kalerkantho


এইচএসসি পরামর্শ : ভূগোল প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র

চিত্র দেওয়ার সুযোগ থাকলে অবশ্যই দেবে

ভূগোল প্রথম পত্র

২৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



চিত্র দেওয়ার সুযোগ থাকলে অবশ্যই দেবে

সৃজনশীল ও বহু নির্বাচনী অংশে ভালো করতে হলে বইয়ের টুকটাক তথ্য জানা থাকতে হবে। পাঠ্য বইয়ের প্রতিটি লাইন ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করতে হবে। ভালো ফলের জন্য একাধিক লেখকের বই অনুশীলন বেশ সহায়তা করে। বিভিন্ন সৃজনশীল ও বহু নির্বাচনী মডেল অনুশীলন করতে হবে। গুরুত্বপূর্ণ ও কঠিন বিষয়গুলো শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করে সমাধান করতে হবে। সহপাঠীদের সঙ্গে সব অধ্যায় গ্রুপ স্টাডি করলে জটিল বিষয়গুলো সহজে আয়ত্তে আনা যাবে। ভুগোল বিষয়ে চিত্রকে প্রাধান্য দিতে হবে। যেসব প্রশ্নে চিত্র দেওয়া সম্ভব, অবশ্যই চিত্র দিতে হবে। চিত্রভিত্তিক প্রশ্নের উত্তর দিলে ভালো নম্বর পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। একই প্রশ্নের উত্তরে বৈষম্য লক্ষ করলে তা সহপাঠী ও শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করে সংশোধন করে নিতে হবে। বানিয়ে লেখার প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। সব প্রশ্নের উত্তর প্রশ্ন-সম্পর্কিত ও প্রাসঙ্গিক হতে হবে। ভূগোল প্রথম পত্রের অনেক প্রশ্নই চিত্রভিত্তিক। তাই উত্তর করার সময় তা মাথায় রাখতে হবে। বহু নির্বাচনী পরীক্ষায় ভালো ফলের জন্য একাধিক বই অনুশীলন একান্ত প্রয়োজন। কারণ একজন লেখকের বইয়ে সব অধ্যায়ের তথ্য পাওয়া গেলেও একাধিক বই অনুশীলনের মাধ্যমে তা বুঝতে সহজ হয়। ভূগোল হচ্ছে মূলত প্রকৃতি প্রদত্ত সব বিষয় ও বাস্তবধর্মী বিষয় নিয়ে আলোচনা। তাই পাঠ্যপুস্তক অনুশীলন ছাড়া ব্যক্তিগতভাবে লেখার কোনো সুযোগ নেই। ভূগোল বিষয়ে ২০১৬ সালেই প্রথম সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা হবে। বোর্ড প্রশ্ন সম্পর্কে আগের কোনো ধারণা নেই। তাই পাঠ্যপুস্তক ও বিভিন্ন মডেল প্রশ্ন বারবার অনুশীলন করতে হবে। পাঠ্যপুস্তক অনুশীলন ছাড়া ভালো ফল করা সম্ভব নয়। যেমন ভূ-অভ্যন্তরকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে—অশ্মমণ্ডল, গুরুমণ্ডল ও কেন্দ্রমণ্ডল। ভূ-অভ্যন্তর সম্পর্কে জানতে হলে অবশ্যই এই তিনটি মণ্ডল সম্পর্কে জানতে হবে। আর জানতে হলে অবশ্যই পাঠ্যপুস্তক অনুশীলন করতে হবে। পাঠ্যপুস্তক অনুশীলন ছাড়া সঠিক তথ্য পাওয়া সম্ভব নয়।

 

ভূগোল দ্বিতীয় পত্র

দ্বিতীয় পত্রে চিত্রের চেয়ে তথ্য বেশি। বেশির ভাগ প্রশ্নই তথ্যনির্ভর। পাঠ্য বইয়ের অনুশীলন ছাড়া সঠিক তথ্য উপস্থাপন করা সম্ভব নয়। তবে যেসব প্রশ্নের সঙ্গে চিত্র সংযোজন করা যাবে, সেগুলোতে চিত্র দিতে হবে।

ভূগোল প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রে অনেকে বানিয়ে লেখে। এ প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। প্রশ্ন অনুযায়ী প্রাসঙ্গিক লিখতে হবে। আরেকটি বিষয় লক্ষ রাখতে হবে, সাধারণত বাস্তবধর্মী এবং যার অস্তিত্ব আছে সেসব টপিকস ভালোভাবে জানতে হবে। নিজের ইচ্ছামতো লেখার কোনো সুযোগ নেই। প্রশ্নের উত্তরে যেসব তথ্য দিতে হবে, তা সঠিক হতে হবে। না জেনে কোনো ভুল তথ্য দেওয়া যাবে না। প্রথম পত্রের মতো দ্বিতীয় পত্রেও একইভাবে গ্রুপ স্টাডি করতে হবে। একাধিক লেখকের বই অনুশীলন করতে হবে। দ্বিতীয় পত্রের ক্ষেত্রেও পাঠ্য বই অনুশীলনের মাধ্যমে ভালো ফল অর্জন সম্ভব। সঠিক তথ্য উপস্থাপনের ক্ষেত্রে পাঠ্য বইয়ের বিকল্প নেই। কারণ দ্বিতীয় পত্রে বিভিন্ন তথ্যের ওপর প্রশ্ন করা হয়। যেমন মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো তেল সম্পদে সমৃদ্ধ। তেলকে মধ্যপ্রাচ্যের ‘তরল সোনা’ বলা হয়—উত্তরের সপক্ষে তোমার মতামত দাও। সঠিক মতামত দেওয়ার জন্য অবশ্যই পাঠ্যপুস্তক অনুশীলন করা প্রয়োজন। কারণ পাঠ্যপুস্তক ছাড়া কখনো সঠিক তথ্য উপস্থাপন সম্ভব নয়। তাই কঠোর পরিশ্রম ও নিয়মিত অনুশীলনের মাধ্যমেই ভালো ফল অর্জন করা সম্ভব।


মন্তব্য