kalerkantho


আবার ব্লগার-প্রকাশক হত্যা

দ্রুত বিচার করতে হবে

১৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০



রাজধানী ঢাকার বাইরে মুন্সীগঞ্জে এবার হত্যাকাণ্ডের শিকার হলেন বিশাখা প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী শাহজাহান বাচ্চু। মুন্সীগঞ্জ জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক এই সাধারণ সম্পাদক মুক্তমনা লেখক হিসেবেও পরিচিত। বিভিন্ন ব্লগে তিনি লেখালেখি করতেন। ‘আমাদের বিক্রমপুর’ নামে একটি অনিয়মিত সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন তিনি। গ্রামের বাড়ি সিরাজদিখান উপজেলার কাকালদি গ্রামে। সেখানকার এক ওষুধের দোকান থেকে তাঁকে ধরে রাস্তায় নিয়ে গুলি করা হয়। এ সময় ককটেল ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়। দুটি মোটরসাইকেলে পাঁচজন লোক এসে ঘটনাটি ঘটিয়ে পালিয়ে যায় বলে এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়। পারিবারিক সূত্র বলছে, মুঠোফোনে তাঁকে নিয়মিত হত্যার হুমকি দেওয়া হতো। শাহজাহান বাচ্চু ঢাকার প্রকাশনাজগতের পরিচিত মুখ। তাঁর প্রতিষ্ঠান বিশাখা প্রকাশনী থেকে শুধু কবিতার বই প্রকাশ করা হতো।

শাহজাহান বাচ্চু হত্যার মধ্য দিয়ে এটা স্পষ্ট হয়েছে যে বাংলাদেশে প্রগতির শত্রু অন্ধকারের শক্তি নতুন করে সংগঠিত হতে শুরু করেছে। তবে রাতের অন্ধকার নয়, দিনের আলোতেই তারা হত্যাকাণ্ড ঘটাচ্ছে। এর আগে ২০১৫ সালে তারা শাহবাগের আজিজ মার্কেটের তিনতলায় হামলা চালিয়ে দিনের বেলা জাগৃতি প্রকাশনীর মালিক ফয়সাল আরেফিন দীপনকে কুপিয়ে হত্যা করে বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে চলে যায়। লালমাটিয়ায় একটি ভবনের চারতলায় শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর মালিক আহমেদুর রশিদ টুটুলসহ তিনজনকে একই কায়দায় কুপিয়ে গুরুতর আহত করে বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে চলে যায়। শাহজাহান বাচ্চু একটি ওষুধের দোকানে বসে আড্ডা দিচ্ছিলেন। ইফতারের কিছুক্ষণ আগে তাঁকে সেখান থেকে ধরে নিয়ে হত্যা করা হয়। পুলিশের একজন এএসআই ওই সময় ওই পথ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি প্রতিরোধ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন বলে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে।

রাজধানীতে একের পর এক ব্লগার হত্যার পর ঢাকার বাইরেও এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। সরকারের সব মহলকে এ ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য গণমাধ্যমে বলা হয়েছে। মৌলবাদী শক্তি যেভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চাইছে, তাতে মুক্তচিন্তার মানুষদের দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। খুব বেশিদিনের কথা নয়, হুমায়ুন আজাদের ওপর হামলা হয়েছিল। হত্যা করা হয় ব্লগার রাজীব হায়দারকে। ওয়াশিকুর রহমান বাবু, অভিজিৎ রায়, অনন্ত বিজয়, নিলয় চক্রবর্তী—সবারই পরিচয় এক, তাঁরা মুক্তমনা ব্লগার। তাঁদের হত্যা করে অশুভ শক্তি যে বার্তাটি দিতে চায়, তা স্পষ্ট। দ্রুত বিচার করতে না পারলে এ ধরনের হত্যাকাণ্ডের ঘটনা থামানো যাবে না।



মন্তব্য