kalerkantho


পঞ্চম শ্রেণি : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

তাহেরা-বিনতে-রহমান, সিনিয়র শিক্ষক, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বেইলি রোড, ঢাকা   

২৮ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



পাঠ প্রস্তুতি

প্রথম অধ্যায়

সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন :

১। মুক্তিযুদ্ধে সাহসিকতা ও ত্যাগের জন্য প্রদানকৃত তৃতীয় উপাধিটির নাম কী?

উত্তর : বীর-বিক্রম

২।

সব মুক্তিযোদ্ধা এবং অগণিত সাধারণ মানুষের অবদানে আমরা কী লাভ করেছি?

উত্তর : আমাদের স্বাধীনতা।

৩। মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা কত?

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধে প্রায় ৩০ লাখ বাঙালি শহীদ হন।

৪। মুক্তিযুদ্ধে শরণার্থীর সংখ্যা কত?

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধে শরণার্থীর সংখ্যা প্রায় এক কোটি।

৫। মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে অবস্থানকারী সংগঠনগুলোর নাম কী?

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে অবস্থানকারী সংগঠনগুলো হলো শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর আল-শামস।

৬। রাজাকাররা কিভাবে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে কাজ করেছে?

উত্তর : রাজাকাররা মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা করে হানাদারদের দিয়েছিল।

তারা হানাদারকে পথ চিনিয়ে, ভাষা বুঝিয়ে ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে সাহায্য করেছিল।

৭। মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে আশ্রয় গ্রহণকারীর সংখ্যা কত?

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে প্রায় এক কোটি মানুষ আশ্রয় গ্রহণ করে।

৮। মুক্তিযুদ্ধের শেষের দিকে পাকিস্তানি বাহিনী কী করে?

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধের শেষের দিকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এ দেশকে মেধাশূন্য করার পরিকল্পনা করে।

৯। কত তারিখ ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস’  পালন করা হয়?

উত্তর : প্রতিবছর ১৪ ডিসেম্বর ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস’ পালন করা হয়।

১০। অধ্যাপক গোবিন্দ চন্দ্র দেব কোন বিষয়ের শিক্ষক ছিলেন?

উত্তর : অধ্যাপক গোবিন্দ চন্দ্র দেব দর্শন শাস্ত্রের শিক্ষক ছিলেন।

১১। অধ্যাপক জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা কোন বিষয়ের অধ্যাপক ছিলেন?

উত্তর : অধ্যাপক জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা ইংরেজি বিষয়ের খ্যাতিমান শিক্ষক ছিলেন।

১২। অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী কে ছিলেন?

উত্তর : অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও একজন খ্যাতিমান সাহিত্যিক ছিলেন।

১৩। মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময়টা কোন প্রতিবেশী দেশ আমাদের নানাভাবে সাহায্য করেছে।

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময়টায় প্রতিবেশী ভারত নানাভাবে আমাদের সাহায্য করেছে।

১৪। আশ্রয় গ্রহণকারী শরণার্থীদের ভারত কিভাবে সাহায্য করেছে?

উত্তর : আশ্রয় গ্রহণকারী শরণার্থীদের ভারত খাদ্য, বস্ত্র ও চিকিৎসাসেবা দিয়ে সাহায্য করেছে।

১৫। মুক্তিযুদ্ধে সহায়তাকারী ভারতীয় বাহিনী কী নামে পরিচিত?

উত্তর : মুক্তিযুদ্ধে সহায়তাকারী ভারতীয় বাহিনী মিত্রবাহিনী নামে পরিচিত।

১৬। মিত্রবাহিনী বাংলাদেশের পক্ষে কিভাবে যুদ্ধ করে?

উত্তর : অপারেশন জ্যাকপটে মিত্রবাহিনী বাংলাদেশের পক্ষে যুদ্ধ করে।

১৭। মিত্রবাহিনীর প্রধান ছিলেন কে?

উত্তর : মিত্রবাহিনীর প্রধান ছিলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরা।

১৮। কিভাবে যৌথ বাহিনী গঠন করা হয়?

উত্তর : মিত্রবাহিনীর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ২১ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্রবাহিনী মিলে গঠন করা হয় যৌথ বাহিনী।

১৯। পাকিস্তান কখন ভারত আক্রমণ করে?

উত্তর : ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর পাকিস্তান ভারত আক্রমণ করে।

২০। পাকিস্তানি বাহিনী কখন আত্মসমর্পণ করে?

উত্তর : যৌথ বাহিনীর তীব্র আক্রমণের ফলে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করে।

২১। আত্মসমর্পণ দলিলে স্বাক্ষর করেন কারা?

উত্তর : ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে যৌথ বাহিনীর পক্ষে জগজিৎ সিং অরোরা এবং পাকিস্তানের পক্ষে লেফটেন্যান্ট জেনারেল নিয়াজি আত্মসমর্পণ দলিলে স্বাক্ষর করেন।

২২। কত তারিখ আমরা বিজয় দিবস পালন করি?

উত্তর : প্রতিবছর ১৬ ডিসেম্বরকে আমরা বিজয় দিবস হিসেবে পালন করি।

২৩। কখন বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন?

উত্তর : ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তিলাভ করেন।

২৪। বঙ্গবন্ধু কখন স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন?

উত্তর : ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন।

২৫। কতজনকে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় উপাধি বীরশ্রেষ্ঠ প্রদান করা হয়েছে?

উত্তর : সাতজনকে

২৬। তোমার দাদা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে মুক্তিযুদ্ধের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উপাধিটি পেয়েছেন। তাঁর প্রাপ্ত উপাধিটির নাম কী?

উত্তর : বীর-উত্তম

 

নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

১। এমন পাঁচটি ঘটনার কথা লেখো যা মুক্তিযুদ্ধ সংঘটনে ভূমিকা রেখেছিল?

উত্তর : ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশরা এই উপমহাদেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার পর সৃষ্টি হয় দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র, একটি ভারত এবং অন্যটি পাকিস্তান। পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্মের পর থেকেই পশ্চিম পাকিস্তানিরা পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালি জনগণের ওপর শুরু করে অত্যাচার ও নিপীড়ন। বাঙালিরাও সঙ্গে সঙ্গে প্রতিবাদ আন্দোলন শুরু করে। মুক্তিযুদ্ধ সংঘটনে ভূমিকা রেখেছিল এমন পাঁচটি ঘটনা হলো—

ক) ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন

খ) ১৯৬৬ সালের ছয় দফা আন্দোলন

গ) ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান

ঘ) ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয়

ঙ) ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নারকীয় গণহত্যা ও বাঙালিদের প্রতিরোধ।

২। বুদ্ধিজীবীদের কারা হত্যা করেছিল?

উত্তর : এ দেশের কিছু মানুষ মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। তারা শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর, আল-শামস নামে বিভিন্ন কমিটি ও সংগঠন গড়ে তোলে। এরা মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা করে হানাদারদের দিয়েছিল। রাজাকাররা হানাদারদের পথ চিনিয়ে, ভাষা বুঝিয়ে ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে সাহায্য করেছিল।

মুক্তিযুদ্ধের শেষের দিকে ডিসেম্বর মাসে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এ দেশকে মেধাশূন্য করার পরিকল্পনা করে। ১০ থেকে ১৪ ডিসেম্বরের মধ্যে পাকিস্তানি বাহিনী মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তির সাহায্যে আমাদের অনেক গুণী শিক্ষক, শিল্পী, সাংবাদিক, চিকিৎসক ও কবি-সাহিত্যিককে অর্থাৎ বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে হত্যা করে।


মন্তব্য