এইচএসসি প্রস্তুতি : পৌরনীতি ও সুশাসন-331954 | পড়ালেখা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

সোমবার । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১১ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৩ জিলহজ ১৪৩৭


মডেল টেস্ট

এইচএসসি প্রস্তুতি : পৌরনীতি ও সুশাসন প্রথম পত্র

মো. আসাদুজ্জামান, প্রভাষক, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ, উত্তরা, ঢাকা   

৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



এইচএসসি প্রস্তুতি : পৌরনীতি ও সুশাসন প্রথম পত্র

সৃজনশীল প্রশ্ন

 

১।   শিক্ষক শ্রেণি কক্ষে আইনের উৎস ও প্রকারভেদ নিয়ে আলোচনা করছিলেন। নাফিজ জিজ্ঞাসা করল, আইনের উেসর ভিন্নতার কারণে বিভিন্ন প্রকার আইন গড়ে উঠেছে কি না?

     (ক) আইন কী?

     (খ) চিরাচরিত প্রথা ও ধর্ম কিভাবে আইনের উৎস হিসেবে কাজ করছে?

     (গ) আইনের শ্রেণি বিভাগ বর্ণনা করো।

     (ঘ) আইনের উেসর ভিন্নতার কারণে বিভিন্ন প্রকার আইন গড়ে উঠেছে—উক্তিটি ব্যাখ্যা করো।  

 

২।   জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের সৈনিক অমিত। অন্য দেশের এক সৈনিক অমিতের দেশ নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে। অমিত এর প্রতিবাদ জানায়। পরে শান্তিরক্ষা মিশনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অন্য দেশের ওই সৈনিককে বরখাস্ত করে।

     (ক) শব্দগত অর্থে পৌরনীতি বলতে কী বোঝো?    

     (খ) পৌরনীতিকে নাগরিকতাবিষয়ক বিজ্ঞান বলা হয় কেন?   

     (গ) উদ্দীপকের অমিতের মধ্যে কোন শিক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে—ব্যাখ্যা করো।       

     (ঘ) উদ্দীপকের আলোকে পৌরনীতি পাঠ করে আমরা কী কী শিক্ষা পেতে পারি—তা আলোচনা করো। 

 

৩।   অমিত যে দেশের নাগরিক, সেখানে প্রচুর শস্য উত্পাদিত হয়। নদীতে প্রচুর মাছ পাওয়া যায়। প্রাকৃতিক সম্পদও প্রচুর। কিন্তু দুর্ভাগ্য, দেশটির মানুষ এসব সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এতে বোঝা যাচ্ছে—দেশটিতে সুশাসনের অভাব রয়েছে।

     (ক) সুশাসন কী?

     (খ) সুশাসন প্রতিষ্ঠায় নাগরিকের ভূমিকা কী?

     (গ) সুশাসনের অভাবে কিভাবে মানুষ উন্নত জীবনযাত্রার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়? ব্যাখ্যা করো।

     (ঘ) দেশটির দুরবস্থা থেকে উত্তরণে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া উচিত বলে তুমি মনে করো?

 

৪।   শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে মানুষের ‘সাম্য’ নিয়ে আলোচনা করছিলেন। তিনি বললেন, পৃথিবীতে মানুষের মধ্যে সাম্য নেই। যদি সাম্যের নীতিতে সমাজ গড়ে তোলা না যায়, তাহলে সংঘর্ষ অনিবার্য। কিরণ প্রশ্ন করল, সবাইকে কী সমান সুযোগ-সুবিধা দেওয়া সম্ভব? শিক্ষক জবাব দিলেন, সমান সুযোগ-সুবিধা দেওয়া সম্ভব নয়, তবে সবার জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করতে হবে।

     (ক) সাম্য কাকে বলে?

     (খ) সাম্যের বিভিন্ন রূপ বর্ণনা করো।

     (গ) সাম্যের অনুপস্থিতিতে কেন সংঘর্ষের সৃষ্টি হবে?

     (ঘ) উদ্দীপকের আলোকে কিভাবে সাম্য নিশ্চিত হবে? ব্যাখ্যা করো।  

 

৫।   সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের এক সেমিনারে আতিক ও ইউসুফ জানতে পারল, বাংলাদেশে ই-গভর্ন্যান্স যাত্রা শুরু হয়েছে। তবে বহু বাধা অতিক্রম করতে হচ্ছে। সেমিনারে মূল প্রবন্ধে উপস্থাপক ই-গভর্ন্যান্সের প্রতিবন্ধকতা দূর করার উপায় নির্দেশ করলেন।

     (ক) ই-গভর্ন্যান্স কী?

     (খ) ই-গভর্ন্যান্সের সুবিধাগুলো কী?

     (গ) ই-গভর্ন্যান্সের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করো।

     (ঘ) উদ্দীপকের আলোকে ই-গভর্ন্যান্সের প্রতিবন্ধকতা দূর করার উপায়গুলো ব্যাখ্যা করো।

 

৬।   স্বাধীনতা মানুষের জন্মগত অধিকার। কিন্তু স্বাধীনতা অর্জন যেমন দুরূহ প্রক্রিয়া, স্বাধীনতা সংরক্ষণ ততোধিক গুরুত্বপূর্ণ। কেননা নানা কারণে জনগণের স্বাধীনতা বিপন্ন হয়েছে। এ জন্যই লাস্কি বলেছেন, ‘সংরক্ষণের বিশেষ ব্যবস্থা ব্যতীত অধিকাংশ লোক স্বাধীনতা উপভোগ করতে পারে না।’ স্বাধীনতাকে অক্ষুণ্ন ও অটুট রাখার জন্য কতগুলো পদ্ধতি রয়েছে। এ পদ্ধতিগুলোকে স্বাধীনতার রক্ষাকবচ বলে। সমাজে সাম্য প্রতিষ্ঠা পেলে স্বাধীনতা অটুট থাকে।

     (ক) টি এইচ গ্রিন প্রদত্ত স্বাধীনতার সংজ্ঞাটি লেখো।

     (খ) সাম্য বলতে কী বোঝো?

     (গ) সংশ্লিষ্ট উদ্দীপকের আলোকে স্বাধীনতার রক্ষাকবচগুলো আলোচনা করো।

     (ঘ) ‘সমাজে সাম্য প্রতিষ্ঠা পেলে স্বাধীনতার রক্ষাকবচ অটুট থাকে’—উদ্দীপকে উল্লিখিত উক্তিটির আলোকে সাম্য ও স্বাধীনতার মধ্যে সম্পর্ক দেখাও।

৭।   ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনে সৃষ্টভাষা ও সংস্কৃতিভিত্তিক জাতীয়তাই হলো বাঙালি জাতীয়তাবাদ। এই জাতীয়তাবাদই চেতনার শক্তি। বহু ত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জন হয়েছে। শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে প্রয়োজন দেশপ্রেম।

     (ক) Natio ও Natus শব্দের অর্থ কী?

     (খ) দেশপ্রেম বলতে কী বোঝো?

     (গ) জাতীয়তাবাদ গঠনে ভাষার গুরুত্ব বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ব্যাখ্যা করো।

     (ঘ) উদ্দীপকের আলোকে দেশপ্রেম ও জাতীয়তার সম্পর্কে আলোচনা করো।

 

৮।   মানবাধিকারকর্মী আইরিন সুইডেন ও নরওয়ে গিয়েছিলেন। এসব দেশের নাগরিকদের অধিকার সচেতনতা ও কর্তব্যবোধ দেখে তিনি মুগ্ধ।

     তার ধারণা পৃথিবীর সব দেশের মানুষই তাদের অধিকার ও কর্তব্যবোধ সম্পর্কে সচেতন হয়ে উঠবেন। তিনি বলেন, অধিকারের মধ্যেই কর্তব্য নিহিত।    

     (ক) অধিকার কত প্রকার ও কী কী?

     (খ) মৌলিক অধিকার কী?

     (গ) মৌলিক অধিকার ও মানবাধিকারের মধ্যে পার্থক্য লেখো।

     (ঘ) ‘অধিকারের মধ্যেই কর্তব্য নিহিত’—উদ্দীপকে উল্লিখিত আইরিনের বক্তব্যটি মূল্যায়ন করো। 

 

৯।   দমন-পীড়ন করে মানুষকে নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে রাষ্ট্র পরিচালনার ধারণা আজ পাল্টে গেছে। শাসন মানে মেধা খাটানো—বিষয়টি এখন গুরুত্ব পাচ্ছে। সুশাসন প্রতিষ্ঠা একদিনে সম্ভব নয়। এটি অর্জন করতে হয় ধাপে ধাপে এবং সমন্বিত প্রচেষ্টায়। সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সরকারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ হলেও নাগরিকের ভূমিকা কম নয়।

     (ক) গণতন্ত্র কী?

     (খ) সুশাসন প্রতিষ্ঠায় চারটি বড় সমস্যার নাম লেখো।

     (গ) উদ্দীপকের আলোকে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সরকারের ভূমিকা আলোচনা করো।

     (ঘ) সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সরকারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ হলেও নাগরিকের ভূমিকা কম নয়। উদ্দীপকে উল্লিখিত উক্তিটির যথার্থতা মূল্যায়ন করো।

বহু নির্বাচনী প্রশ্ন

 

১।   Civis কোন ভাষার শব্দ?

     ক. আরবি    খ. ইংরেজি

     গ. গ্রিক     ঘ. লাতিন

২।   ‘স্বচ্ছতা’র ইংরেজি কী?

     ক. Transport

     খ. Transparency

     গ. Transformation 

     ঘ. কোনোটিই নয়

৩।   আইনের ইংরেজি কী?

     ক. Rule    খ. Disciple

     গ. Law          ঘ. Lay

৪।   ব্যক্তিগত মূল্যবোধ কোনটিকে নিয়ন্ত্রণ করে?

     ক. স্বাধীনতাকে      খ. সাম্যকে

     গ. বিশ্বাসকে        ঘ. নৈতিকতাকে

৫।   Ethics কী?

     ক. পৌরনীতি     খ. ধর্মশাস্ত্র

     গ. অর্থশাস্ত্র       ঘ. নীতিশাস্ত্র

৬।   ‘Liberty’ লাতিন কোন শব্দ থেকে এসেছে?

     ক. Liber            খ. Libere

     গ. Libir             ঘ. Lober

৭।   সাম্য হলো—

     ক. অখণ্ড ধারণা

     খ. খণ্ড ধারণা

     গ. আইনগত ধারণা  

     ঘ. স্বাভাবিক ধারণা

৮।   ই-পুলিশ কিসের অন্তর্ভুক্ত?

     ক. ২েই                খ. ২ে

     গে. ২েঈ                গ. ২েউ

৯।   অধিকার হলো সেসব বাহ্যিক অবস্থা, যা মানুষের অধিক উন্নতি সাধন করে। উক্তিটি কার?

     ক. টি এইচ গিনের  

     খ. অধ্যাপক হল্যান্ড

     গ. ম্যাকইভার

     ঘ. লাস্কির

১০.  অধিকারের বিপরীত রূপ কী?

     ক. অনধিকার 

     খ. কর্তব্য

     গ. সমানাধিকার

     ঘ. মানবাধিকার

 

উত্তরগুলো মিলিয়ে নাও

১. ঘ ২. খ ৩. গ ৪. ঘ ৫. ঘ

৬. খ ৭. গ ৮. গ ৯. ক

১০. খ

মন্তব্য