kalerkantho

বুধবার। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ১০ ফাল্গুন ১৪২৩। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সারা দেশে বেহাল স্বাস্থ্যকেন্দ্র

তৃণমূলে সেবাপ্রাপ্তি নিশ্চিত করুন

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের কাছে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে সরকারের চেষ্টার অন্ত নেই। গ্রামাঞ্চলে গড়ে তোলা হয়েছে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্র। এসব কেন্দ্রে একজন মেডিক্যাল অফিসার, একজন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার, দুজন পরিবার কল্যাণ পরিদর্শক থাকার কথা। প্রজাতন্ত্রের এই কর্মচারীদের আবাসনের ব্যবস্থাও আছে এসব কেন্দ্রে। এসব কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের মানুষ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা নিতে পারবে, নিরাপদ প্রসব থেকে শুরু করে পরিবার পরিকল্পনার যাবতীয় সহযোগিতা পাওয়ার কথা। কিন্তু দেশের ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্রের মধ্যে মাত্র ১৫ শতাংশ চালু আছে। ১৫ শতাংশ একেবারেই অচল। বাকি ৭০ শতাংশ চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। দেশের তিন হাজার ৯২৪টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্রের সেবাবঞ্চিত থাকছে প্রত্যন্ত এলাকার সিংহভাগ মানুষ।

চিকিৎসকদের মধ্যে গ্রামে না যাওয়ার প্রবণতা আছে। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাতে কোনো কাজ হয়েছে বলে মনে হয় না। মঙ্গলবারের কালের কণ্ঠে প্রকাশিত খবরে জানা যায়, দেশের ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্রগুলো বেহাল। আধুনিক ভবন নির্মাণ করা হলেও তা পড়ে আছে অরক্ষিত ও পরিত্যক্ত অবস্থায়। অনেক পরিবার কল্যাণকেন্দ্রে বিদ্যুৎ সংযোগ নেই। দরজা-জানালা চুরি হয়ে গেছে। পানি পাওয়া যায় না। অবকাঠামো সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা নেই। অনেক পরিবার কল্যাণকেন্দ্রে চিকিৎসাসেবার জন্য কাউকে পাওয়া যায় না। অনেক কেন্দ্রে দিনের বেলা কয়েকজনকে পাওয়া গেলেও রাতে প্রয়োজনীয় সেবা মেলে না। ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণকেন্দ্রে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ ও মনিটরিংয়ের অভাবে সরকারের একটি শুভ উদ্যোগ ভেস্তে যেতে বসেছে। রাষ্ট্র বিপুল অর্থ ব্যয়ে স্বাস্থ্যসেবার যে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে চাইছে তা নষ্ট হতে বসেছে।

আধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থার সুফল দেশের তৃণমূল মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে না পারলে সরকারের সৎ উদ্দেশ্য সফল হবে না। এর জন্য চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্ট কর্মীদের একাত্মতা প্রয়োজন। গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবার এ বেহাল কাটিয়ে উঠতে না পারলে শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার কমিয়ে আনতে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব হবে না। আমরা আশা করব, সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।


মন্তব্য