kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

এবার ফেরার পালা

দুর্ভোগ দূর করতে ব্যবস্থা নিন

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



এবার ফেরার পালা

দীর্ঘ ছয় দিনের ছুটি কাটিয়ে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। সড়কপথে এবারের ঈদ আনন্দযাত্রা ছিল অনেকটাই ঝক্কির।

যানজটের কারণে দীর্ঘ সময় পথে কাটাতে হয়েছে। তার পরও প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেওয়ার চেষ্টা করেছে অনেকেই। ঈদের ছুটির পর গতকাল থেকে অফিস-আদালত খুলেছে। যথারীতি ঢিলেঢালা ভাব ছিল অফিসপাড়ায়। অনেকেই ঐচ্ছিক ছুটি নিয়েছে।

ঈদের ছুটি শেষ হওয়ার এক দিন পর দুই দিনের সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় সিংহভাগ মানুষের কর্মস্থলে ফেরা হবে আজ ও আগামীকাল। এবারের ঈদযাত্রায় যে দুর্ভোগে মানুষকে পড়তে হয়েছে, আজ ও কাল যেন তেমনটি না ঘটে সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। ঈদযাত্রার অভিজ্ঞতা ফিরতি যাত্রায় কাজে লাগাতে হবে। ঈদের আসা-যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনা যেন নৈমিত্তিক ব্যাপার। এবারও ঈদের পরদিন দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৩ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। রেলপথে মহানগর গোধূলি লাইনচ্যুত হওয়ায় ১০ ঘণ্টা বন্ধ ছিল ঢাকা ও চট্টগ্রামের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোটামুটি স্বাভাবিক থাকলেও ফেনীতে এক কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রংপুরে কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এবারের ঈদে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নেওয়া নতুন উদ্যোগ অনেকাংশেই সফল হয়েছে। ঈদের পরদিন থেকেই অনেকটা পরিচ্ছন্ন হয়ে যায় রাজধানী ঢাকা। পরের দুই দিনেও লক্ষ করা গেছে দুই সিটি করপোরেশনের তৎপরতা। ঢাকার বাইরে জেলা সদর ও পৌর এলাকায়ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়। সবাই নির্ধারিত স্থানে কোরবানি না দিলেও বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নাগরিক সচেতনতা লক্ষ করা গেছে। নিজ উদ্যোগে অনেকে বর্জ্য অপসারণ করেছেন। ঈদের পরদিনই ফিরে পাওয়া গেছে পরিচ্ছন্ন মহানগরী। এই সচেতন উদ্যোগ আগামী দিনের সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশ গড়ে তুলতে সহায়ক হবে বলে আমরা মনে করি।    

এবারের ঈদে কোরবানির পশুর চামড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছেন চামড়া ব্যবসায়ীরা। ট্যানারি মালিকরা এবার ঢাকায় প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত গরুর চামড়া ৫০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৪০ টাকা দাম বেঁধে দেন। কিন্তু চামড়া কেনাবেচা হয়েছে এর চেয়ে বেশি দামে। ফলে চামড়া কিনছে না ট্যানারিগুলো। মফস্বলে এর প্রভাব পড়তে পারে। চামড়ার কোনো বিকল্প বাজার গড়ে ওঠেনি। ফলে এবার অনেক চামড়া দেশের বাইরে পাচার হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। চামড়ার পাচার ঠেকানোর পাশাপাশি কথিত সিন্ডিকেট ভাঙতে না পারলে ভবিষ্যতেও চামড়া নিয়ে ব্যবসায়ীদের বিপাকে পড়তে হবে।

বলা যেতে পারে, মোটামুটি নির্বিঘ্ন ছিল এবারের ঈদ। এবারের ঈদযাত্রার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে আগামী দিনে দুর্ভোগ লাঘবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।


মন্তব্য