kalerkantho


জঙ্গিবিরোধী অভিযান

ধারাবাহিকতা বজায় রাখুন

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



গত বছর গুলশান হামলার পর থেকে দেশে জঙ্গিবিরোধী অভিযান জোরদার হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের অভিযানে বেশ কয়েকজন জঙ্গি ধরা পড়ে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয়েছে বেশ কয়েকজন জঙ্গি। নারী জঙ্গি ধরা পড়ার ঘটনাও ঘটেছে। বুধবার সকালে ঢাকার যাত্রাবাড়ীর জঙ্গি আস্তানা থেকে জেএমবির সারোয়ার-তামিম গ্রুপের আইটি শাখার প্রধানসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে।   র‌্যাব এই অভিযান পরিচালনা করে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চলমান অভিযানে জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো দৃশ্যত দুর্বল হয়ে পড়লেও তারা নতুন করে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছে। একের পর এক জঙ্গি আস্তানার সন্ধানও পাওয়া যাচ্ছে। এখনো দেশের বিভিন্ন স্থানে বেশ কিছু তরুণ নিখোঁজ ও সন্দেহভাজন তালিকায় রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে জঙ্গি নেতাদের গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনায় এমন ভাবার কোনো কারণ নেই যে জঙ্গি নির্মূল করা গেছে। বাংলাদেশে যেভাবে জঙ্গিবাদ বিস্তৃত হয়েছিল তাতে এমন আশঙ্কা করার যথেষ্ট কারণ আছে। সাম্প্রতিক সময়ে দেখা যাচ্ছে, অনেক সচ্ছল পরিবারের সদস্যরাও জঙ্গিবাদের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। তাদের অনেকেই দেশ ও বিদেশের নামকরা প্রতিষ্ঠানেরও শিক্ষার্থী। উচ্চশিক্ষিত ও সচ্ছল পরিবারের সদস্যদের বিশেষভাবে জঙ্গিবাদে আকৃষ্ট করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনগুলোর সঙ্গেও তাদের যোগাযোগ আছে। কাজেই জঙ্গিবিরোধী অভিযানে ভাটা দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। দেশ যখন অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে চলেছে, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা রয়েছে, এই সময়ে জঙ্গিরা নতুন করে সংগঠিত হলে সমূহ বিপদ হতে পারে।

জঙ্গিবাদ নির্মূলের কাজটি সহজ নয়। বাংলাদেশের চেয়েও অনেক বেশি অভিজ্ঞতা নিয়ে বিশ্বের অনেক দেশ জঙ্গি তৎপরতা ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে। দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তাই সব সময় সতর্ক অবস্থানে থাকতে হবে। বাড়াতে হবে গোয়েন্দা নজরদারি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর শক্তি বৃদ্ধি করার পাশাপাশি তাদের উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। নিরাপত্তাব্যবস্থায় কোনো ফাঁকফোকর থাকলে তা বন্ধ করে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন।

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের দিকে তাকালে আমরা বুঝতে পারি, জঙ্গিবাদ একটি দেশকে কিভাবে ধ্বংস করে দিতে পারে। এই উপলব্ধি থেকে জঙ্গিবাদবিরোধী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করতে হবে। আমরা আশা করব, জঙ্গিবিরোধী অভিযানের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।


মন্তব্য