kalerkantho


মিলছে লাশের পর লাশ

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির দিকে দৃষ্টি দিন

৮ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি যে সন্তোষজনক নয়, তা নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না। রবিবারের কালের কণ্ঠে প্রকাশিত খবরে জানা যাচ্ছে, ময়মনসিংহ শহরের চরপাড়া কপিক্ষেত বস্তি থেকে এক নববধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়ক থেকে উদ্ধার করা হয়েছে এক অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের লাশ। ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ত্রিবেণী গ্রামের সেচ খাল থেকেও অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঢাকা-ময়মনসিংহ রেলপথের গফরগাঁও এলাকার একটি রেল সেতুর নিচ থেকে অজ্ঞাতপরিচয় বৃদ্ধের গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়মনসিংহের ভালুকা থেকেও একটি লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ধামরাইয়ের একটি পরিত্যক্ত কারখানা থেকে দুই নিরাপত্তাকর্মীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এক দিনে এত লাশ উদ্ধারের ঘটনাই বলে দিচ্ছে, দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে। শুধু লাশ উদ্ধারের ঘটনা তো নয়, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সংঘাত-সংঘর্ষের খবরও আসছে সংবাদমাধ্যমে। সামাজিক নানা অস্থিরতার কারণেও বাড়ছে সংঘাত-সংঘর্ষ, এমনকি খুনখারাবির ঘটনা। এ ধরনের ঘটনার খবর সংবাদমাধ্যমে এলে দেশের সচেতন মানুষ স্বাভাবিকভাবেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হবে। কোনোভাবেই তো আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না। বন্ধ করা যাচ্ছে না নৃশংস অমানবিকতা। একের পর এক এমন ঘটনা ঘটতে থাকলে জনমনে নিরাপত্তাহীনতার বিষয়টি আরো তীব্র হবে। এ কথা ঠিক যে এ সমাজে এমন অনেক মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে, আইন-শৃঙ্খলার প্রতি যাদের কোনো শ্রদ্ধাবোধ নেই। পুলিশ-প্রশাসন, বিচারব্যবস্থা—কোনো কিছুরই তোয়াক্কা করে না তারা। আবার এটাও ঠিক যে সমাজের নানা স্তরে এক ধরনের অস্থিরতাও বিরাজ করছে। সামান্য কারণেই ঘটে যাচ্ছে খুনের ঘটনা। চলতি বছরটিকে ধরে নেওয়া হচ্ছে নির্বাচনের বছর হিসেবে। নির্বাচনের দিন যতই এগিয়ে আসবে উত্তেজনা ততই বাড়বে। সামাজিক প্রতিপত্তি কিংবা রাজনৈতিক কারণেও তখন আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে পারে। আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অসহায় কিংবা দুর্বল ভাবার কোনো কারণ তো নেই। তাদের সক্ষমতা ও যোগ্যতা নানা ক্ষেত্রেই প্রমাণিত। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় তাদের এখন সর্বশক্তি নিয়োগ করতে হবে। যেখানে অপরাধ সেখানেই কঠোর হতে হবে। কঠোর হাতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করার কোনো বিকল্প নেই।

আমরা আশা করি, সব অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আরো মনোযোগ দেবে, সক্রিয় হবে।



মন্তব্য