kalerkantho

জানা-অজানা

আফগানিস্তান

[বিভিন্ন ক্লাসের বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ে আফগানিস্তানের কথা উল্লেখ আছে]

১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



আফগানিস্তান

দক্ষিণ এশীয় দেশ আফগানিস্তান। দেশটির উত্তরে তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান ও উজবেকিস্তান; দক্ষিণ-পূর্ব দিকে পাকিস্তান ও চীন; আর পশ্চিমে ইরান।

১৯৭৯ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন (বর্তমান রাশিয়া) দেশটির দখল নেয়। সোভিয়েত বাহিনীর বিরুদ্ধে নয় বছর লড়াই করে আফগানরা। ১৯৮৯ সালে সোভিয়েত বাহিনী প্রত্যাহারের পর আফগান যুদ্ধবাজ নেতা, গোত্রপতিদের মধ্যে ক্ষমতা নিয়ে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়। তাদের বিরুদ্ধে জনরোষ বাড়তে থাকে। একপর্যায়ে যুদ্ধবাজ নেতাদের বিরুদ্ধে আফগানদের একটি দল দাঁড়িয়ে যায়। তাদের অধিকাংশই মাদরাসাপড়ুয়া হওয়ায় নাম দেওয়া হয় তালেবান। ১৯৯৬ সালে রাজধানী কাবুলসহ প্রায় পুরো দেশ দখল করে সরকার প্রতিষ্ঠা করে তারা। তবে উত্তরাঞ্চলে শিয়া প্রভাবশালী নেতা আহমেদ শাহ মাসুদের প্রভাব ছিল। ২০০১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর তাকে হত্যার ঘটনার দুদিনের মাথায় যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে হামলা হয়।

এ হামলার সঙ্গে অভিযুক্তদের আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানে আক্রমণ করে। যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনী এখনো দেশটিতে অবস্থান করছে।

২০০৭ সালে আফগানিস্তান সার্কের (দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সংস্থা) সদস্য হয়। ২০১৪ সাল থেকে দেশটির প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। প্রায় সাড়ে ৩ কোটি জনসংখ্যার এ দেশের অধিকাংশের ভাষা পশতু। এ ছাড়া দারি, উজবেক, তুর্কমেন, বেলুচ ভাষীদের সংখ্যাও কম নয়।

দেশটির যুদ্ধের ইতিহাস বহু পুরনো। উপমহাদেশের প্রভাবশালী সম্রাট ও যোদ্ধাদের অনেকেই এসেছে এ অঞ্চল থেকে।

‘দেশে বিদেশে’ ভ্রমণকাহিনীতে সৈয়দ মুজতবা আলী দেশটি সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য ও অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছেন।



মন্তব্য