kalerkantho


অষ্টম শ্রেণি : বাংলা প্রথম পত্র

সৃজনশীল প্রশ্ন

লুৎফা বেগম, সিনিয়র শিক্ষক, বিএএফ শাহীন কলেজ, কুর্মিটোলা, ঢাকা   

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



অষ্টম শ্রেণি : বাংলা প্রথম পত্র

বাবুরের মহত্ত্ব : কালিদাস রায়

     উদ্দীপক পড়ে নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

১।     প্রচণ্ড বন্যায় ডুবে যায় টাঙ্গাইলের ব্যাপক অঞ্চল।

অনেকেরই বাড়ি-ঘর ডুবে যায়। নিরাশ্রয় হয়ে পড়ে অগণিত মানুষ। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এমনি একটি পরিবার নৌকায় চড়ে নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ছোটে। তীব্র স্রোতের টানে নৌকাটি উল্টে গেলে সবাই সাঁতার কেটে উঠে এলেও জলে ডুবে যায় একটি শিশু। বড় মিয়া নামের এক যুবক এ দৃশ্য দেখে ঝাঁপিয়ে পড়ে উদ্ধার করেন শিশুটিকে। কূলে উঠে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। ডাক্তার এসে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানালেন যে বড় মিয়া আর বেঁচে নেই।

     (ক) রণবীর চৌহান কে ছিল?

     উত্তর : রণবীর চৌহান ছিল একজন স্বদেশ প্রেমিক রাজপুত যুবক, যে বাবুরকে হত্যা করতে চেয়েছিল।

     (খ)  ‘বড়ই কঠিন জীবন দেয়া যে জীবন নেয়ার চেয়ে’—কেন?

     উত্তর : ‘বড়ই কঠিন জীবন দেয়া যে জীবন নেয়ার চেয়ে’—এ কথার অর্থ হলো—প্রাণ হরণ করা যতটা সহজ, মানুষকে প্রাণ দান করা ঠিক ততটাই কঠিন কর্ম।

     কালিদাস রায়ের ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার তরুণ রণবীর চৌহান সম্রাট বাবুরকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে দিল্লির রাজপথে ঘুরছিল। সে সময় সে দেখতে পায় যে বাবুর নিজের জীবনের মায়া ত্যাগ করে মত্ত হাতির কবল থেকে রাজপথে পড়ে থাকা একটি মেথর শিশুকে উদ্ধার করেন। রাজপুত যুবক বাবুরের মহত্ত্বে বিস্মিত হয়। সে বাবুরের পায়ে পড়ে অপরাধ স্বীকার করে শাস্তি প্রার্থনা করলে বাবুর তাকে ক্ষমা করে উপর্যুক্ত মন্তব্যটি করেন। এ কথার অর্থ হলো একজনের কৃত অপরাধের শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করা যেতে পারে, কিন্তু জীবন দান একমাত্র ক্ষমাশীলতার মাধ্যমেই হতে পারে—যেটা অত্যন্ত কঠিন। কারণ অপরাধের ধরনের ওপর ক্ষমা করা-না করা অর্থাৎ জীবন দান নির্ভর করে।

     (গ)  উদ্দীপকে বর্ণিত বড় মিয়ার আচরণে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার ফুটে ওঠা দিকটি ব্যাখ্যা করো।

     উত্তর : উদ্দীপকে বর্ণিত বড় মিয়ার আচরণে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার ফুটে ওঠা দিকটি হলো মহানুভবতা।

     ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার মোগল সম্রাট বাবুর রাজ্য বিজয়ের পর প্রজাসাধারণের হৃদয়-জয়ে মনোযোগী হলেন।

     তাই ছদ্মবেশ ধরে প্রজাদের দুঃখ-দুর্দশা নিজ চোখে দেখার জন্য দিল্লির পথে পথে ঘুরতে লাগলেন। একদিন যখন তিনি দিল্লির পথে পথে ঘুরছিলেন, তখন একটা মত্ত হাতি পথের ওপর ছুটে আসে। হাতির ভয়ে সবাই রাস্তা থেকে সরে পড়ে। কেবল রাজপথের ধুলায় একটি শিশু পড়ে থাকে। হাতির পায়ের চাপে শিশুটির মৃত্যু হতে পারে বলে সবাই শিশুটিকে কুড়িয়ে আনতে বললেও নিজেরা কেউই সাহস করে আগায় না। সে সময় বাবুর ভিড় ঠেলে, হাতির শুঁড়ের ঘষা শরীরে সহ্য করে পথের শিশুকে বুকে করে এনে তার মায়ের কোলে তুলে দেন।

     উদ্দীপকেও এ সম্পর্কে বলা হয়েছে যে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি পরিবার যখন নৌকাযোগে নিরাপদ আশ্রয়ে ছুটছিল, তখন স্রোতের টানে তাদের নৌকাটি উল্টে যায়। সবাই সাঁতার কেটে তীরে উঠলেও একটি শিশু জলে ডুবে যায়। তখন বড় মিয়া নামের এক যুবক পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। উদ্দীপকের বড় মিয়ার আচরণের এই দিকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার উপর্যুক্ত ঘটনার সঙ্গে সম্পর্কিত, যা বাবুরের মহত্ত্বকে নির্দেশ করে।

(ঘ)  উদ্দীপকটিতে ‘বাবুরের মহত্ত্ব কবিতার একটি বিশেষ দিকের প্রতিফলন ঘটলেও সম্পূর্ণভাব ধারণ করে না’ যুক্তিসহ বুঝিয়ে লেখো।

     উত্তর : উদ্দীপকটিতে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার একটি বিশেষ দিক মহানুভবতার প্রকাশ ঘটলেও সম্পূর্ণ ভাব ধারণ করেনি।

     ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় আরো বর্ণিত হয়েছে—মোগল সম্রাট বাবুর ভারতে মোগল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি মাত্র ১১ বছর বয়সে মধ্য এশিয়ার সমরখন্দের সিংহাসনে আরোহণ করেন এবং অল্প বয়সে দুইবার সিংহাসন হারান। তার পরও নিজ দেশ ছেড়ে আফগানিস্তানের সিংহাসন অধিকার করেন। এরপর তিনি পাঠান বাদশাহ্ ইব্রাহীম লোদিকে পানি পথের যুদ্ধে পরাজিত করে দিল্লির সিংহাসনে বসেন। মেবারের রাজা সংগ্রাম সিংহ তাঁর বিরুদ্ধে যুদ্ধ আহ্বান করলে তাঁকেও খানুয়ার প্রান্তরে পরাজিত করে এক বিশাল সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। পাঞ্জাবের শাসক কৃতঘ্ন দৌলত খাঁ লোদি পরাজিত ও নিহত হলে বাবুরের আর কোনো প্রতিরোধ থাকে না। কিন্তু বাবুর দস্যুর মতো লুণ্ঠিত সম্পদে তুষ্ট থাকতে পারলেন না। তিনি বুঝতে পারলেন, নির্দিষ্ট ভূখণ্ড বা মাটির দখলই একমাত্র জয় নয়। ভারতের যারা প্রকৃত অধিবাসী অর্থাৎ হিন্দু সম্প্রদায়ের হৃদয় জয় করার জন্য তিনি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হলেন। তাই পর্যটকের ছদ্মবেশে দিল্লির পথে-প্রান্তরে প্রজাদের দুঃখ-কষ্ট নিজ চোখে পর্যবেক্ষণ করার জন্য ঘুরতে লাগলেন। এ দিকটি ছাড়াও তাঁকে হত্যা করতে আসা রণবীর চৌহানকেও ক্ষমা করে তাঁর দেহরক্ষী হিসেবে নিয়োগ দান করেন।

     আর উদ্দীপকের বড় মিয়া শুধু নিজের জীবনের বিনিময়ে পানি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করেছে। এ বর্ণনার বাইরে আর কিছু নেই। তাই উপর্যুক্ত বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায়, ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার সম্পূর্ণ দিক উদ্দীপকে অনুপস্থিত।

 

২।     “বাঁচিতে চাইনা আর

     জীবন আমার সঁপিলাম, পীর, পুত পদে আপনার।

     ইব্রাহীমের গুপ্ত ঘাতক আমি ছাড়া কেই নয়,

     ঐ অসীখানা এ বুকে হানুন, সত্যের হোক জয়। ”

     (ক) বাবুরের আসল নাম কী?

     উত্তর : বাবুুরের আসল নাম হলো জহিরুদ্দিন মুহম্মদ।

     (খ) বাবুরকে ‘বে-আকুফ’ বলা হয়েছে কেন?

     উত্তর : বাবুর না জেনে একটি মেথর শিশুকে উদ্ধার করেছেন বলে তাঁকে ‘বে-আকুফ’ বলা হয়েছে।

     কালিদাস রায় রচিত ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় মোগল সম্রাট বাবুর রাজ্য বিজয়ের পর প্রজাসাধারণের হৃদয় জয়ে মনোযোগী হলেন। তাই পর্যটকের ছদ্মবেশে তিনি দিল্লির পথে-প্রান্তরে ঘুরে প্রজাদের দুঃখ-কষ্ট জানার চেষ্টা করতেন। একদিন তিনি যখন দিল্লির পথে-প্রান্তরে ঘুরছিলেন, সে সময় হঠাৎ একটি মত্ত হাতি রাজপথে ছুটে আসে। সে সময় বাবুর নিজের জীবনের মায়া ত্যাগ করে মত্ত হাতির কবল থেকে রাজপথে পড়ে থাকা একটি মেথর শিশুকে উদ্ধার করেন। বাবুরের কাছে শিশুটিকে দেখে জনতার মধ্যে একজন তাকে মেথরের শিশু হিসেবে চিনতে পারে। সামান্য এক মেথর শিশুকে উদ্ধারের জন্য নিজের প্রাণের মায়া ত্যাগ করেছেন বলে জনতার মধ্যে একজন তাঁকে ‘বে-আকুফ’ বলে অভিহিত করেছে।

     (গ)  উদ্দীপকে উল্লিখিত ইব্রাহীমের গুপ্তঘাতকের সঙ্গে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় বর্ণিত রাজপুত বীরের সাদৃশ্যপূর্ণ দিকটি ব্যাখ্যা করো।

     উত্তর : উদ্দীপকে উল্লিখিত ইব্রাহীমের গুপ্তঘাতকের সঙ্গে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় বর্ণিত রাজপুত বীরের সাদৃশ্যপূর্ণ দিকটি হলো উভয়ে ঘাতক হিসেবে নিজেদের সত্যিকারের পরিচয় তুলে ধরেছে।

     ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার মোগল সম্রাট বাবুর ভারতবর্ষে তাঁর সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। এ জন্য তাঁকে পানি পথের প্রান্তরে পরাজিত করতে হয়েছে পাঠান বাদশাহ্ ইব্রাহীম লোদি, খানুয়ার প্রান্তরে মেবার রাজ্যের অধিপতি রাজা সংগ্রাম সিংহকে এবং পাঞ্জাবের শাসক কৃতঘ্ন দৌলত খাঁ লোদিকে। কিন্তু দিল্লির মসনদে বসার পর তাঁর মনে হলো মাটির দখল বা কোনো নির্দিষ্ট ভূখণ্ড জয়ই একমাত্র বিজয় নয়। তাই তিনি স্থির করলেন ভারতের যারা প্রকৃত অধিবাসী অর্থাৎ হিন্দুদের হৃদয় জয় করতে হবে। সে জন্য তিনি পর্যটকের ছদ্মবেশে দিল্লির পথে-প্রান্তরে প্রজাদের দুঃখ-কষ্ট জানার জন্য ঘুরতে লাগলেন। রাজপুতরা তাঁকে কিছুতেই মেনে নিতে পারছিল না। রাজপুত-বীর তরুণ রণবীর চৌহান বাবুরকে হত্যা করার জন্য রাজপথে ঘুরছিল। সে সময় মত্ত হাতির কবল থেকে নিজের জীবন বিপন্ন করে মেথর শিশুকে উদ্ধার-দৃশ্য দেখে সে বাবুরের মহত্ত্বে বিস্মিত হয়, আর বাবুরের পায়ে পড়ে নিজের অপরাধ স্বীকার করে শাস্তি প্রার্থনা করে।

     উদ্দীপকের গুপ্তঘাতক ও তার আশ্রয়দাতার আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়ে তার পুত্র ইব্রাহীমের হত্যাকারী বলে নিজের পরিচয় দিয়ে প্রাপ্য শাস্তি প্রার্থনা করে। উদ্দীপকের এই দিকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার রাজপুত বীর চৌহানের শাস্তি প্রার্থনার সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।

     (ঘ) উদ্দীপকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার সমগ্রভাব প্রকাশে কতটুকু সক্ষম হয়েছে তা যুক্তি সহকারে আলোচনা করো।

     উত্তর : উদ্দীপকটি ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতার আংশিক ভাব প্রকাশে সক্ষম হয়েছে, যা কেবল চৌহানের অপরাধ স্বীকারোক্তির সঙ্গে সম্পর্কিত।

     এ ছাড়া ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় ভারতের মোগল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা জহিরুদ্দিন বাবুরের আফগানিস্তানের সিংহাসন দখলের পর একে একে পানিপথ প্রান্তরে পাঠান বাদশাহ ইব্রাহীম লোদিকে পরাজিত করে দিল্লি অধিকার, মেবারের রাজা সংগ্রাম সিংহকে খানুয়ার প্রান্তরে এবং কৃতঘ্ন দৌলত খাঁ লোদিকে পরাজিত করেন। কিন্তু দস্যুর মতো লুণ্ঠিত সম্পদ আর সিংহাসনের অধিকার পেয়ে তিনি তুষ্ট হতে পারলেন না। রাজ্য বিজয়ের পর তিনি প্রজাসাধারণের হৃদয়-জয়ে মনোযোগী হলেন আর পর্যটকের ছদ্মবেশে দিল্লির পথে-প্রান্তরে ঘুরতে লাগলেন তাদের দুঃখ-কষ্ট জানার জন্য।

     আর উদ্দীপকের ইব্রাহীমের গুপ্ত ঘাতক আশ্রয়দাতার আতিথ্যে মুগ্ধ হয়ে তার অপরাধ স্বীকার করেছে—এটুকুই কেবল বলা হয়েছে।

     উপর্যুক্ত বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তাই এ সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় যে ‘বাবুরের মহত্ত্ব’ কবিতায় বাবুরের রাজ্য জয় ও প্রজা রঞ্জনের যে কাহিনি বর্ণিত হয়েছে, তা উদ্দীপকে নেই বলে তা আংশিক ভাব ধারণ করেছে—এ কথা নির্দ্বিধায় বলা চলে।


মন্তব্য