপমাত্রা মানসিক দক্ষতা, তথা বুদ্ধিমত্তার জন্য সবচেয়ে অনুকূল।

৬। ধর্ম : ভৌগোলিক নিয়ন্ত্রণবাদীদের মত অনুসারে ধর্মের ওপর ভৌগোলিক প্রভাব বিদ্যমান। অস্কার পিসকেলের মতে, গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলে সহজেই ধর্মীয় চিন্তার উন্মেষ ঘটে।

৭। শিল্পকলা ও সাহিত্য : সব দেশেই শিল্প, সাহিত্য, সংগীতাঞ্চল, স্থাপত্য ইত্যাদি মানুষের চিন্তা, চেতনা ও বিশ্বাসে ভৌগোলিক প্রভাব দেখতে পাওয়া যায়।

এ ছাড়া অপরাধ, পরিবার, যৌনজীবন, স্বাস্থ্য, আচার-অনুষ্ঠান, রাজনৈতিক সংগঠন, নীতিবোধ, খাদ্য, পানীয়, নরগোষ্ঠী প্রভৃতিতে ভৌগোলিক উপাদান সমাজজীবনকে বিশেষভাবে প্রভাবিত করে।



মন্তব্য