kalerkantho


এইচএসসি : পৌরনীতি ও সুশাসন প্রথম পত্র

সৃজনশীল প্রশ্ন

মো. শফিকুল ইসলাম, প্রভাষক, ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা   

১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



উদ্দীপকটি পড়ে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

খন্দকার গোলাম ফারুক প্রিন্স পাবনা-৫ আসনের একজন সংসদ সদস্য। তিনি তাঁর এলাকার উন্নয়নে যথেষ্ট ভূমিকা রাখেন।

সংসদ অধিবেশনে উপস্থিত থেকে তিনি তাঁর এলাকার জনগণের নানা সমস্যার দিক তুলে ধরেন এবং এলাকার উন্নয়নকল্পে নানা ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণে সচেষ্ট হন।

ক.                        কবে বাংলাদেশে বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগ থেকে পৃথক করা হয়?

খ.                        জাতীয় সংসদের ‘কোরাম’ বলতে কী বোঝো?

গ.                        খন্দকার গোলাম ফারুক প্রিন্স সরকার ও জনগণের মধ্যকার সেতুবন্ধ হিসেবে কিভাবে কাজ করছেন? ব্যাখ্যা করো।

ঘ.                        মি. প্রিন্স প্রকৃতপক্ষেই জনগণের কণ্ঠস্বর হিসেবে ভূমিকা রেখে চলেছেন—বিশ্লেষণ করো।

 

উত্তর :

ক)                        ২০০৭ সালের ১ নভেম্বর।

খ)                        কোরাম বলতে সুনির্দিষ্টসংখ্যক সদস্যর উপস্থিতিকে বোঝায়।

                          ‘কোরাম’ সংখ্যা ৬০ অর্থাৎ কমপক্ষে ৬০ সদস্যের উপস্থিতিতে সংসদের কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে। কমপক্ষে ৬০ জন সংসদ সদস্য বৈঠকে উপস্থিত না হলে স্পিকার সংসদের বৈঠক স্থগিত রাখবেন কিংবা সংসদের বৈঠক মুলতবি ঘোষণা করবেন।

গ)                        অধিবেশন চলাকালে উদ্দীপকের সংসদ সদস্যরা সংসদে উপস্থিত হয়ে জনগণের সমস্যাবলি সংসদে উপস্থাপনের মাধ্যমে জনগণ ও সরকারের মধ্যে সেতুবন্ধ রচনা করেন।

                          পাবনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য খন্দকার গোলাম ফারুক প্রিন্স।

তিনি তাঁর এলাকার উন্নয়নে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছেন। সংসদ অধিবেশন চলাকালে উপস্থিত থেকে এলাকার জনগণের বিভিন্ন সমস্যার নানা দিক তুলে ধরেন এবং এলাকার উন্নয়নকল্পে বাস্তবমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

                          উদ্দীপকে পাবনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য মি. প্রিন্স নিজ এলাকায় জনগণের নানামুখী সমস্যার সমাধানে যেমন কাজ করেন, তেমনি জনগণের চাওয়া-পাওয়ার বিষয়টি সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলে তুলে ধরেন। নিজ দলের জন্য যেমন কাজ করেন, তেমনিভাবে নিজ এলাকায় জনগণের মধ্যকার সেতুবন্ধ হিসেবে কাজ করেন। এ ছাড়া তাঁকে জনগণের কণ্ঠস্বর হিসেবেও বিবেচনা করা হয়।

ঘ)                        মি. প্রিন্স প্রকৃতপক্ষেই জনগণের কণ্ঠস্বর হিসেবে ভূমিকা রেখে চলেছেন—উক্তিটি যথার্থ। সংসদ সদস্যরা সংসদে নিজ নির্বাচনী এলাকায় জনগণের প্রতিনিধিত্ব করেন। নিজ এলাকার জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা, দাবি-দাওয়া পূরণে তাঁরা সচেষ্ট থাকেন। নিজ এলাকায় শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নের কর্মসূচি গ্রহণ, উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের তদারকি করা সংসদ সদস্যদের দায়িত্ব।

                          সংসদ সদস্যরা নিজ এলাকায় জনগণের নানামুখী সমস্যার সমাধানে যেমন কাজ করেন, তেমনি জনগণের চাওয়া-পাওয়ার বিষয়টি সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলে তুলে ধরেন। এভাবে তাঁরা সরকার ও জনগণের মধ্যকার সেতুবন্ধ রচনা করেন। উদ্দীপকের সংসদ সদস্য মি. প্রিন্স এ দায়িত্বগুলো পালনে সচেষ্ট। তাই তাঁকে জনগণের কণ্ঠস্বর হিসেবে অভিহিত করা যুক্তিসংগত। এ কাজগুলো করে উদ্দীপকের মি. প্রিন্স জনগণের প্রকৃত কণ্ঠস্বর হিসেবে কাজ করতে পারেন।


মন্তব্য