kalerkantho


গুরুত্বপূর্ণ টপিকগুলো ভালো করে দেখবে

রসায়ন দ্বিতীয় পত্র

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



গুরুত্বপূর্ণ টপিকস

সংজ্ঞা : (১) আদর্শ গ্যাস (২) এসিড বৃষ্টি (৩) RMS বেগ (৪) BOD (৫) STP (৬) আংশিক চাপ (৭) মোলার গ্যাস ধ্রুবক (৮) SI এককে মোলার গ্যাস ধ্রুবক জ-এর মান (৯) প্লাস্টিসিটি (১০) রেসিমিক মিশ্রণ (১১) কার্যকরী মূলক (১২) লুকাস বিকারক (১৩) ফারমেন্টেশন (১৪) এনানসিওমার (১৫) পেপটাইড বন্ধন (১৬) প্রাইমারি স্ট্যান্ডার্ড পদার্থ (১৭) কার্বোক্যাটায়ন (১৮) মোলারিটি (১৯) ল্যাম্বার্টের সূত্র (২০) রিডক্স বিক্রিয়া (২১) তড়িদ্দ্বার (২২) লবণ সেতু (২৩) নির্দেশক (২৪) প্রমাণ তড়িদ্দ্বার বিভব (২৫) তড়িৎ রাসায়নিক তুল্যাঙ্ক (২৬) ফ্যারাডের তড়িৎ সংশ্লেষণের প্রথম সূত্র (২৭) রাসায়নিক তুল্যাঙ্ক (২৮) ইটিপি (২৯) ফরমালিন (৩০) রিসাইক্লিং (৩১) পোর্টল্যান্ড সিমেন্ট (৩২) ন্যানো কণা

(৩৩) সিমেন্ট ক্লিংকার

অনুধাবনমূলক :

১। বাস্তব গ্যাসের চাপ আদর্শ গ্যাসের চাপের চেয়ে কম কেন?

২। অ্যামোনিয়াকে লুইস ক্ষার বলা হয় কেন? ব্যাখ্যা করো।

৩। TDS বলতে কী বোঝো?

৪। অনুবন্ধী এসিড ও অনুসন্ধী ক্ষারক কাকে বলে?

৫। ইথাইন অম্লধর্মী কেন?

৬। ফেনল অম্লধর্মী কেন?

৭। বেনজিনকে অ্যারোমেটিক যৌগ বলা হয় কেন?

৮। CHCl3 কে বাদামি রঙিন বোতলে রাখা হয় কেন?

 

সৃজনশীল :

১। আদর্শ গ্যাস বাস্তব গ্যাসের আলোচনা

২।

ডাল্টনের আংশিক চাপ সূত্র থেকে

৩। গ্রাহামের ব্যাপন সূত্র থেকে

৪। গ্যাসের গতিতত্ত্ব থেকে

৫। জৈব যৌগের শ্রেণিবিভাগ, কার্যকরী মূলকের গাঠনিক সংকেত, সমানুতা।

৬। বেনজিনের দ্বি-প্রতিস্থাপিত, ত্রি-প্রতিস্থাপিত যৌগের সমানু, অর্থো, প্যারা নির্দেশক, মেটা নির্দেশক, সক্রিয়কারী মূলক অসক্রিয়কারী মূলক

৭। বেনজিনের ৩টি দ্বি-বন্ধনের প্রমাণ, নাইট্রেশনের কৌশল, ফ্রিত্তেলক্রাফট বিক্রিয়ার কৌশল।

৮। (i) অ্যালকেন, অ্যালকিন ও অ্যালকাইনের মধ্যে পার্থক্য।

(ii) উর্টজ বিক্রিয়া, উর্টজ ফিটিগ বিক্রিয়া, কার্বিল অ্যামিন বিক্রিয়া, টলেন বিকারক, ফেহেলিং দ্রবণ, ক্যানিজারো বিক্রিয়া, অ্যালডল ঘনীভবন বিক্রিয়া, হ্যালোফরম বিক্রিয়া, TNT, DDT স্যান্ডমেয়ার বিক্রিয়া

৯। শনাক্তকরণ : (i) অ্যালকাইল হ্যালাইড (ii) অ্যালকোহল (iii) কিটোন (iv) অ্যালডিহাইড (v) কার্বক্সিলিক এসিড (vi) অ্যামিন

১০। প্রস্তুতি : (র) গ্লিসারিন (রর) ফেনল (ররর) নাইলন ৬:৬

১১। (১) এসিড-ক্ষার প্রশমন বিক্রিয়া থেকে অঙ্ক ও দ্রবণের প্রকৃতি

(২) অম্লীয় জারক KMnO4 / K2Cr2O7 ব্যবহার করে বিজারক FeSO4/ H2C2O4/ H2O2/H2S-এর পরিমাণ নির্ণয় এবং আয়ন ইলেকট্রন পদ্ধতিতে সমতাকরণ।

(৩) জারকের আয়তন, ঘনমাত্রা দ্বারা বিজারকের পরিমাণ নির্ণয়।

(৪) জারকের আয়তন, ঘনমাত্রা নির্ণয় ও পরিমাণ নির্ণয়।

(৫) ফ্যারাডের প্রথম সূত্র প্রয়োগ করে তড়িৎ বিশ্লেষ্য পদার্থের পরিমাণ নির্ণয়

(৬) অর্ধকোষের শ্রেণিবিভাগ

(৭) দুটি অর্ধকোষের জারণমান বা বিজারণমান দেওয়া থাকবে, এদের কোন ধাতু দ্বারা তৈরি পাত্রে কোনো দ্রবণ রাখা যাবে কি না ব্যাখা।

(৮) হাইড্রোজেন ফুয়েল সেল, লিথিয়াম ব্যাটারি

(৯) PH মিটারের সাহায্যে কোনো দ্রবণের PH নির্ণয়।

(১০) ইউরিয়া উৎপাদন, কাগজ উৎপাদন।

 

মো. আবদুল মোত্তালেব

সহকারী অধ্যাপক, বিএএফ শাহীন কলেজ, কুর্মিটোলা, ঢাকা


মন্তব্য